তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা ইনফোসিসের বিরুদ্ধে হিসেবের খাতায় গরমিলের অভিযোগ এনেছে হুইসলব্লোয়ার। দেশের একাধিক সংস্থার পাশাপাশি এই অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে মার্কিন শেয়ার বাজার নিয়ন্ত্রক এসইসি। এই বিষয়েই গত মাসে ইনফোসিসের কাছে অভিযোগের ব্যাখ্যা চায় ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ। তার প্রেক্ষিতেই সংস্থার দাবি, তারা প্রাথমিক ভাবে অভিযোগের কোনও প্রমাণ পায়নি।

পাশাপাশি ইনফোসিস জানিয়েছে, বিষয়টির তদন্ত করতে আইন সংস্থা সার্দুল অমরচাঁদ মঙ্গলদাস অ্যান্ড কোম্পানিকে ইতিমধ্যেই নিয়োগ করেছে তাদের অডিট কমিটি। একই সঙ্গে স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত অভ্যন্তরীণ অডিটর আর্নস্ট অ্যান্ড ইয়ংয়ের সঙ্গে তারা পরামর্শ করাও শুরু করেছিল। উল্লেখ্য, ইনফোসিসের সিইও সলিল পারেখ এবং সিএফও নীলাঞ্জন রায়ের বিরুদ্ধে হিসেবে গরমিলের অভিযোগ নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে অভ্যন্তরীণ তদন্ত। ওই অভিযোগে বলা হয়েছিল, স্বল্প মেয়াদে আয় ও মুনাফা বাড়িয়ে দেখাতে পারেখ ও নীলাঞ্জন অনৈতিক পথে হেঁটেছেন।

হুইসলব্লোয়ারের অভিযোগ সংক্রান্ত তথ্য কেন প্রকাশ করা হল না, সেই প্রশ্ন তুলে তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থাটির কাছে আগেই তার ব্যাখ্যা তলব করেছিল বিএসই এবং শেয়ার বাজার নিয়ন্ত্রক সেবি। ইনফোসিস ইতিমধ্যেই জানিয়েছে, সব সংস্থাকেই তদন্তে সহযোগিতা করবে তারা। তদন্তে যা কিছু বেরিয়ে আসবে তা স্টক এক্সচেঞ্জগুলিকে নিয়মিত জানানোও হবে বলে দাবি সংস্থার।