• বিজ্ঞাপন প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

স্মার্ট ইন্ডিয়া হ্যাকাথন ২০২০-এর আয়োজক টেকনো ইন্ডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়

Main

দেশের অন্যতম সেরা বিশ্ববিদ্যালয় টেকনো ইন্ডিয়ার মুকুটে এবার যুক্ত হল নয়া পালক। পূর্ব ভারতে টেকনোই একমাত্র নোডাল সেন্টার যেখানে অনুষ্ঠিত হল বৃহত্তম ভার্চুয়াল অনলাইন স্মার্ট ইন্ডিয়া হ্যাকাথন ২০২০। এই বছর হ্যাকাথনে অংশগ্রহণ করেছিল ২৫টি দলের ১৫০ জন সদস্য। যাদেরকে সঙ্গে নিয়েই টেকনো তরুণ প্রজন্মের কাছে সব থেকে বৃহৎ ও অনন্য অনলাইন ইনোভেশন মডেল তৈরি করার চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিল।

গত ২ বছর ধরে স্মার্ট ইন্ডিয়া হ্যাকাথন অনুষ্ঠিত করার দায়িত্বে রয়েছে টেকনো। এবং এই উদ্যোগ যে সম্পূর্ণরূপে সফল তা ইতিমধ্যেই সকলের কাছেই পরিষ্কার। স্মার্ট ইন্ডিয়া হ্যাকাথনকে বরাবরই সমর্থন করে এসেছে টেকনো ইন্ডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়। এই উদ্যোগের মাধ্যমে দেশ জুড়ে শিক্ষার্থীদের কাছে একটি বড় প্ল্যাটফর্ম খুলে দেওয়া হয়, যেখানে তারা তাদের বুদ্ধিদীপ্ত মগজের ব্যবহার করে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে। প্রতিটি চ্যালেঞ্জ অত্যন্ত সুন্দরভাবে বাস্তবায়িত করা হয়।

প্রতি বছরের মতো এই বছরেও স্মার্ট ইন্ডিয়া হ্যাকাথন টিম এবং বিশেষজ্ঞেরা প্রতিটি ছাত্রছাত্রীর কর্মক্ষমতা ভাল ভাবে পর্যবেক্ষণ করেন এবং তারপরেই তাঁরা সেই ইনোভেশনটিতে ফান্ডিং করা হবে কী না সেই সিদ্ধান্ত নেন। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের কাজের উপরে ভিত্তি করেই তাদেরকে ইন্টার্নশিপ বা কাজের সুযোগ দেওয়া হয়। এই বছর প্রতিটি সমস্যা সমাধানে বিজেতার পুরস্কার মূল্য ছিল ১ লক্ষ টাকা।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সি এম ডি হিডকো এবং পশ্চিমবঙ্গ সরকারের চিফ সেক্রেটারি দেবাশিস সেন। তিনি ভার্চুয়াল স্মার্ট ইন্ডিয়া হ্যাকাথন ২০২০-এর প্ল্যাটফর্মে ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্যে একটি বিশেষ বক্তব্য পেশ করেন। তাঁর কথায়, এই সময়ের চাহিদা ঠিক কী, তা জানে টেকনো ইন্ডিয়া। বাংলার আর্থ-সামাজিক প্রেক্ষাপটে এই মুহূর্তে যে শূণ্যতা রয়েছে, আগামীদিনে সেই শূণ্যতা পূরণে অন্যতম কারিগর হতে পারে টেকনো ইন্ডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়।

মৌলানা আবুল কালাম আজাদ ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি বিভাগের উপাচার্য ডঃ সৈকত মৈত্র এই ফোরামে একজন সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবং তিনি এই বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রযুক্তি শিক্ষার এমন সাফল্যের জন্য অভিবাদন জানান। বর্তমানে টেকনোর উদ্ভাবনী ভাবনা ও বিভিন্ন অ্যাডভান্সড কোর্সের জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম সারিতে জায়গা করে নিয়েছে।

টেকনো যাঁর হাতে তৈরি তথা চ্যান্সেলর প্রফেসর গৌতম রায় চৌধুরী এবং কো-চ্যান্সেলর প্রফেসর মানসী রায় চৌধুরী শুধুমাত্র তাদের সংস্থার বৃদ্ধির কথাই ভাবেন নি, বরং সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ, সর্বোপরি দেশের কথা ভেবেই তৈরি করেছেন এই বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রফেসর গৌতম রায় চৌধুরীর প্রত্যেকটি স্বপ্নই ছিল অন্যদের থেকে আলাদা। প্রসঙ্গত, তাঁর প্রতিটি কাজকেই “অসাধারণ” বলা চলে। তনি জানান, টেকনোলজি সংক্রান্ত যাবতীয় চ্যালেঞ্জের জন্য এই বিশ্ববিদ্যালয় যে সর্বত্রই তৈরি সেই বিষয় কোনও সন্দেহ নেই। হ্যাকাথনের শেষ দিনে শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করতে একটি লম্বা বক্তৃতা দেন তিনি। যেখানে তিনি বলেছিলেন, “প্রত্যেক অন্তঃপ্রনর আসলে একজন জাদুকর। তাদের জাদু দন্ড প্রযুক্তির নতুন উদ্ভাবনের সৃষ্টি করে।”

টেকনো ইন্ডিয়া ইউনিভার্সিটির গ্লোবাল অপারেশনের ডিরেক্টর মেঘদূত রায়চৌধুরির কথায় টেকনো ইন্ডিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ভবিষ্যতে বিভিন্ন টেকনোলজিকাল চ্যালেঞ্জের জন্য প্রস্তুত। প্রতিটি সমস্যার সৃজনশীল সমাধানই তাদের মূল লক্ষ্য।

 

কো-চ্যান্সেলর প্রফেসর মানসী রায়চৌধুরির মতে তরুণ প্রজন্ম তাদের প্রতিভার মাধ্যমে যে কোনও রকম নতুন সৃষ্টির মাধ্যমেই বদল নিয়ে আসতে পারে। আর এই বদলের ভাবনাই ভবিষ্যত প্রযুক্তির পথকে প্রশ্বস্ত করবে। তিনি আরও বলেছেন যে, প্রত্যেকের মধ্যে কিছু না কিছু ক্ষমতা রয়েছে। যার সঠিক বুনন হয়তো একদিন বিশ্বকেই বদলে দেবে। পাশপাশি তরুণ প্রজন্মকে আগামীর শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন তিনি।

হ্যাকাথন ২০২০ এর বিজেতারা —

Problem statement No: DS170

Problem Statement Provider : Dr. B R Ambedkar Institute of Technology
Problem Description:  A point based Incentivized Tech Bin will have the facility to generate gift token for the bin users based on the frequency of the user using the bin. Design a system where the user is rewarded with a printed token key each time garbage of more than 1 kg is put into the bin indicating the amount of garbage. Design a gamified portal to provide rewards motivating users to throw more and more garbage.

Winner Team : TechStack from MAHARAJA AGRASEN INSTITUTE OF TECHNOLOGY, DELHI

Participant Details:

Team Leader: Nimisha Mittal

Other members: Divij Gupta

Nitin Kaushal

Dhruv Kapoor

Priyanjali Pratap Singh

Rahul

 

Problem statement No :      DS90

Problem Statement Provider : Dr. B R Ambedkar Institute of Technology
Problem Description:  Andaman Nicobar Islands is a place of historical as well as tourist importance. Tourism being the only prime industry in these Islands has lot of potential and opportunity and technology can play a major role in attracting tourists to a large extent. Immersive real-life experience through technology like Virtual Reality of the scenic extravaganza and under-water wonders of vivid flora and fauna which are displayed in the museums, would certainly give a new dimension to the tourists in realizing the beauty of these Islands. No such VR App is being used as on date for the tourist visiting Islands.

Winner Team: Agastya from VISHWAKARMA INSTITUTE OF INFORMATION TECHNOLOGY, PUNE

Participant Details:

Team Leader: Palak Chandak

Other members: Shreyas Songirkar

Prathamesh Mundada

Prajakta Zambare

Arya Deshmukh

Mrunal Vaidhya

Problem statement No: SB109

Problem Statement Provider : Ministry of Agriculture Cooperation and Farmer Welfare
Problem Description:  There is a requirement for developing IT solutions for precision based irrigation, fertigation, crop growth, crop maturity of major commodities in Horticulture. Design a system based on past data to provide guidelines to improve above mentioned parameters for multiple crops.

Joint Winners : GoAgro  from SONA COLLEGE OF TECHNOLOGY, SALEM, TAMIL NADU

& AgroTech from LAKSHMI NARAIN COLLEGE OF TECHNOLOGY, BHOPAL

Participant Details: from Go Agro

Team Leader: Manimoliselvan

Other members: Dinesh Kumar

Manikandan

Lokeshwar

Kungumaswetha S

S Suvetha

Participant Details: from AgroTech

Team Leader: Harshwardhan Dhote

Other members: Akhil kinkar

Aditi Gudadhe

Akshay Dhote

Yuvraj Jain

Ritik Saini

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন