• অমিতাভ গুহ সরকার
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

বাজেটের অপেক্ষায় দিন গোনা শুরু

আশা, ভাল একটা কিছু নিশ্চয়ই হবে 

Union Budget 2020

দোরগোড়ায় বাজেট। পেশ হতে বাকি আর ১৮ দিন। অর্থনীতির হাল ফেরাতে সরকার আর কী কী পদক্ষেপ করে, তা দেখার জন্য মুখিয়ে আছেন করদাতা এবং লগ্নিকারীরা। যাঁরা কাহিল চাহিদা, ঝিমিয়ে থাকা অর্থনীতি আর চলতি অর্থবর্ষের বৃদ্ধির পূর্বাভাসে অনবরত কাঁচি চলার খবরে মুষড়ে পড়েছেন। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক থেকে শুরু করে মুডি’জ়, ফিচের মতো রেটিং সংস্থা, আইএমএফ, বিশ্ব ব্যাঙ্কের মতো আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠান— পূর্বাভাস ছেঁটেছে সকলেই। এমনকি খোদ সরকারের পরিসংখ্যান মন্ত্রকের অনুমান, বৃদ্ধির হার আটকে থাকবে ৫ শতাংশে। এই পরিস্থিতিতে বাজেটের অপেক্ষায় হা-পিত্যেশ করে বসে সব মহল। অনেকেরই আশা, যা খারাপ হওয়ার হয়তো হয়ে গিয়েছে। এ বার অন্তত ভাল কিছু নিশ্চয়ই ঘটবে। আগামী দিনে যার হাত ধরে ঠিক ঘুরে দাঁড়াবে অর্থনীতি।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ১ ফেব্রুয়ারি সংসদে দ্বিতীয় বার পেশ করবেন পূর্ণাঙ্গ বাজেট। ২০১৫-১৬ সালের পরে এ বারও সে দিন শনিবার। ৩১ জানুয়ারি সরকার প্রকাশ করবে দেশের অর্থনৈতিক সমীক্ষার রিপোর্ট। যা থেকে জানা যাবে আমাদের অর্থনীতির স্বাস্থ্য এখন কেমন।

মুখে যা-ই বলুন, অর্থনীতি নিয়ে চিন্তিত স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। গত কয়েক দিনে অর্থনীতি কী ভাবে ঘুরে দাঁড়াতে পারে, তা নিয়ে দফায় দফায় আলোচনা করেছেন শিল্পপতি, অর্থনীতিবিদ, লগ্নিকারী, কৃষি বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে। বাজেটের প্রাক্কালে যা তাৎপর্যপূর্ণ।

বাজার অবশ্য দেশের ঝিমিয়ে থাকা অর্থনৈতিক পরিস্থিতিকে উপেক্ষা করেই এত দিন নাগাড়ে বেড়েছে। এই অবস্থায় আমেরিকা-ইরান দ্বন্দ্বের খবরে গত সোমবার এক ধাক্কায় সেনসেক্স নামে প্রায় ৭৮৮ পয়েন্ট। মাত্র কয়েক ঘণ্টায় লগ্নিকারীরা খুইয়ে বসেন প্রায় ৩ লক্ষ কোটি টাকা। তবে সুখের কথা, এই আতঙ্ক এবং পতন খুব বেশি দিন স্থায়ী হয়নি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মুখে শান্তির বাণী শোনায় আশ্বস্ত হয় বিশ্ব বাজার। ঘুরে দাঁড়ায় ভারতের বাজারও। বৃহস্পতিবার সেনসেক্স ওঠে ৬৩৫ পয়েন্ট। শুক্রবার আরও ১৪৭ বেড়ে স্পর্শ করে ৪১,৬০০ পয়েন্ট। এ ধরনের অস্থিরতা বাজার এর আগে দেখেছে শুল্ক-যুদ্ধকে কেন্দ্র করে।

গত সপ্তাহে শুরু হয়েছে সংস্থাগুলির তৃতীয় ত্রৈমাসিকের ফলাফল প্রকাশ। শুক্রবার তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা ইনফোসিস জানিয়েছে, তিন মাসে তাদের আয় যখন ৭.৯% বেড়ে পৌঁছেছে ২৩,০৯২ কোটি টাকায়, তখন নিট লাভ ২৩ শতাংশেরও বেশি বেড়ে ছুঁয়েছে ৪৪৫৭ কোটি। ফল প্রকাশের মরসুম ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। 

(মতামত ব্যক্তিগত) 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন