• বিজ্ঞাপন প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ঘরের ভিতরের দূষণকে বলুন বাই বাই

Image

শারদোৎসব মিটে গিয়েছে। পেরিয়ে গিয়েছে দীপাবলিও। বাকি শুধু ক্রিসমাস আর বর্ষবরণ। শীত যদিও জাঁকিয়ে বসেনি এখনও। তবে ঠাণ্ডা ভাব সর্বত্রই। তবে সেই সঙ্গে মাথাচাড়া দিচ্ছে আরও একটি সমস্যা। দীপাবলিতে শব্দবাজির হাত ধরে যার সূত্রপাত, দূষণ। বড় শহরগুলিতে ধোঁয়াশার মাত্রা আচমকাই বেড়ে  গিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে শ্বাস নেওয়াও দুষ্কর হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, প্রতি ১০ জনের মধ্যে ৯ জনই দূষিত বাতাসে শ্বাস নিচ্ছেন। যা  প্রতি বছর সারা বিশ্বে ৭০ লক্ষ মানুষের মৃত্যুর জন্য দায়ী।

প্রযুক্তিগত ভাবে ব্যাপক উন্নতি করেছি আমরা। কাটিয়ে উঠেছি মান্ধাতা আমলের যাবতীয় অভ্যাস। কিন্তু দূষণ থেকে মুক্তি পেতে হিমশিম খেতে হচ্ছে আমাদের। এই মুহূর্তে যে শহরেই থাকুন না কেন আপনি, দূষণ আপনাকে গ্রাস করবেই। এমনকি আপনার ঘরও এই দূষণ থেকে সুরক্ষিত নয়। দূষিত বাতাসের বলয় ঘিরে রেখেছে আমাদের। যার মধ্যে ভেসে বেড়াচ্ছে ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র কণা। যা খালি চোখে  দেখা যায় না। সেগুলি আমাদের শরীরে প্রবেশ করছে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে নষ্ট করে দিচ্ছে। প্রতি নিয়ত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আমাদের ফুসফুস এবং হৃদপিন্ড।

বাইরের কথা না হয় বাদ দিলাম। কিন্তু দূষণের হাত থেকে ঘরকে রক্ষা করবেন কীভাবে? যা কিনা বাইরের দূষণের চেয়ে ৫ গুণ বেশি ক্ষতিকারক! প্রথমেই জানতে হবে যে, রান্না, কোনও কিছু পোড়ানো অথবা ঠিক মতো হাওয়া বাতাস না ঢুকতে পারলেও ঘরের ভিতর দূষণের মাত্রা বাড়ে। আসবাবপত্র তৈরিতে যে ফর্মালডিহাইড ব্যবহৃত হয়, তা থেকেও দূষণ ছড়ায়। নতুন আসবাবপত্র আনার পর যা দীর্ঘদিন ঘরের মধ্যে থাকে। তা থেকে শ্বাসকষ্ট, চোখ, গলা এবং নাক জ্বালা হতে পারে।

তাহলে কী করবেন?

বিভিন্ন উপায়ে ঘরের ভিতরের দূষণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। তার জন্য প্রথমেই ভেন্টিলেশনের দিকে নজর দিন। যাতে ঘরের মধ্যে হাওয়া-বাতাস খেলতে পারে। জানলা-দরজা খোলা রাখার চেষ্টা করুন। লাগাতে পারেন ভেন্টিলেশন ফ্যানও। যা ঘরের দূষিত বাতাসকে বাইরে বের করে দেবে।

কিন্তু এতেই কি সমস্যা মিটবে?

আলবাত মিলবে। এমনটা অন্তত দাবি এশিয়ান পেইন্টসের। একটি সহজ উপায় বের করেছে তারা।  পছন্দের রং-এই ঘর  রাঙিয়ে তুলুন। শুধু ব্যবহার করুন এশিয়ান পেইন্টস রয়্যাল অ্যাটমস্। যা ঘর এবং অফিসের ভিতরের বাতাসে দূষণের মাত্রা কমাতে সাহায্য করবে। কারণ তাতে অ্যাক্টিভেটেড কার্বন টেকনোলজি ব্যবহার করা হয়েছে। যা শুধুমাত্র ঘরের ফর্ম্যালডিহাইড, ভিওসি-র মতো ক্ষতিকারক দূষিত পদার্থই শুষে নেয় না, এর ম্যাট ফিনিশ রং আপনার ঘরকে এক অনবদ্য লুকও দেবে। অন্য রং-এর মতো । এর সঙ্গে এটির সুগন্ধ ঘর রং করার পরেও অনেকদিন থাকে।

তা হলে আর অপেক্ষা কেন? এই শীতেই আপনার ঘর রং করুন এশিয়ান পেইন্টস রয়্যাল অ্যাটমস- দিয়ে এবং নিজের ঘরকে করে তুলুন দূষণমুক্ত এবং আরও সুন্দর।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন