Advertisement
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
Cochin Port

HDPL: নতুন চেহারায় এইচডিপিইএল

পুনরুজ্জীবনের একাধিক প্রস্তাব ব্যর্থ হওয়ার পরে বাণিজ্যিক পোত এবং রণতরী নির্মাতা কোচিন শিপইয়ার্ড লগ্নিতে রাজি হয়েছে।

কোচিন শিপইয়ার্ডের হাত নতুন ভাবে প্রাণ ফিরে পাচ্ছে এইচডিপিইএল

কোচিন শিপইয়ার্ডের হাত নতুন ভাবে প্রাণ ফিরে পাচ্ছে এইচডিপিইএল ছবি সংগৃহীত।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ১৫ অগস্ট ২০২২ ০৬:২৮
Share: Save:

রাষ্ট্রায়ত্ত জাহাজ নির্মাণ সংস্থা কোচিন শিপইয়ার্ডের হাত ধরে প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাজ্যের হুগলি ডক অ্যান্ড পোর্ট ইঞ্জিনিয়ার্স (এইচডিপিইএল)। রুগ্‌ণ হয়ে দু’দশক আগেই ঝাঁপ গুটিয়েছিল ঐতিহ্যবাহী এই জাহাজ নির্মাতা। কাল তার নতুন রূপ হুগলি কোচিন শিপইয়ার্ড-এর উদ্বোধন করবেন জাহাজমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল।

হুগলি নদীর পূর্ব তীরে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের আওতায় নিত্যনতুন জাহাজ এবং জলযান তৈরির মাধ্যমে গার্ডেন রিচ শিপবিল্ডার্সের খ্যাতি যখন ঊর্ধ্বমুখী, তখন পশ্চিমের নাজিরগঞ্জে রুগ্‌ণ হচ্ছিল এইচডিপিইএল। ২০০ বছরের পুরনো সংস্থাটি ছিল অ্যান্ড্রু ইউলের অধীনে। পরে জাতীয়করণ হলেও হাল ফেরেনি কলকাতা বন্দরের আর্থিক অবস্থার ওঠাপড়া এবং শিল্পের সার্বিক মন্দায়। লোকসান হাজার কোটি টাকা ছাড়ায়। আসে জাহাজ মন্ত্রকের হাতে। পুনরুজ্জীবনের একাধিক প্রস্তাব ব্যর্থ হওয়ার পরে বাণিজ্যিক পোত এবং রণতরী নির্মাতা কোচিন শিপইয়ার্ড লগ্নিতে রাজি হয়েছে। প্রায় ১৭৫ কোটি টাকা ঢেলে ছ’টি ক্রেন এবং শেড-সহ পরিকাঠামো গড়ে তুলেছে। সংস্থার চেয়ারম্যান মধু এস নায়ার বলেন, ‘‘কোভিড এবং ঘূর্ণিঝড়ের ধাক্কা সামলে যাবতীয় পরিকাঠামো নতুন করে খুব দ্রুত তৈরি করা হয়েছে।’’

হুগলি কোচিন শিপইয়ার্ডে ৮০-১২০ মিটার লম্বা ছোট জাহাজ, রোরো, বার্থ, ভেসেল, ব্যাটারি চালিত লঞ্চ-সহ সব জলযানই তৈরি হবে দেশ-বিদেশের চাহিদা মেটাতে। নায়ার জানান, এর হাত ধরে রাজ্যে নতুন কর্মসংস্থান হবে। বিকাশ ঘটবে অনুসারী শিল্পের।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.