• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

করোনা পরীক্ষায় দেরি, মৃত্যু বৃদ্ধের

Late in test,results in death in covid
প্রতীকী ছবি
টানা জ্বর। রক্ত পরীক্ষায় ধরা পড়ে টাইফয়েড। জ্বর কমার পরই শ্বাসকষ্ট। হাসপাতালে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় ধরা পড়ল করোনা। তারপরে বহু চেষ্টা করেও  আর চিকিৎসকেরা বাঁচাতে পারলেন না ব্যবসায়ী সরোজ বেরাকে। রবিবার মৃত্যু হয় তাঁর। সোমবার বিকেলে ঝাড়গ্রাম করোনা হাসপাতালেও এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। মৃত নন্দলাল সর্দার (৬৫) বেলপাহাড়ির ভীমার্জুন গ্রামের বাসিন্দা। 
 
শহরের তরুণ ব্যবসায়ী সরোজের মৃত্যুর ঘটনায় করোনা নিয়ে একাংশ বাসিন্দার অসচেতনতার বিষয়টি ফের প্রকাশ্যে এসেছে। চিকিৎসকেরা জানাচ্ছেন, রবিবার সন্ধ্যায় যখন বছর আটচল্লিশের সরোজকে যখন  ঝাড়গ্রাম জেলা হাসপাতালের বিশেষ আইসোলেশন ওয়ার্ডে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়, তখন তাঁর শরীরের অক্সিজেনের মাত্রা অসম্ভব কমে গিয়েছিল। সাতদিনের উপর বাড়িতে ছিলেন তিনি। অথচ তাঁর করোনা পরীক্ষা করানো হয়নি। তিনি যে করোনায় আক্রান্ত সেটা সময়মতো জানা গেলে হয়তো এমন চরম পরিণতি ঠেকানো যেত।
 
সরোজ বৈদ্যুতিক সরঞ্জামের ব্যবসা করতেন। সরোজের ভাই বলেন, ‘‘দিন দশেক আগে দাদার জ্বর হয়। চিকিৎসককে দেখানো হয়। রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট দেখে চিকিৎসক জানান, টাইফয়েড হয়েছে। সেই মতো চিকিৎসা চলছিল। রবিবার দুপুরে দাদাকে করোনা পরীক্ষা করানোর কথা বলেছিলাম। জ্বর নেই বলে দাদা করোনা পরীক্ষা করাতে যাননি।’’ চিকিৎসকেরা বলছেন, আগেও শহরের এক যুবকের টাইফয়েডের চিকিৎসা হয়েছিল বাড়িতে। শেষ অবস্থায় ওই যুবককে করোনা হাসপাতালে ভর্তি করানো হলে তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পরে ওই যুবকের পরিজনদের হাতে নিগৃহীত হন জেলা হাসপাতালের এক চিকিৎসক ও করোনা হাসপাতালের এক কর্মী। চিকিৎসকদের একাংশের বক্তব্য, করোনা হাসপাতালে উপযুক্ত পরিকাঠামোর অভাব রয়েছে
ঠিকই তবে রোগী ও তাঁর পরিজনদের অসচেতনতাই বিপদ ডেকে আনছে।  
 
ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের ঝাড়গ্রাম শাখার সম্পাদক প্রণবরঞ্জন মজুমদার বলেন, ‘‘জ্বরের উপসর্গ থাকলে করোনা পরীক্ষা বাঞ্ছনীয়। দু’তিন দিনে জ্বর না ছাড়লে পঞ্চম থেকে অষ্টম দিনের মধ্যে করোনা পরীক্ষা করানো উচিত।’’ 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন