Advertisement
০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Abhishek Banerjee

TMC: কল্যাণের বহু আগে ব্যবহার করেছেন অভিষেক, শিরদাঁড়ার যুদ্ধে নতুন মাত্রা

প্রায় এক বছর আগে ওই পংক্তি ব্যবহার করেছিলেন অভিযেক। ২০২১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি মতুয়া অধ্যুষিত ঠাকুরনগরে এক জনসভায় ওই পংক্তি বলেছিলেন তিনি।

শ্রীজাতর কবিতার লাইন তুলে ‘শিরদাঁড়ার যুদ্ধ’ নিয়ে সরগরম শাসক শিবিরের অন্দরমহল।

শ্রীজাতর কবিতার লাইন তুলে ‘শিরদাঁড়ার যুদ্ধ’ নিয়ে সরগরম শাসক শিবিরের অন্দরমহল। —ফাইল চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৬ জানুয়ারি ২০২২ ১২:০৮
Share: Save:

তৃণমূলের অন্দরে নয়া মাত্রা পেল শিরদাঁড়ার যুদ্ধ। কবি শ্রীজাতর বিখ্যাত লাইন ‘মানুষ থেকেই মানুষ আসে, বিরুদ্ধতার ভিড় বাড়ায়, আমিও মানুষ, তুমিও মানুষ তফাৎ শুধু শিরদাঁড়ায়’ বহু ক্ষেত্রেই ভিন্ন ভিন্ন পট এবং প্রেক্ষিতে ব্যবহৃত হয়েছে। অতি সম্প্রতি সেটি আবার ব্যবহার করেছেন তৃণমূলের ‘বিতর্কিত’ সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

Advertisement

তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তথা মুখপাত্র কুণাল ঘোষের সঙ্গে বাগ্‌যুদ্ধ চলাকালীন কল্যাণ ওই লাইনদু’টি তাঁর ফেসবুকে পোস্ট করেন। তার পাল্টা কুণাল আবার ‘শিরদাঁড়া’ নামে একটি কবিতা পোস্ট করেন তাঁর ফেসবুক ওয়ালে। যা থেকে স্পষ্ট, ‘শিরদাঁড়ার যুদ্ধ’ নিয়ে শাসক শিবিরের অন্দরমহল সরগরম।

দলের শীর্ষনেতৃত্বের হস্তক্ষেপে নেটমাধ্যমে কল্যাণ-কুণাল শিরদাঁড়া যুদ্ধে সাময়িক বিরতি ঘটেছে বটে। কিন্তু তার মধ্যেই সেই যুদ্ধ নতুন মাত্রা পেয়ে গিয়েছে তাতে তৃণমূলে সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় পরোক্ষে হলেও জড়িয়ে পড়ায়। ঘটনাচক্রে, যে অভিষেককে কল্যাণের খোঁচা দেওয়া থেকে সাম্প্রতিক বিতর্কের সূত্রপাত। বলা হচ্ছে, শ্রীজাতর ওই লাইন অনেক আগে ব্যবহার করেছিলেন অভিষেক। অস্যার্থ— শিরদাঁড়ার যুদ্ধে অভিষেকের চেয়ে কল্যাণ অনেক পিছিয়ে।

বস্তুত, প্রায় এক বছর আগে ওই পংক্তি ব্যবহার করেছিলেন অভিযেক। ২০২১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি মতুয়া অধ্যুষিত ঠাকুরনগরে এক জনসভায় অভিষেক বলেছিলেন, ‘‘সিবিআইকে লেলিয়ে দিয়ে ভেবেছে আমাকে চমকাবে! যা পারবেন লাগিয়ে দিন! আপনার জেদ থেকে আমার জেদ দ্বিগুণ। আপনি বহিরাগতদের এনে বাংলা দখল করতে চান! আমি আপনাদের বের করব।’’ এর পরেই শ্রীজাতের পংক্তি উল্লেখ করে অভিযেক বলেছিলেন, ‘‘তুমিও মানুষ, আমিও মানুষ, তফাৎ শুধু শিরদাঁড়ায়।’’

Advertisement

যিনি এই লাইন লিখেছিলেন, তিনি কী বলছেন?

আনন্দবাজার অনলাইনকে রবিবার শ্রীজাত বললেন, ‘‘এর আগেও এই কবিতার এই বিশেষ দু’টি পংক্তি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয়েছে। দলমতনির্বিশেষে। আমি নিজেই গত বছর ফেব্রুয়ারিতে একটি জনসভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের গলায় এই কবিতার উচ্চারণ শুনেছি।’’ শ্রীজাতর আরও বক্তব্য, ‘‘যুগে যুগেই এটা হয়ে এসেছে যে, কবিতা বা গানের পংক্তি রাজনীতিকে জোর যুগিয়েছে। আমি এই কবিতাটা লিখেছিলাম। ছাপা হয়ে যাওয়ার পর কোনও কবিতা তো আর কবির সত্তাধীন থাকে না। কেউ চাইলে কোথাও নিজের বক্তব্যের কারণে তা ব্যবহার করতেই পারেন। তবে যখন লেখাটা লিখেছিলাম, তখন আমার কল্পনাও ছিল না যে, এই পংক্তিটি এত মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে এবং অভিষেক তাঁর জনসভায় এটি ব্যবহার করবেন।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.