কৃষকদের দাবি নিয়ে এর আগে সিঙ্গুর থেকে কলকাতা পদযাত্রা দেখেছে রাজ্য। এ বার রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলির বিলগ্নিকরণের চেষ্টার প্রতিবাদে ‘লং মার্চ’ হবে বাংলায়। শ্রমিক সংগঠনগুলির ডাকে চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ থেকে কলকাতার রাজভবন পর্যন্ত ২৮০ কিলোমিটার ওই পদযাত্রায় যোগ দেবে বামেদের ছাত্র, যুব, কৃষক ও মহিলা সংগঠনও। নভেম্বরের ওই ‘লং মার্চে’র আগে আগামী তিন মাস রাজ্য জুড়ে কেন্দ্র-বিরোধী একগুচ্ছ আন্দোলন কর্মসূচি নিয়ে একত্রে পথে নামছে সিটু, এআইটিইউসি, ইউটিইউসি-সহ বিভিন্ন বাম শ্রমিক সংগঠন এবং কংগ্রেসের প্রভাবিত আইএনটিইউসি।

সিটু এবং আইএনটিইউসি নেতৃত্বের অভিযোগ, বাংলায় ইতিমধ্যেই ৪০টি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বন্ধ। এর পরে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার বেঙ্গল কেমিক্যালস, ব্রিজ অ্যান্ড রুফ-এর মতো সংস্থার শেয়ার বিক্রি করতে চাইছে, রেলের ছাপাখানা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিমা, অর্ডিন্যান্স, বিএসএনএলের মতো বহু ক্ষেত্রই দ্রুত বেসরকারিকরণের দিকে এগোচ্ছে, কর্মী ছাঁটাই হচ্ছে। সিটুর রাজ্য সম্পাদক অনাদি সাহু সোমবার বলেন, ‘‘নরেন্দ্র মোদী সরকার গত পাঁচ বছরে বাংলায় নতুন কোনও শিল্প আনতে পারেনি। যেগুলো আছে, সেগুলোও তারা বন্ধ করে দিচ্ছে। এই বিলগ্নিকরণ আমরা হতে দেব না কোনও ভাবেই। শ্রমিকেরা রাস্তায় বসে আটকাবেন।’’

বিলগ্নিকরণের প্রয়াসের প্রতিবাদে চলতি সপ্তাহেই ১ ও ২ অগস্ট নানা স্টেশনে বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছে শ্রমিক সংগঠনগুলি। কলকাতায় রাজ্য স্তরের কনভেনশন হবে ৩ সেপ্টেম্বর। রাষ্ট্রায়ত্ত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের নিয়ে ২০ সেপ্টেম্বর রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়ে সমাবেশ করে রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রীর কাছে দাবি পেশ করা হবে। আর এ সবের পরে ২৮ নভেম্বর চিত্তরঞ্জন লোকোমেটিভের দরজা থেকে শুরু হয়ে ১৩ দিন পথ হেঁটে ১০ ডিসেম্বর কলকাতায় পৌঁছবে পদযাত্রা।