Advertisement
০৫ অক্টোবর ২০২২
Shovan Chatterjee

Shovan Chatterjee: আইকোর মামলায় কলকাতা পুরসভার প্রাক্তন মেয়র শোভনকে জিজ্ঞাসাবাদ সিবিআইয়ের

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা নাগাদ বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে গিয়েছিলেন শোভন। সেখানে তাঁকে প্রায় তিন ঘণ্টা জেরা করা হয়।

সিজিও কমপ্লেক্সে শোভন-বৈশাখী

সিজিও কমপ্লেক্সে শোভন-বৈশাখী

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ২২:৪৭
Share: Save:

আইকোর মামলায় কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। চিটফান্ড সংস্থা আইকোরের লিজ নেওয়া হাজরার উত্তম মঞ্চ কী ভাবে কলকাতা পুরসভার অধীনে এল, সেই প্রক্রিয়া বিশদে জানতে শোভনকে ডেকে পাঠানো হয়েছিল বলে খবর।
বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা নাগাদ বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে গিয়েছিলেন। সেখানে প্রায় তিন ঘণ্টা পুরসভার প্রাক্তন মেয়রকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তবে আইকোর মামলা নিয়ে বৈশাখীর কাছে কিছুই জানতে চাওয়া হয়নি বলে খবর সিবিআই সূত্রে।

বহুতল তৈরি করার জন্য হাজরার উত্তর মঞ্চ লিজ নিয়েছিল আইকোর। পরে তা কী ভাবে পুরসভার হাতে এল, এ বিষয়ে শোভন বলেন, ‘‘হঠাৎ এক দিন শুনলাম, উত্তম মঞ্চ বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। তখন আমি কলকাতা পুরসভার মেয়র। জানলাম, আইকোর উত্তম মঞ্চ কিনেছে বা লিজ নিয়েছে। তখনই পুরসভার তরফে গোটা বিষয়টি পর্যালোচনা করা হয়। সেই সব করেই উত্তম মঞ্চ পুরসভার অধীনে এনেছি আমরা।’’

সূত্রের খবর, আইকোরের কর্ণধার অমূল্য মাইতিকে তিনি চিনতেন কি না, তাঁর সঙ্গে কখনও কথা হয়েছিল কি না আর চিটফান্ড সংস্থার কোনও অনুষ্ঠানে তিনি গিয়েছিলেন কি না, এই সব প্রশ্নই করা হয় শোভনকে। জেরার পর শোভন বলেন, ‘‘এখন আর আমি কলকাতা পুরসভায় নেই। তবে আমাকে যা যা প্রশ্ন করা হয়েছে, সব উত্তর দিয়েছি। সবরকম ভাবে সহযোগিতা করেছি তদন্তকারী সংস্থাকে।’’

এই আইকোর মামলাতেই এর আগে রাজ্যের দুই মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং মানস ভূঁইয়ার অফিসে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল সিবিআই। জেরা করা হয়েছিল কামারহাটির তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র ও তাঁর ছেলে স্বরূপ মিত্রকেও।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.