×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে জেলায় জেলায় ট্র্যাক্টর মিছিল

নিজস্ব সংবাদদাতা
মুরারই ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ১৪:০৮
ট্র্যাক্টর মিছিল।

ট্র্যাক্টর মিছিল।
নিজস্ব চিত্র।

নয়া কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে দিল্লি সীমানায় আন্দোলনরত কৃষকদের ট্র্যাক্টর মিছিল প্রজাতন্ত্র দিবসে রাজধানী দাপাচ্ছে। একই দাবিতে বীরভূমের মুরারই ১ নম্বর ব্লকে ট্র্যাক্টর মিছিল হল মঙ্গলবার। ট্র্যাক্টর মালিক সমিতির ডাকে এই প্রতিবাদে ছিল ১০০-র বেশি ট্র্যাক্টর।

নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে ট্র্যাক্টর মালিক সমিতি আয়োজিত এই প্রতিবাদে অংশ নিয়েছিলেন এলাকার কৃষকরাও। মুরারই নতুন বাজার থেকে শুরু হয় এই মিছিল। তার পর ১০০-র বেশি ট্র্যাক্টর এবং আন্দোলনকারীরা মুরারইয়ের বিভিন্ন রাস্তা পরিক্রমা করেন। কৃষি আইন প্রত্যাহারের বিরুদ্ধে স্লোগানও দেন তাঁরা। এই প্রতিবাদে সক্রিয় অংশগ্রহণকারী ইমতিয়াজ ইসলাম বলেছেন, ‘‘কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে এই মিছিল। শুধু ট্র্যাক্টর সমিতি নয়, আশপাশের কৃষকভাইরাও আমাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন।’’ রেজাউল নামের অন্য একজন বলেছেন, ‘‘আমাদের প্রতিবাদে সকলে সঙ্গে আছেন। আগামী দিনে দরকার পড়লে আরও বড় আন্দোলনে যাব।’’

দিল্লির কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে ট্র্যাক্টর মিছিল হয়েছে কোচবিহারেও। সেখানকার জেলা বাম-কংগ্রেস এবং জেলা তূণমূলের পক্ষ থেকে ট্র্যাক্টর মিছিলের আয়োজন করা হয়। বাম-কংগ্রেস যৌথভাবে কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের ঘুঘুমারি থেকে মিছিল করে কোচবিহার শহর পরিক্রমা করে। অন্য দিকে জেলা তৃণমূলের পক্ষ থেকে কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের দেওয়ানহাট ও জিরান পুর এলাকায় মিছিল করা হয়। তৃণমূলের ট্রাক্টর মিছিলের নেতৃত্ব দেন জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের যুব সভাপতি অভিজিৎ দে ভৌমিক। অপরদিকে বাম কংগ্রেস সমর্থিত ট্রাক্টর রেলির নেতৃত্ব দেন জেলা বামফ্রন্টের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মহানন্দ সাহা।

Advertisement

কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে হুগলি জেলাতেও এ দিন ট্র্যাক্টর মিছিল করেছে বামেরা। পোলবার সুগন্ধা থেকে চুঁচু্ড়া খাদিনা মোড় হয়ে ব্যান্ডেল রাজহাট পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার পথ জুড়ে বামেদের বিশাল মিছিলে অংশ নেন কৃষকরা। এই মিছিলে অংশ নিয়েছিল ৩০০-র বেশি ট্র্যাক্টর।এই মিছিলে উপস্থিত ছিলেন সারা ভারত কৃষক সভার হুগলি জেলা সম্পাদক ভক্তরাম পান-সহ বাম কৃষক নেতৃত্ব।

কৃষি আইনের প্রতিবাদে পশ্চিম বর্ধমান জেলায় আসানসোলে বামফ্রন্ট, পাণ্ডবেশ্বরে তৃণমূল কংগ্রেস এবং বার্নপুরে শিখ সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে আলাদা আলাদাভাবে ট্র্যাক্টর মিছিল করা হয়েছিল। আসানসোলে বামেদের মিছিল কালিপাহাড়ি মোড় থেকে দুই নম্বর জাতীয় সড়কের উপর দিয়ে পুনরায় জিটি রোড হয়ে কালিপাহাড়িতে শেষ হয়। পাণ্ডবেশ্বর এর বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি ওই এলাকার মিছিলে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

বিতর্কিত ৩ কৃষি আইন নিয়ে দু’মাসেরও বেশি সময় ধরে দিল্লি সীমানায় আন্দোলন করছেন কৃষকরা। কেন্দ্রের সঙ্গে বেশ কয়েক দফার বৈঠক করেও মেলেনি সমাধান সূত্র। প্রজাতন্ত্র দিবসে তাঁদের ট্র্যাক্টর মিছিল ঘিরে সকাল থেকেই ধুন্ধুমার কাণ্ড। পুলিশের সঙ্গ সংঘর্ষেও জড়িয়েছেন আন্দোলনকারীরা। বিভিন্ন রাস্তায় ব্যারিকেড ভেঙে দিল্লির লালকেল্লাতেও পৌঁছেছিলেন কৃষকরা।

Advertisement