×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৮ মে ২০২১ ই-পেপার

ইমপিচমেন্ট নিয়ে প্রস্তাব পেশ হাউসে

সংবাদ সংস্থা
ওয়াশিংটন ৩১ অক্টোবর ২০১৯ ০২:৪৭
ছবি এএফপি।

ছবি এএফপি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ইমপিচ করার পরবর্তী প্রক্রিয়া এ বার প্রকাশ করলেন ডেমোক্র্যাটরা। কাল এ নিয়ে আট পাতার একটি প্রস্তাব প্রকাশ করা হয়েছে। ইমপিচমেন্ট প্রক্রিয়া নিয়ে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে আগামী বৃহস্পতিবার ভোটাভুটি রয়েছে বলে জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাট সদস্যেরা।

আগামী বছরের নির্বাচনে অন্যতম প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেন ও তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনোস্কিকে ট্রাম্প চাপ দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ। এক হুইসলব্লোয়ারের মাধ্যমে সে তথ্য প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই ট্রাম্পকে ইমপিচ করার দাবি তোলেন ডেমোক্র্যাট নেতা-নেত্রীরা। তাঁদের সাফ কথা, ২০২০ সালের নির্বাচনে জিততে বিদেশি শক্তিকে অনৈতিক ভাবে ব্যবহার করার চেষ্টা করেছেন প্রেসিডেন্ট। দেশ ও দেশবাসীর সঙ্গে যা বিশ্বাসঘাতকতার সমান।

কাল যে প্রস্তাব পাশ হয়েছে, তাতে বলা হয়েছে ইমপিচমেন্ট সংক্রান্ত সব শুনানিই এর পর প্রকাশ্যে আনা হবে। যাতে দেশের মানুষ এই প্রক্রিয়ার খুঁটিনাটি সব বিষয়ে জানতে পারেন। শুনানির মূল দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ইন্টেলিজেন্স কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডাম শিফকে। হাউস কমিটির চেয়ারম্যান জেমস পি ম্যাকগভার্ন সাংবাদিকদের স্পষ্ট বলেছেন, ‘‘ট্রাম্প যে ক্ষমতার অপব্যবহার করেছিলেন এবং দেশের সুরক্ষার সঙ্গে আপস করেছিলেন, তার প্রচুর প্রমাণ রয়েছে।’’ চারটি হাউস কমিটির প্রধানেরা একটি যৌথ বিবৃতিতে এ-ও বলেছেন, হাউসের ইমপিচ তদন্তে যা যা তথ্যপ্রমাণ উঠে এসেছে, খুব শীঘ্রই তা প্রকাশ করা হবে। আগে যে যে প্রেসিডেন্টকে ইমপিচমেন্টের মুখে পড়তে হয়েছিল, তাঁদের ক্ষেত্রেও একটি নির্দিষ্ট সময়ের পরে এই সংক্রান্ত শুনানি আর গোপন ছিল না, পুরোটাই প্রকাশ্যে আনা হয়। এ বারেও সেই পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে বলে দাবি করা হয়েছে।

Advertisement

হোয়াইট হাউস অবশ্য গোটা ইমপিচমেন্ট পদ্ধতিকে আরও এক বার জাল ও অবৈধ আখ্যা দিয়েছে। হাউসের প্রস্তাব নিয়ে মুখ খুলেছেন হোয়াই হাউসের প্রেস সচিব স্টেফানি গ্রিসহ্যাম। তাঁর বক্তব্য, ‘‘স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি যে প্রস্তাবটি পেশ করেছেন, বোঝধাই যাচ্ছে সেটি অবৈধ। কারণ এ নিয়ে হাউস সদস্যের কোনও ভোটাভুটিই হয়নি।’’ বিচারবিভাগীয় কমিটির কাছে দেওয়া শিফের রিপোর্টটিকেও তিনি একপেশে ও পক্ষপাতদুষ্ট বলে দাবি করেছেন। স্টিভ স্ক্যালিস, কেভিন ম্যাককার্থির মতো হাউসের রিপাবলিকান নেতাদের একাংশের আবার বক্তব্য, সামরিক ক্ষেত্রে বিনিয়োগ, মাদকের মূল্যের মতো আসল বিষয়গুলি বাদ দিয়ে আপাতত ট্রাম্পকে ইমপিচ করা নিয়ে ডেমোক্র্যাট নেতাদের এই মাতামাতিই প্রমাণ করে দিচ্ছে সবটাই আসলে সাজানো ও বিকৃত।

যদিও হাউসের বিচারবিভাগীয় কমিটির বক্তব্য, আগের ইমপিচমেন্টগুলি মতো এ বারও একই পদ্ধতি অনুসরণ করা হচ্ছে। পরবর্তী শুনানি চলাকালীন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তাঁর আইনজীবীরা আত্মপক্ষ সমর্থনের কী কী সুবিধে পাবেন, তা-ও স্পষ্ট করা হয়েছে বিচারবিভাগীয় কমিটির বিবৃতিতে।

Advertisement