×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৭ মে ২০২১ ই-পেপার

বক্তৃতা নয়, পেলোসি-ট্রাম্প দ্বৈরথই ভাইরাল

সংবাদ সংস্থা  
ওয়াশিংটন ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৩:০৫
প্রেসিডেন্টের বক্তৃতার কপি ছিঁড়ে ফেলছেন ন্যান্সি পোলেসি। এএফপি।

প্রেসিডেন্টের বক্তৃতার কপি ছিঁড়ে ফেলছেন ন্যান্সি পোলেসি। এএফপি।

স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন বক্তৃতা দিতে এসেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ডেমোক্র্যাট নিয়ন্ত্রিত হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস-এ। যেখানে গত ডিসেম্বরেই ইমপিচ করা হয়েছে তাঁকে। প্রেসিডেন্ট এসে নিজের বক্তৃতার কপি তুলে দিলেন পিছনে দাঁড়ানো ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এবং হাউসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির হাতে। সঙ্গে সঙ্গে করমর্দনের জন্য হাত বাড়িয়ে দিলেন পেলোসি। তত ক্ষণে সামনে ঘুরে গিয়েছেন ট্রাম্প। ন্যান্সি অপ্রস্তুত হয়ে হাত গুটিয়ে নিলেন। ট্রাম্প চেয়েও দেখলেন না!

মঙ্গলবার রাতে স্টেট অব দ্য ইউনিয়ন বক্তৃতায় প্রেসিডেন্ট কী বললেন, তার চেয়েও তাই ভাইরাল হয়ে গেল পেলোসি-ট্রাম্প দ্বৈরথের গল্পটাই। করমর্দন ফিরিয়ে দেওয়ার ‘পাল্টা জবাবটা’ ডেমোক্র্যাট নেত্রী গুছিয়ে দিলেন বক্তৃতার একেবারে শেষে। ট্রাম্পের যখন বলা শেষ হয়েছে, টিভি পর্দায় দেখা গেল, পিছনে বসা পেলোসি উঠে দাঁড়িয়ে ট্রাম্পের বক্তৃতার কপি ছিঁড়ে ফেললেন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যাচ্ছে, কপি ছিঁড়ে ফেলার কোনও পরিকল্পনা আগে থেকে ছিল না পেলোসির। কিন্তু ট্রাম্পের বক্তৃতায় বিস্তর চটে গিয়েছিলেন তিনি। পরে সাংবাদিকদের কাছেও বলেছেন, ‘‘জঘন্য বক্তৃতা।’’

প্রেসিডেন্ট উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে স্পিকারের সঙ্গে হাত মেলাননি কি না, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ট্রাম্পের এক উপদেষ্টা জানিয়েছেন, পেলোসির করমর্দন ফিরিয়ে প্রেসিডেন্ট আখেরে নিজেরই ক্ষতি করলেন। ওই উপদেষ্টার কথায়, ‘‘দেশ এমনিতেই দ্বিধাবিভক্ত। তবে আমার মনে হয় হাত না মিলিয়ে ভুল করলেন প্রেসিডেন্ট।’’

Advertisement

বক্তৃতা শেষে পেলোসি আবার সেই মুহূর্তের ছবি টুইটারে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘‘দেশের কাজের জন্য ডেমোক্র্যাটরা সব সময়েই বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেবে। যেখানে যেখানে একসঙ্গে কাজ করার পরিসর আছে, আমরা অবশ্যই করব। কিন্তু যেখানে পারব না, সেখানে জমি ছাড়ব না।’’

প্রেসিডেন্ট অবশ্য পেলোসির কথায় বিন্দুমাত্র বিচলিত নন। সেনেটে আজই ইমপিচমেন্ট-শুনানি শেষে সব দিক থেকে ছাড় পেয়ে যাওয়ার কথা তাঁর। ইমপিচমেন্ট-প্রসঙ্গ এড়িয়েই ৮০ মিনিট কথা বলে যান তিনি। কখনও লড়াকু, কখনও আবেগপ্রবণ। ‘‘গ্রেট আমেরিকান কামব্যাক’’ বলে আগামী চার বছরের জন্য ক্ষেত্র প্রস্তুত করে রাখতে চেয়েছেন তিনি। ট্রাম্প বলতে শুরু করার আগেই রিপাবলিকান সেনেটররা ‘আরও চার বছর’ বলে ভরসা দেন তাঁকে।

অনথিভুক্ত শরণার্থীদের স্বাস্থ্য পরিষেবা দিতে ডেমোক্র্যাটরা মার্কিন করদাতাদের বাধ্য করবেন বলে বক্তৃতায় দাবি করেন ট্রাম্প। পিছনে বসা পেলোসিকে দু’বার ঠোঁট নেড়ে বলতে শোনা যায়, ‘এটা সত্যি নয়।’ নাম না করে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সমালোচনা করে ট্রাম্প বলেছেন, ‘‘যে গতিতে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, কিছু দিন আগে তা অকল্পনীয় ছিল।’’ ডেমোক্র্যাটদের বিঁধে ট্রাম্প বলেছেন, ‘‘মার্কিন স্বাস্থ্য পরিষেবা সমাজতন্ত্রীদের হাতে নষ্ট হতে দেব না।’’ অস্ত্রের অধিকারের পক্ষেও কথা বলেছেন প্রেসিডেন্ট। চেম্বার থেকে আপত্তি জানান ফ্রেড গুটেনবার্গ, (গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে ফ্লরিডার পার্কল্যান্ডের স্কুলে বন্দুকবাজের হামলায় নিহত জেমি গুটেনবার্গের বাবা)। ফ্রেড এসেছিলেন পেলোসির আমন্ত্রণে। আপত্তি জানানোয় চেম্বার থেকে বার করে দেওয়া হয় তাঁকে।

Advertisement