Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০২ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

কেনিয়ায় ফের হামলার হুমকি আল শাবাবের

সংবাদ সংস্থা
নাইরোবি ০৫ এপ্রিল ২০১৫ ০৩:০২

প্রায় দেড়শো জনের প্রাণ নিয়েও থামতে চাইছে না আল শাবাব। আজ কেনিয়া সরকারের উদ্দেশে নতুন করে হুমকি বার্তা পাঠিয়েছে তারা। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে পাঠানো ওই বার্তায় এ বার সারা কেনিয়ায় রক্তের বন্যা বইয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে তারা।

আল কায়দার এই শাখা গোষ্ঠী তার সাম্প্রতিক বার্তায় কেনিয়া সরকারকে বলেছে, ‘‘আমরা থামব না। যত দিন না আমাদের মাটি থেকে তোমাদের সেনা সরছে, আমাদের মুসলিম ভাইদের উপর থেকে নির্যাতন, যত দিন না বন্ধ হচ্ছে কেনিয়ার সব শহর লাল রক্তে ভেসে যাবে। এটা দীর্ঘ যুদ্ধ। যেখানে কেনিয়ার সাধারণ মানুষকেই বলি হতে হবে।’’

গত বৃহস্পতিবার আল শাবাবের চার জঙ্গি কার্যত তাণ্ডব চালিয়েছিল সোমালিয়া সীমান্ত লাগোয়া কেনিয়ার গারিসা শহরের এক কলেজের ছাত্রাবাসে। ১৫ ঘণ্টা ধরে যুদ্ধ চালিয়ে ওই ছাত্রাবাস জঙ্গিমুক্ত করে কেনিয়া সেনা। সেই হামলায় এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৪৮ জনের। যাঁদের মধ্যে ১৪২ জন ওই কলেজেরই পড়ুয়া। নিহতদের মধ্যে তিন জন পুলিশ আর তিন জন সেনাও রয়েছেন বলে আজ জানিয়েছে সরকার। সেনা অভিযানে মারা যায় চার আল শাবাব জঙ্গিও।

Advertisement

কিন্তু এতগুলো প্রাণ একসঙ্গে কেড়ে নেওয়ার পরেও যে আল শাবাব চুপ করে বসে থাকতে চায় না, তার প্রমাণ তাদের এই নতুন হুমকি। সোমালিয়ার মাটিতে কেনিয়া সেনার উপস্থিতি মানতে চায় না ওই জঙ্গি গোষ্ঠী। আর তাই তারা সরাসরি হুমকি দিয়েই জানিয়েছে, যত দিন না কেনিয়া তার প্রতিবেশী দেশ থেকে সেনা সরাচ্ছে, এই ধরনের হামলা হতেই থাকবে।

আল শাবাবের এই নতুন হুমকি পেয়ে অবশ্য নড়েচড়ে বসেছে কেনিয়ার পুলিশ। দেশের সর্বত্র জারি হয়েছে সতর্কবার্তা। গারিসার হামলায় জড়িত সন্দেহে আজ গ্রেফতার করা হয়েছে পাঁচ জনকে। ধৃতদের পরিচয় অবশ্য সংবাদমাধ্যমকে জানায়নি পুলিশ। ‘‘জঙ্গিরা যে ভাবে হুমকি দিচ্ছে, তাতে আমরা উদ্বিগ্ন। সর্বত্র পুলিশ পাহারা বসানো হয়েছে,’’ বললেন নাইরোবির এক শপিং মলের মালিক। বছর খানেক আগে নাইরোবিরই ওয়েস্টগেট শপিং মলে হামলা চালিয়ে প্রায় ৭০ জনকে মেরে ফেলেছিল আল শাবাব। তার পর তাদের এই হুমকিকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন কেনিয়ার সাধারণ মানুষ। গারিসার এক বাসিন্দা তো সংবাদমাধ্যমকে বলেই ফেললেন, ‘‘আমার মনে হয় না জঙ্গিরা এখানেই থামবে। আরও বড় হামলার পরিকল্পনা করছে ওরা।’’

আজ কেনিয়া সেনা জানিয়েছে, অভিযান শেষের প্রায় আটচল্লিশ ঘণ্টা পরে ওই ছাত্রাবাস থেকে এক ছাত্রীকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাণ বাঁচাতে ওই ছাত্রাবাসের একটি ঘরের আলমারিতে লুকিয়েছিলেন তিনি। ক্যারোটিচ নামে ওই ছাত্রী জানিয়েছেন, টানা দু’দিন কিছু না খেয়েছিলেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘‘তেষ্টা পাওয়ায় শুধু আলমারির ভিতরে রাখা লোশনের শিশি থেকে লোশনই খেয়ে ফেলেছিলাম। ওরা যে ভাবে সবাইকে টেনেটেনে বার করে মারছিল, আমি ভাবতে পারিনি বেঁচে ফিরব।’’ সেনা জানিয়েছে, ওই ছাত্রীটির শরীরে জলের মাত্রা মারাত্মক ভাবে কমে গিয়েছে। তিনি ভীষণ দুর্বল। তবে তাঁর শরীরে কোনও বুলেটের আঘাত নেই।

গারিসা কাণ্ড নিয়ে মুখ খুলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও। গত কাল কেনিয়ার প্রেসিডেন্টকে ফোন করেছিলেন ওবামা। আগামী জুলাইয়ে কেনিয়া আসার কথা মার্কিন প্রেসিডেন্টের। তিনি বলেছেন, ‘‘কেনিয়ার মানুষের ভবিষ্যৎ হিংসা আর সন্ত্রাসের ভিত্তিতে দাঁড়িয়ে থাকবে না, এটাই আশা করি। গারিসা ইউনিভার্সিটি কলেজে যে সব ছোট ছোট ছেলে-মেয়ে পড়াশোনা করত, তাদের মতোই কেউ কেউ গড়ে তুলবে কেনিয়ার ভবিষ্যৎ।’

আরও পড়ুন

Advertisement