Advertisement
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Donald Trump

ট্রাম্পকে হত্যা করতে চাই, নতুন ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির পর মন্তব্য ইরানের শীর্ষ সামরিক নেতার

আমেরিকার বিরোধিতা পাত্তা না দিয়েই দেশের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ক্ষেত্রকে প্রসারিত করেছে ইরান। তারই নবতম সংযোজন ১৬৫০ কিমি পাল্লার একটি ক্ষেপণাস্ত্র।

Looking to kill Donald Trump, says top Iranian commander.

সম্প্রতি ১৬৫০ কিলোমিটার পাল্লার একটি ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে ইরান। ফাইল চিত্র ।

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১০:২৬
Share: Save:

ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করতে চাইছে ইরান! এমনটাই জানালেন ইরানের সামরিক সংস্থা ‘রেভোলি‌উশনারি গার্ডস এরোস্পেস ফোর্স’-এর প্রধান আমিরালি হাজিজাদেহ। আমেরিকার হাতে খতম হওয়া ইরানের শীর্ষ নেতার মৃত্যুর বদলা নিতেই ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যার ছক কষা হচ্ছে বলেই তাঁর দাবি। আমিরালির কথায়, ‘‘আমরা আমেরিকার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে হত্যা করতে চাইছি।’’

সম্প্রতি ১৬৫০ কিলোমিটার পাল্লার একটি ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করেছে ইরান। রাশিয়া-ইউক্রেন সংঘাতে ইউক্রেনের উপর আরও আগ্রাসী হতে রুশ সেনার হাতে ড্রোন তুলে দিয়েছে ইরান। রাশিয়া সেই ড্রোন ইউক্রেনের বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং সে দেশের বহু সরকারি আবাসন ধ্বংস করতে ব্যবহার করেছে। তার পর থেকেই পশ্চিমি দেশগুলির ‘নেকনজর’ পড়েছে ইরানের উপর। তাই সব রকম পরিস্থিতির জন্য নিজেদের আগেভাগে প্রস্তুত রাখতেই এই নতুন ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করা হয়েছে বলে ইরানের সামরিক বাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে। সেই প্রসঙ্গে ইরানের একটি সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় আমিরালি বলেন, ‘‘১৬৫০ কিলোমিটার পাল্লার একটি নতুন ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ইরানের অস্ত্রাগারে জায়গা পেয়েছে।’’

সেই সাক্ষাৎকারেই উঠে আসে ট্রাম্প প্রসঙ্গ। আমিরালি জানান, ২০২০ সালে বাগদাদে আমেরিকার ড্রোন হামলায় ইরানের সামরিক কমান্ডার কাসেম সোলেমানি নিহত হন। এর বদলা নিতে কয়েক দিন পর ইরাকে থাকা আমেরিকা সেনার উপর ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের হামলা চালিয়েছিল ইরান। মারা যায় আমেরিকার একাধিক সেনা। তবে সেই সেনাদের হত্যা করার কোনও ইচ্ছা ইরানের ছিল না বলেই আমিরালি জানান। সোলেমানি হত্যার আসল দায় ট্রাম্পের ছিল বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘ঈশ্বরের ইচ্ছায় আমরা ট্রাম্পকে হত্যা করতে চাই। হত্যা করতে চাই আমেরিকার প্রাক্তন বিদেশ সচিব মাইক পম্পিওকেও। যে সামরিক কমান্ডাররা সোলেমানিকে হত্যার আদেশ জারি করেছিলেন, তাঁদেরও হত্যা করা উচিত।’’

এর আগেও সোলেমানির মৃত্যুর জন্য আমেরিকার উপর প্রতিশোধ নিতে অঙ্গীকারবদ্ধ হওয়ার কথা জানিয়েছেন ইরানের শীর্ষ নেতারা।

আমেরিকার বিরোধিতা এবং ইউরোপীয় দেশগুলির উদ্বেগকে পাত্তা না দিয়েই দেশের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের ক্ষেত্রকে প্রসারিত করেছে ইরান। যদিও সে দেশের সেনাকর্তাদের তরফে দাবি করা হয়েছে, সম্পূর্ণরূপে প্রতিরক্ষার স্বার্থে এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলি তৈরি করা হয়েছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE