চর্ম শিল্পের কারণে ছড়িয়েছে দূষণ। অথচ তা রোখার পরিকাঠামো নেই। এই সমস্যায় নাস্তানাবুদ বানতলা চর্মনগরীর পাশে ঠাঁই পাওয়া তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থাগুলি। এ বার তাদের জন্য রাজ্যের শিল্প তথা অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রের বার্তা, চাইলে বানতলার ঠিকানা পাল্টে সংস্থাগুলি জায়গা পেতে পারে রাজারহাটের সিলিকন ভ্যালিতে। বিষয়টিতে সায় দিয়েছে রাজ্যের মন্ত্রিসভা। শুক্রবার পঞ্চম বিশ্ব বঙ্গ শিল্প সম্মেলনের পরে সাংবাদিক বৈঠকে এ কথা জানান তিনি।

এক সময় রাজারহাট ও সল্টলেক সেক্টর ফাইভে জমি না পাওয়াতেই বানতলায় তৈরি হয়েছিল কলকাতা তথ্যপ্রযুক্তি পার্ক। চর্মনগরীর ঠিক পাশে। ১৮টি তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা জমি নেয় সেখানে। কিন্তু চর্মনগরীর দূষণের জন্য দু’একটি ছাড়া বাকিরা কাজ শুরুই করতে পারেনি। চর্মশিল্পের দাবি, চমর্নগরীতে ছ’টি বর্জ্য পরিশোধন ব্যবস্থা (কমন অ্যাফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্লান্ট বা সিইটিপি) তৈরির কথা থাকলেও, হয়েছিল চারটি। অমিতবাবু অবশ্য জানান, বানতলায় আরও চারটি সিইটিপি তৈরি হচ্ছে।

সরকারি সূত্রের খবর, রাজারহাটের সিলিকন ভ্যালি প্রকল্পে দ্বিতীয় পর্যায়ে এখনও কিছু জমির জন্য দরপত্র জমা নেওয়া হয়নি। ফলে সেখানে সুযোগ পেতে পারে বানতলার সংস্থাগুলি। যেহেতু বানতলায় তারা কিছু লগ্নি করেছে, তাই রাজারহাটে প্রকল্প সরালে শর্ত সাপেক্ষে কিছু আর্থিক সুবিধাও দেওয়া হতে পারে তাদের।