Advertisement
০৩ মার্চ ২০২৪
CBI

নিয়োগ-দুর্নীতিতে নয়া মোড়! দুই প্রাথমিক শিক্ষকের নিয়োগপত্র দেখতে চাইল সিবিআই

পর্ষদের সেক্রেটারি এই নির্দেশিকাটি জারি করেছেন দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা চেয়ারম্যানের উদ্দেশে। তাঁকেই দায়িত্ব নিয়ে ওই দু’জনের নিয়োগপত্র পর্ষদের কাছে জমা দিতে হবে।

শিক্ষক নিয়োগ তদন্তে গতি বাড়াচ্ছে সিবিআই।

শিক্ষক নিয়োগ তদন্তে গতি বাড়াচ্ছে সিবিআই। প্রতীকী চিত্র।

অমিত রায়
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৩ নভেম্বর ২০২২ ১২:৪৪
Share: Save:

প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি পাওয়া দু’জনের নিয়োগপত্র চেয়ে পাঠালো সিবিআই। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের কাছে এই দু’জনের নিয়োগপত্র চেয়ে পাঠানো হয়েছে। সিবিআইয়ের এমন তলবের পরেই বুধবার একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে পর্ষদ। সেই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কোর্টের নির্দেশে প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে যে তদন্ত চলেছে তা কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআইয়ের অধীন। সেই প্রক্রিয়াতেই দু’জনের নিয়োগপত্র চেয়ে পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। তাই ওই দু’জনকে অবিলম্বে তাদের নিয়োগপত্রের আসল কপি পর্ষদের দফতরে জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

পর্ষদের সেক্রেটারি আর সি বাগচী এই নির্দেশিকাটি জারি করেছেন। সেই নির্দেশিকাটি জারি করা হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা চেয়ারম্যানে উদ্দেশে। তাঁকেই দায়িত্ব নিয়ে ওই দু’জনের নিয়োগপত্র পর্ষদের কাছে জমা দিতে হবে। ওই বিজ্ঞপ্তিতে দু’জন চাকরিপ্রাপকের নাম উল্লেখ করে দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে দেওয়া হয়েছে তাদের রোল নম্বরও। তালিকার প্রথম নামটি হল পরিচয় সরকার। দ্বিতীয় নামটি হল ঈশিতা নিয়োগী। পরিচয়ের রোল নম্বর হল ১১৫০০০২৫৩ এবং ঈশিতার রোল নম্বর ১১৫০০৭২০৭। এই দুজনকে জরুরি ভিত্তিতে তাদের নিয়োগপত্রের আসল কপি পর্ষদের জেলা দফতর মারফত জমা করতে বলা হয়েছে। সেখান থেকেই ওই নিয়োগপত্র যাবে সিবিআইয়ের দফতরে। কিন্তু কেনম শুধুমাত্র এই দু’জনের নিয়োগপত্র চেয়ে পাঠাল সিবিআই, তা নিয়ে ধন্দে শিক্ষা মহল। তবে দ্রুততার সঙ্গে সিবিআইয়ের হাতে ওই দুজনের নিয়োগ পত্র তুলে দিতে পর্ষদ যে মরিয়া, তা বিজ্ঞপ্তির শেষাংশে লেখা ‘এক্সট্রিমলি আর্জেন্ট’ দেখে মনে করছে শিক্ষা মহল।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE