• দেবপ্রিয় সেনগুপ্ত
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ঠিকাদার জট কাটার ইঙ্গিত ক্যাল-টেলে 

BSNL
প্রতীকী ছবি

ঠিকাদার নিয়োগের নতুন পদ্ধতিকে ঘিরে কিছুটা হলেও জট কাটার ইঙ্গিত মিলছে ক্যালকাটা টেলিফোন্সে (ক্যাল-টেল)। বিএসএনএল সূত্রের খবর, অধিকাংশ জায়গাতেই নতুন ঠিকাদার নিয়োগ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হয়েছে। কিছু এলাকায় লাইন সারানো শুরু হয়েছে। এ মাসেই অবস্থা অনেকটা স্বাভাবিক হবে।

পরিষেবার মান বাড়াতে দেশ জুড়ে ঠিকাদার নিয়োগের নতুন নিয়ম চালু করেছে বিএসএনএল। কিন্তু সংস্থার অভিযোগ, ক্যাল-টেল এলাকায় পুরনো ঠিকাকর্মীদের আন্দোলনে তা থমকে গিয়েছে। কর্মীদের দাবি, তাঁদের প্রায় এক বছরের বেতন বাকি। নতুন নিয়মে অনেকে কাজও হারাবেন। সংস্থার পাল্টা বক্তব্য, একে ঠিকাকর্মী উদ্বৃত্ত। তার উপরে সংস্থার আর্থিক সঙ্কট এবং ঠিকাদারেরা বিল না-দেওয়াতেই বেতন বাকি পড়েছে।

এই পরিস্থিতে মঙ্গলবার ক্যাল-টেলের সিজিএম বিশ্বজিৎ পাল জানান, পুরো এলাকাকে ৩১টি ক্লাস্টারে ভাগ করে দরপত্র চাওয়া হয়েছিল। ২৬টিতে নতুন ঠিকাদারদের ‘ওয়ার্ক অর্ডার’ দেওয়া হয়েছে। অগস্টে বাকিগুলি চূড়ান্ত হতে পারে। তবে কিছু জায়গার জট কাটেনি।

বিশ্বজিৎবাবুর দাবি, আপাতত পুরনো ও দক্ষ কর্মীদেরই কাজ দিচ্ছেন নতুন ঠিকাদারেরা। শিবপুর, কাশিপুর, মানিকতলা, সালকিয়ার মতো যে সব ক্লাস্টারে নতুন ঠিকাদারেরা কাজ শুরু করেছেন, সেখানে পুরনোদের বকেয়া বিল মেটানো হচ্ছে। বাকিগুলিতেও কাজ শুরু হলে ও বিল পেলে কিস্তিতে টাকা দেওয়া হবে। তিনি জানান, জট কাটাতে সক্রিয় ভূমিকা নিয়েছে কর্মী সংগঠনগুলিও। সিজিএমের আশা, পরিষেবার উন্নতি হলে গ্রাহক সংখ্যা বাড়বে। তখন আরও কর্মী লাগবে। এখন যাঁরা নিযুক্ত হবেন না, তাঁদের পরিষেবা বেচতে ‘ডিরেক্ট সেলিং এজেন্ট’ হওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হবে। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন