• নিজস্ব সংবাদদাতা 
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

খরচের তথ্য প্রকাশ নিয়ে তোপ বিরোধীদের

NSO's consumer spend report showing first fall in 40 yrs won't be released
জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশনও সমীক্ষা প্রকাশ না-করার সিদ্ধান্ত নিল।

নোটবন্দির পরে চার দশকে প্রথম আমজনতার সংসার খরচ কমে গিয়েছিল বলে জানিয়েছিল খোদ সরকারি সমীক্ষা। পরিসংখ্যান মন্ত্রক আগেই তা খারিজ করেছিল। এ বার সরকারি কর্তাদের চাপে জাতীয় পরিসংখ্যান কমিশনও সেই সমীক্ষা প্রকাশ না-করার সিদ্ধান্ত নিল। সংবাদ মাধ্যমে এই খবর প্রকাশ হতেই কেন্দ্রকে নিশানা করেছেন বিরোধীরা। কংগ্রেসের অভিযোগ, কেন্দ্র ফের লুকোচুরি শুরু করেছে। পরিসংখ্যান মন্ত্রকের যদিও দাবি, কমিশনে সর্বসম্মতিক্রমেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তাতেও প্রশ্ন উঠছে যে, স্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের হয়ে সরকার কেন সাফাই দেবে? 

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সফরের জন্য গুজরাতের বিজেপি সরকার আমদাবাদে বস্তি আড়াল করতে পাঁচিল তুলেছে। কংগ্রেস মুখপাত্র গৌরব বল্লভ বলেন, ‘‘বিজেপি সরকার সব কিছু লুকিয়ে রাখতে চায়। চাষিদের আত্মহত্যা, বেকারদের সংখ্যা, নোট বাতিলের সত্য, আসল জিডিপি-র অঙ্ক। এমনকি পাঁচিল তুলে দারিদ্রও লুকিয়ে ফেলতে চায়। চল্লিশ বছরে সংসার খরচ প্রথম বার কমার অর্থ দেশে দারিদ্র বেড়েছে।’’ সিপিএম নেতা সীতারাম ইয়েচুরির কথায়, ‘‘পাঁচিল তোলাই হোক বা পরিসংখ্যান প্রকাশ না করা, এই সরকারের সব সময় চেষ্টা, সত্য ধামাচাপা দিয়ে রাখা।’’

জাতীয় পরিসংখ্যান দফতরের সমীক্ষায় দেখা যায়, ২০১৭-১৮ সালে সংসার খরচ কমেছে। দৈনন্দিন ব্যবহারের পণ্য, পোশাক, এমনকি পড়াশোনার খরচও কমিয়েছেন মানুষ। চার দশকে এমন ঘটেনি। আর সংসার খরচ কমার অর্থ দারিদ্রও বেড়েছে। প্রথমে ধামাচাপা দিয়ে রাখার পরে, সংবাদ মাধ্যমে সমীক্ষা ফাঁস হয়ে যায়। খামতি থাকার যুক্তিতে তা খারিজ করে কেন্দ্র। তবে পরিসংখ্যান কমিশন রিপোর্ট প্রকাশের কথা বলেছিল। কিন্তু তাদের বৈঠকের পরে সরকারি কর্তাদের চাপে তা বাতিল করতে হয়। 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন