×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ মে ২০২১ ই-পেপার

কুড়িয়ে পাওয়া দু’লক্ষাধিক টাকা ফেরালেন চালক

নিজস্ব সংবাদদাতা
রামপুরহাট ১২ নভেম্বর ২০২০ ০৩:০৮
ইনজামামুল হক। নিজস্ব চিত্র।

ইনজামামুল হক। নিজস্ব চিত্র।

কাজের জায়গা থেকে ফিরে আসার সময় রাস্তার ধারে প্লাস্টিকের প্যাকেটে ২ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা কুড়িয়ে পেয়েছিলেন পেশায় গাড়ি চালক ইনজামামুল হক। মাড়গ্রাম থানার প্রত্যন্ত গ্রাম হাটপাড়া গ্রামের ওই যুবক বুঝেছিলেন নিশ্চয় কারও প্রয়োজনীয় টাকা কোনও ভাবে পড়ে গিয়েছে। তাই সাবধানে সযত্নে বাড়িতে বৌদির কাছে ওই টাকা রেখে দিয়েছিলেন তিনি। মঙ্গলবার সকালে কুড়িয়ে পাওয়া টাকা নিজের বাড়ি থেকে বুধবার দুপুরে ইনজামামুল ফিরিয়ে দেন এলাকার পাথর ব্যবসায়ী মাসুম হোসেন চৌধুরীকে।

টাকা ফেরত পেয়ে খুশি রামপুরহাটের বাসিন্দা শালবাদরা এলাকার পাথর ব্যবসায়ী মাসুম। জানালেন, ‘‘আজকের দিনে এমন মহানুভবতার পরিচয় পাওয়া খুব দুর্লভ। আমরা পাথর ব্যবসায়ীরা এ রকম একজন গাড়ি চালকের জন্য খুব গর্ব অনুভব করছি।’’ মাসুম জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টা নাগাদ মল্লারপুর গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্রে ইলেকট্রিক বিল জমা দেওয়ার জন্য ম্যানেজারকে ২ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা দিয়েছিলাম। পথে রামপুরহাট থানার হস্তিকাঁদা ক্যানাল মোড় পেরিয়ে টাকা বাইক থেকে কোনও কারণে পড়ে যায়। কিছুদূর যাওয়ার পরে ম্যানেজার টাকা পড়ে যাওয়ার কথা খেয়াল করেন। খবর পাওয়ার পরে এলাকায় গিয়ে খোঁজ নিয়ে সিসি ক্যামেরা ছবি দেখে জানতে পারা যায় মোটর বাইকের পিছনে একটি মারুতি গাড়ি একই পথে যেতে দেখা যায়। পুলিশকে সেকথা মৌখিক ভাবে জানানো হয়।

পুলিশ সূত্রে খবর, ইতিমধ্যে জানতে পারা যায় একজন গাড়ির চালক পথে পড়ে থাকা টাকা ভর্তি প্লাষ্টিকের প্যাকেট কুড়িয়ে পেয়েছেন। এর পরে জানতে পারা যায় এলাকার একজন ক্রাসার মালিকের গাড়ির চালক ওই প্যাকেট পেয়েছে। পরবর্তীতে গাড়ির চালক নিজেই বাড়িতে রাখা টাকা ফেরত দেন।

Advertisement

অষ্টম শ্রেণি পাশ ইনজামামুল জানান, রাস্তার ধারে পড়ে থাকা হলুদ প্যাকেট দেখে তাঁর সন্দেহ হয়। তাঁর কথায়, ‘‘প্যাকেট খুলে দেখি টাকা ভরা আছে। প্রথমে কাউকে কিছু না বলে টাকা ভর্তি প্লাস্টিকের ব্যাগটি বাড়িতে আনি। বাড়িতে এসে দাদা বৌদির সঙ্গে ঘটনার কথা জানাই। বুঝতে পারি আমি যে এলাকায় কাজ করি সেখানকার কোনও পাথর ব্যবসায়ী মালিকের ওই টাকা হতে পারে। তাই বাড়িতে টাকাটা যত্নে রেখে দিতে বলি। আজ সকালে পাথর শিল্পাঞ্চলে কাজে যেতেই হারিয়ে যাওয়া টাকা নিয়ে আলোচনা হতে থাকে। আমি আমার মালিককে টাকা কুড়িয়ে পাওয়ার কথা জানাই। যাঁর টাকা হারিয়েছিল তাঁকে বাড়িতে ডেকে টাকা ফিরিয়ে দিই।’’

Advertisement