ইরান ও ভেনেজুয়েলার মতো তেল উৎপাদনকারী দেশের উপরে নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে আমেরিকা। পাশাপাশি, এই নিষেধাজ্ঞার জেরে যাতে বিশ্ব বাজারে তেলের জোগানে টান না পড়ে তার জন্য ওপেক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলিকে বার্তা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাতেও অবশ্য তেলের রফতানি কমানোর সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে আসছে না ওপেকের বৃহত্তম তেল উৎপাদনকারী দেশ সৌদি আরব। এর ফলে বিশ্ব বাজারের পাশাপাশি তেলের দাম বৃদ্ধির আশঙ্কা উপেক্ষা করতে পারছে না ভারতও। 

সৌদি প্রশাসন সূত্রের খবর, সরকারি লগ্নি বাড়িয়ে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে চাইছে তারা। তাই তারা চাইছে এ বছরের মধ্যে আন্তর্জাতিক বাজারে ব্যারেল প্রতি অশোধিত তেলের দাম অন্তত ৭০ ডলারে পৌঁছক। সেই লক্ষ্যে দৈনিক তেল উৎপাদন ১ কোটি ব্যারেলের নীচে নামাতে চায় সৌদি। জোগান কমলে চাহিদার চাপে বাড়বে জ্বালানির দাম। সৌদি তেলের জোগান কমলে মার্কিন তেলের বাজার কিছুটা বাড়বে বটে, কিন্তু তার তোয়াক্কা করছে না রিয়াধ। 

জোগানের বিষয়টি পুনর্বিবেচনার জন্য এপ্রিলে সহযোগী দেশগুলির সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা ছিল ওপেকের। সেই বৈঠক বাতিল হয়েছে। সূত্রের খবর, জুনের পরেও উৎপাদন বাড়ানোর কথা ভাবছে না সৌদি।