আমেরিকা ও চিনের মধ্যে শুল্ক-যুদ্ধের সমাধানে প্রথম পর্যায়ের চুক্তি হওয়ার কথা নভেম্বরেই। চিনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে যে, পরস্পরের পণ্যের উপর থেকে পর্যায়ক্রমে বর্ধিত শুল্ক তুলে নেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে দু’পক্ষই। কিন্তু এ বার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শোনালেন সম্পূর্ণ অন্য কথা। বললেন, ‘‘ওরা (চিন) শুল্ক প্রত্যাহার চাইতেই পারে। কিন্তু আমি এমন কোনও আশ্বাস দিইনি।’’ ট্রাম্পের এই বক্তব্যের ফলে চুক্তির আগে নতুন সমস্যা তৈরি হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। 

গত এক বছরের বেশি সময় ধরে পরস্পরের পণ্যের উপরে চিন ও আমেরিকা ক্রমাগত শুল্ক চাপিয়েছে। ১৫ ডিসেম্বর থেকে ১৬,০০০ কোটি ডলার চিনা পণ্যের উপর নতুন করে মার্কিন শুল্ক কার্যকর হওয়ার কথা। সন্ধির রাস্তা খুঁজতে অতীতে দু’পক্ষের মধ্যে বহু বার আলোচনা হলেও সমাধানসূত্র মেলেনি। এই অবস্থায় শেষ পর্যায়ের আলোচনার পরে আমেরিকা ও চিন প্রাথমিক সমঝোতার ইঙ্গিত দেয়। যার দিকে তাকিয়ে রয়েছে সারা বিশ্ব। বৃহত্তম দুই অর্থনীতির মধ্যে চুক্তির সম্ভাবনায় গত মাসে উঠেছে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন শেয়ার বাজার। 

এই অবস্থায় ভারতীয় সময় শুক্রবার রাতে সাংবাদিক বৈঠকে ট্রাম্প ইঙ্গিত দেন, চুক্তির ব্যাপারে তাঁর কোনও তাড়া নেই। উল্টে চিনই চুক্তি করতে উঠেপড়ে লেগেছে। তাঁর কথায়, ‘‘চিন চায় কিছু শুল্ক তোলা হোক। পুরোটা নয়। কারণ ওরা জানে আমি তাতে রাজি হব না।... আমার চেয়েও ওরা চুক্তি করতে অনেক বেশি আগ্রহী।’’ ট্রাম্পের নতুন অবস্থানকে বিশ্ব অর্থনীতি কী ভাবে গ্রহণ করবে তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।