Advertisement
০৫ ডিসেম্বর ২০২২
Theft

গয়নার দোকানে নিপুণ হাতে সিঁদ কাটল চোরেরা, বাঁকুড়ায় লুট কেজি কেজি সোনা ও রুপো

সিঁদ কেটে গয়নার দোকানে ঢুকে সেখান থেকে বেশ কয়েক কিলোগ্রাম সোনা, রুপো এবং নগদ টাকা নিয়ে চম্পট দিল একদল চোর। রবিবার রাতে এই ঘটনা ঘটেছে বাঁকুড়ার পুয়াবাগান মোড়ে ৬০-এ জাতীয় সড়কের উপর।

গয়নার দোকানে কাটা হয়েছে এই সিঁধ।

গয়নার দোকানে কাটা হয়েছে এই সিঁধ। — নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
বাঁকুড়া শেষ আপডেট: ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৮:৩২
Share: Save:

সিঁদ কেটে গয়নার দোকানে ঢুকে সেখান থেকে বেশ কয়েক কিলোগ্রাম সোনা ও রুপোর সঙ্গে নগদ টাকা নিয়ে চম্পট দিল একদল চোর। রবিবার রাতে এই ঘটনা ঘটেছে বাঁকুড়ার পুয়াবাগান মোড়ে ৬০-এ জাতীয় সড়কের উপর। ঘটনার তদন্তে নেমেছে বাঁকুড়া সদর থানার পুলিশ।

Advertisement

একটা সময়ে বাড়িতে সিঁদ কেটে চুরির ঘটনা ঘটত আকছার। ইদানীং আর তেমনটা হয় না। তবে সোমবার সকালে তেমন অভিজ্ঞতাই ফিরে এল বাঁকুড়া শহর লাগোয়া পুয়াবাগান এলাকায়। সেখানে দীর্ঘ দিন ধরে একটি ঘর ভাড়া নিয়ে গয়নার দোকান চালাচ্ছিলেন লালচাঁদ মোহন্ত নামে এক প্রৌঢ়। রবিবার রাতে তাঁর দোকানেই হানা দেয় নিশিকুটুম্বরা। রবিবার রাতে লালচাঁদ দোকানের দরজায় তালা দিয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন নিশ্চিন্তে। কিন্তু সোমবার দোকান খুলে দেখেন ভিতরের সিন্দুক-সহ অন্যান্য আসবাব তছনছ হয়ে পড়ে। দোকানের পিছনের দিকে যেতেই তাঁর চোখে পড়ে দেওয়ালের একাংশে এক মানুষ সমান গর্ত কাটা। দোকানের বাইরে পড়ে রয়েছে ভাঙা ইটের টুকরো। এর পর লালচাঁদের বুঝতে সময় লাগেনি যে, দেওয়ালের ওই অংশে সিঁধ কেটেই চোরের দল ঢুকেছিল দোকানে। ঘটনার পর পুলিশে খবর দেওয়া হয়। বাঁকুড়া সদর থানার পুলিশ শুরু করেছে তদন্ত।

লালচাঁদের দাবি, ‘‘আমার দোকানে সাড়ে আট কিলোগ্রাম রুপো, ২৫০ গ্রাম সোনা এবং নগদ পাঁচ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা ছিল। চোররা সব কিছু নিয়ে চম্পট দিয়েছে।’’ এই ঘটনায় আতঙ্কে আশপাশের অন্যান্য ব্যবসায়ীরা। গোদের উপর বিষফোঁড়া লালচাঁদের দোকানের সিসি ক্যামেরা খারাপ। ফলে ঘটনার সময়কার কোনও ছবি মেলেনি। পুলিশ আশপাশের দোকানের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখছেন।

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.