অস্ট্রেলিয়ায় ফের ধাক্কা খেল আদানি গোষ্ঠী। কুইন্সল্যান্ডে ভারতীয় সংস্থাটির খনি প্রকল্পে অস্ট্রেলিয়ার সরকারের দেওয়া পরিবেশ ছাড়পত্র ফিরিয়ে নিল সেখানকার আদালত।

২০১৪-র জুলাইয়ে এই কারমাইকেল খনি প্রকল্পে সায় দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার পরিবেশ মন্ত্রক। এর বিরুদ্ধে গত জানুয়ারিতে মামলা করে ম্যাকে কনজার্ভেশন গোষ্ঠী। তাদের দাবি, প্রকল্পটি হলে সেখানকার সরীসৃপের দুই বিরল প্রজাতি আরও বিপন্ন হয়ে পড়বে। একই সঙ্গে ভারসাম্য নষ্ট হবে পৃথিবী বিখ্যাত প্রবাল প্রাচীরেরও। এই যুক্তি খতিয়ে দেখে বুধবার আদালত জানিয়েছে, ছাড়পত্রে বিপন্ন প্রজাতির সংরক্ষণ ও পরিবেশ রক্ষা নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রক কোনও ব্যবস্থার কথা বলেনি।

তবে এ সব সত্ত্বেও প্রকল্প চালু হওয়া নিয়ে আশাবাদী গৌতম আদানির এই গোষ্ঠী। তাদের দাবি, আইনি সমস্যা হয়েছে ঠিকই। কিন্তু তা আগামী দিনে কাজ শুরুতে বাধা হবে না। প্রকল্পের পক্ষে থাকা সংশ্লিষ্ট মহলের যুক্তি, ভারতের প্রতিটি কোণে বিদ্যুৎ পৌঁছনোর যে-প্রতিজ্ঞা নরেন্দ্র মোদী করেছেন, এই প্রকল্প কয়লা জোগানের ব্যবস্থা করে তা পূরণে সাহায্য করবে। আদালতের রায়ের পরে পরিবেশ মন্ত্রক জানায়, বিষয়টি খুঁটিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

কুইন্সল্যান্ডে গালিলি অববাহিকার এই কারমাইকেল খনি এবং রেল ও বন্দর প্রকল্পে ১,৬০০ কোটি ডলার লগ্নির কথা আদানিদের। কয়লার বেশির ভাগই ভারতে পাঠাবে তারা। অস্ট্রেলীয় প্রশাসনের দাবি, প্রকল্পের যা ক্ষমতা, তাতে আগামী দিনে অস্ট্রেলিয়ার বৃহত্তম ও বিশ্বের প্রথম সারির কয়লা খনির তকমা পাবে সেটি।