Advertisement
২৮ জানুয়ারি ২০২৩

ভারতীয়, তাই দত্তক মিলবে না শ্বেতাঙ্গ শিশুর

জন্মগত ভাবে ওই দম্পতি ব্রিটিশ হলেও বংশগত ভাবে তাঁরা ভারতীয়। ফলে ওই সংস্থার সাদা চামড়ার শিশুদের কাউকেই দত্তক নিতে পারবেন না ওই দম্পতি।

সংবাদ সংস্থা
লন্ডন শেষ আপডেট: ২৮ জুন ২০১৭ ০৩:২৪
Share: Save:

শিশু দত্তক নিতে চান বলে আবেদন জানিয়েছিলেন এক ব্রিটিশ-শিখ দম্পতি। কিন্তু দত্তক সংস্থার তরফে সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, সেখান থেকে কোনও শিশুকেই দত্তক নিতে পারবেন না তাঁরা।

Advertisement

কারণ?

জন্মগত ভাবে ওই দম্পতি ব্রিটিশ হলেও বংশগত ভাবে তাঁরা ভারতীয়। ফলে ওই সংস্থার সাদা চামড়ার শিশুদের কাউকেই দত্তক নিতে পারবেন না ওই দম্পতি।

শুধু তা-ই নয়, ওই দম্পতিকে ভারত থেকে শিশু দত্তক নেওয়ার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে ওই সংস্থাটির বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যেই আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন ওই দম্পতি। মঙ্গলবার লন্ডনের একটি সংবাদমাধ্যমে এই ঘটনা প্রকাশ হওয়ার পরেই বিতর্কের মুখে পড়েছে ওই দত্তক সংস্থাটি।

Advertisement

বিষয়টি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই লড়ছেন বার্কশায়রের বাসিন্দা সন্দীপ ও রিনা ম্যান্ডার। সূত্রের খবর, শারীরিক অক্ষমতার কারণে সন্তানের জন্ম দিতে পারেননি
রিনা। বহু চিকিৎসা, ১৬ বার আইভিএফ পদ্ধতি— সব বিফলে যাওয়ায় অবশেষে শিশু দত্তক নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। সন্দীপ জানান, জাতিগত বৈষম্য না মেনে যে কোনও শিশুকে দত্তক নিতে তাঁরা ইচ্ছুক বলে আবেদন দিয়েছিলেন তাঁরা। কিন্তু সংস্থাটি সেই শর্তে মত দেয়নি বলে অভিযোগ। তাঁদের জানিয়ে দেওয়া হয়, ওই দত্তক সংস্থায় খালি শ্বেতাঙ্গ শিশুই রয়েছে। ফলে দত্তকের বেলায় শ্বেতাঙ্গ ব্রিটিশ এবং ইউরোপীয় দম্পতিদেরই অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

দম্পতি জানান, ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা মেইডেনহেডের এমপি থাকাকালীন টেরেসা মে এ বিষয়ে তাঁদের অনেক সাহায্য করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরেও শিশু বিষয়ক মন্ত্রীর সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলেন তিনি। ওই মন্ত্রীই তাঁদের আইনি পদক্ষেপ করতে পরামর্শ দেন।

শিশু দত্তক কেন জাতি বৈষম্যের শিকার হবে, এই প্রশ্ন তুলে দম্পতির পাশে দাঁড়িয়েছে ব্রিটেনের ইকুয়ালিটি অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস কমিশন (ইএইচআরসি)। তার প্রধান ডেভিড আইস্যাক বলেন, ‘‘শিশুগুলি
রিনা ও সন্দীপের মতো ভাল অভিভাবকেরই অপেক্ষায় রয়েছে। বংশগত বৈষম্যের কারণে দত্তক না দেওয়াটা সম্পূর্ণ ভুল।’’

বিষয়টি নিয়ে আপাতত উইন্ডসর বা মেইডেনহেড প্রশাসন কোনও মন্তব্য করেনি।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.