Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

নারী এখানে নিষিদ্ধ, জাপানি দ্বীপকে ‘হেরিটেজ’ তকমা ইউনেস্কোর

দ্বীপটির নাম ওকিনোশিমা। কিয়শু দ্বীপের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত জাপানের সুপ্রাচীন ধর্মীয় স্থান ওকিনোশিমায় রয়েছে ওকিতসু দেবীর মন্দির। খ্

সংবাদ সংস্থা
১১ জুলাই ২০১৭ ১৩:৫০
Save
Something isn't right! Please refresh.
সমুদ্রে মাঝে ওকিনোশিমা দ্বীপ। ছবি- সংগৃহীত

সমুদ্রে মাঝে ওকিনোশিমা দ্বীপ। ছবি- সংগৃহীত

Popup Close

ছাড়পত্র শুধু পুরুষদেরই। মহিলাদের পা ফেলা নিষেধ এই দ্বীপে। জাপানের এমনই এক দ্বীপকে সম্প্রতি ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট’-এর তকমা দিল ইউনেস্কো।

দ্বীপটির নাম ওকিনোশিমা। কিয়শু দ্বীপের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত জাপানের সুপ্রাচীন ধর্মীয় স্থান ওকিনোশিমায় রয়েছে ওকিতসু দেবীর মন্দির। খ্রিস্টীয় সতেরো শতকে এই মন্দিরটি নির্মাণ করেন শিন্টো পুরোহিতেরা। কথিত আছে, সমুদ্রে পাড়ি দেওয়ার আগে জাপানি নাবিকেরা এই মন্দিরে প্রার্থনা করতে আসতেন। এখান থেকেই যোগাযোগ রাখা হত চিন ও কোরিয়ার সঙ্গেও। পোল্যান্ডে আয়োজিত রাষ্ট্রসংঘের বার্ষিক সম্মেলনে ৭০০ বর্গমিটার আয়তনের এই দ্বীপটিকে হেরিটেজের শিরোপা দেওয়া হল। এই নিয়ে এখনও পর্যন্ত জাপানের ২৯টি জায়গা বিশ্ব ঐতিহ্যের তকমা পেল।

আরও পড়ুন- সত্তর পার করা প্রেমিকাকে বিয়ে করে বসল ষোলো বছরের কিশোর!

Advertisement

সুপ্রাচীন কাল থেকেই এই দ্বীপে প্রবেশের নিয়মকানুন বেশ কড়া বলে জানিয়েছেন এক শিন্টো পুরোহিত। মহিলাদের প্রবেশ এখানে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। প্রবেশাধিকার রয়েছে শুধুমাত্র পুরুষেদেরই। তবে সেটাও সীমিত সময়ের জন্য। দ্বীপে পা রাখার আগে পুরুষদের সম্পূর্ণ বিবস্ত্র হয়ে সমুদ্রে স্নান করে নিজেদের শুদ্ধ করে নিতে হয়। বছরে মাত্র একটি দিন ২৭ মে, মোট ২০০ জন পুরুষকে এই দ্বীপে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়।



ওকিনোশিমা দ্বীপে ওকিতসু দেবীর মন্দির।। ছবি- সংগৃহীত

দ্বীপ থেকে ফেরার সময় কোনও স্মৃতিচিহ্ন নিয়ে যাওয়া নিষিদ্ধ। মন্দিরের এক পুরোহিত জানিয়েছেন, পূর্ব নির্ধারিত সংখ্যার বেশি দর্শনার্থীদের এখানে প্রবেশ করতে দেওয়া হয় না। বছরের বাকি দিনগুলি মন্দিরের দরজা খোলা থাকে শুধু শিন্টো পুরোহিতদের জন্যই। বেশি মানুষের উপস্থিতি এই দ্বীপের শান্তি ও ঐতিহ্যের পক্ষে ক্ষতিকর বলেই মনে করেন তিনি। ইউনেস্কোর এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, মহিলারা যে হেতু গর্ভবতী হন, তাই তাদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে সমুদ্র পাড়ি দিয়ে দ্বীপে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে শিন্টো পুরোহিতেরা। বিশ্ব ঐতিহ্যের তকমা পেলেও ওকিনোশিমা দ্বীপের দরজা মহিলাদের জন্য নিষিদ্ধই থেকে যাবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মন্দির ছাড়াও দ্বীপটিতে হাজারেরও বেশি সোনার আংটি এবং মূল্যবান সম্পদের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। মন্দিরের দায়িত্বে থাকা মুনাকাতা তাশিয়া গোষ্ঠীর এক পুরোহিতের ওয়েবসাইট থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী দেশের উন্নতি ও নাবিকদের সুরক্ষার জন্য মন্দিরের দেবীর কাছে এই রত্নগুলি উৎসর্গ করার চল ছিল।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Tags:
Something isn't right! Please refresh.

Advertisement