×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১২ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

‘বাংলাদেশের সমৃদ্ধিতে পাকিস্তান আক্ষেপ করে’

অনমিত্র চট্টোপাধ্যায়
০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৫:৫০
n বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সঙ্গে বিদেশসচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। শুক্রবার কলকাতায়।

n বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সঙ্গে বিদেশসচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা। শুক্রবার কলকাতায়।
নিজস্ব চিত্র।

পঞ্চাশ বছর আগে ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডের জনজোয়ারকে উদ্দেশ করে সদ্য-স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপ্রধান শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন— ‘রিক্ত আমি, নিঃস্ব আমি/ দেবার কিছু নাই।/ আছে শুধু ভালবাসা/ দিলাম তোমাদের তাই...’।

এখন পরিস্থিতি কী? শেখ হাসিনা মন্ত্রিসভার তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ শুক্রবার আনন্দবাজারকে বলেন, “বঙ্গবন্ধু-কন্যার নেতৃত্বে সেই বাংলাদেশে এখন উন্নয়নের জোয়ার। ‘দারিদ্রসীমার নীচের দেশ’ তকমা মুছে বাংলাদেশ আজ ‘মধ্যম আয়ের দেশ’। ডিসেম্বরের হিসেবে মাথাপিছু আয় ২০৫৯ ডলার। কৃষিপ্রধান বাংলাদেশে জনপ্রতি কৃষিজমি সব চেয়ে কম— ১০ ডেসিমেল মাত্র। সঙ্গে বন্যা-খরা-ঘূর্ণিঝড়। তবু খাদ্য-ঘাটতির দেশ থেকে বাংলাদেশ খাদ্য-উদ্বৃত্ত দেশে উন্নীত, যা দেখে বিশ্ব খাদ্য সংস্থাও বিস্মিত!”

শনিবার শেখ মুজিবের সেই বক্তৃতার ৫০ বছর উপলক্ষে অনুষ্ঠান হবে ব্রিগেডেই। থাকবেন বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “বাংলাদেশের উন্নয়ন দেখে পাকিস্তান এখন আক্ষেপ করে। আমাদের বিদেশি মুদ্রার ভান্ডার পাকিস্তানের তিন গুণ। রফতানি আয় দ্বিগুণ। মা ও শিশুর মৃত্যু এবং দারিদ্রের হার কমানোয় বাংলাদেশ উপমহাদেশে ভারতের চেয়েও এগিয়ে।” হাছান মাহমুদের কথায়, প্রধানমন্ত্রী হয়ে ইমরান খান বলেন, ১০ বছরে দেশকে সুইডেন বানাবেন। বিশিষ্ট জনেরা তাঁকে পরামর্শ দেন, আগে বাংলাদেশের সমান হোন, তার পরে সুইডেন।

Advertisement

কিন্তু বিরোধীদের যে অভিযোগ, বাংলাদেশ সরকার বিরোধীদের দমন করে স্বৈরশাসন প্রতিষ্ঠা করেছে। গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে। কী বলেন তথ্যমন্ত্রী তথা শাসক দল আওয়ামি লিগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক? হাছান মাহমুদ বলেন, “সকাল-বিকেল সাংবাদিক বৈঠকে চিৎকার করে সরকারকে তুলোধোনা করছেন বিরোধী নেতারা, আর বলছেন সরকার কণ্ঠরোধ করছে।” মাহমুদের কথায়, “মানুষ বিরোধীদের সঙ্গে নেই। তাই আন্দোলনের ধার ধারে না তারা। তাদের আন্দোলন মানে জ্বালাও-পোড়াও। সম্প্রতি চট্টগ্রামের পুর নির্বাচনেও একটাও আসন জিততে পারেনি বিরোধীরা।” বিরোধীরা ষড়যন্ত্র করে সরকার ফেলায় বিশ্বাসী, এই অভিযোগ করে মাহমুদ বলেন, “আল জাজিরার ‘বানানো সিনেমা’ তার সর্বশেষ উদাহরণ।” ওই চ্যানেলটি কি বন্ধ করছেন? তথ্যমন্ত্রী বলেন, “আদৌ নয়। বাংলাদেশ অবাধ তথ্যপ্রবাহের দেশ। চ্যানেল বন্ধ করায় বিশ্বাসী নয়।”

এই অর্জনে ভারতের ‘বন্ধুত্ব ও সহযোগিতা’-র কথাও উল্লেখ করেন তথ্যমন্ত্রী। সে দিন শেখ মুজিবের পাশে ছিলেন ইন্দিরা গাঁধী। এখন করোনা-সঙ্কটে ভারত যে ২০ লক্ষ ডোজ় ভ্যাকসিন ঢাকায় পাঠিয়েছে, তার জন্য কৃতজ্ঞতা জানান মাহমুদ। ভারতের বিদেশসচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলা থাকছেন শনিবারের অনুষ্ঠানে। এ দিন নন্দনে বাংলাদেশের ৩২টি চলচ্চিত্র নিয়ে যে উৎসব শুরু হল, শ্রিংলা সেখানেও ছিলেন। অ্যাকাডেমি অব ফাইন আর্টসে শেখ মুজিবের ১০০টি ছবি নিয়ে চিত্র প্রদর্শনীরও সূচনা করেন বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী।

Advertisement