Advertisement
২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
Finance

শুধু আর্থিক সংস্কারে দায়বদ্ধ সরকার? অচ্ছে দিনের কী হবে?

তারই সব ভাল, যার শেষটা ভাল। এমনটা কথিত আছে। এ কথন ঠিক না ভুল, সে বিতর্কে যাওয়া অপ্রয়োজনীয়, কারণ যে কোনও বিষয় ভালয় ভালয় মিটে যাওয়াই কাম্য এবং ভালয় ভালয় মিটে যাওয়ার অর্থই হল ‘শেষ ভাল’।

অঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়
শেষ আপডেট: ০১ এপ্রিল ২০১৭ ০৪:১৩
Share: Save:

তারই সব ভাল, যার শেষটা ভাল। এমনটা কথিত আছে। এ কথন ঠিক না ভুল, সে বিতর্কে যাওয়া অপ্রয়োজনীয়, কারণ যে কোনও বিষয় ভালয় ভালয় মিটে যাওয়াই কাম্য এবং ভালয় ভালয় মিটে যাওয়ার অর্থই হল ‘শেষ ভাল’। যে আর্থিক বছরটা কাটিয়ে এলাম, তার শেষটা কিন্তু ভাল হল না। মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত, এমনকী নিম্নবিত্তের একাংশের জন্যও দুঃসংবাদই এল ২০১৬-১৭ অর্থবর্ষের শেষ দিকটায়।

স্বল্প সঞ্চয়ে সুদ কমিয়ে দিল সরকার। পিপিএফ, কিষাণ বিকাশ পত্র, ন্যাশনাল সেভিংস সার্টিফিকেট, সুকন্যা সমৃদ্ধি ইত্যাদি সামাজিক সুরক্ষামূলক স্বল্প সঞ্চয় প্রকল্পে কোপ পড়ল। আজ অর্থাৎ নতুন অর্থবর্ষের প্রথম দিন থেকেই এই সব প্রকল্পে গচ্ছিত অর্থের উপর সুদের হারে ছাঁটাই শুরু। আর এই দুঃসংবাদের আবহেই পুরনো অর্থবর্ষটা শেষ।

সাধারণ মানুষের জন্য নিঃসন্দেহে দুঃসংবাদ সরকারের এই সিদ্ধান্ত। ০.১% হারে কমছে সুদ। শুনতে নগণ্যই, কিন্তু কার্যত অঙ্কটা খুব ছোট নয়। তার চেয়েও বড় কথা হল, স্বল্প সঞ্চয়ে সুদটা কমছে, বাড়ছে না। সামাজিক সুরক্ষামূলক সঞ্চয়েও কোপ ফেলে দিল সরকার। কোনও ব্যবসায়িক স্বার্থে এই প্রকল্পগুলোর প্রচলন কিন্তু হয়নি। সরকারের ন্যূনতম অংশগ্রহণ বা সমর্থনে ভর করে মধ্যবিত্ত, নিম্নমধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত মানুষ যাতে অল্প অল্প করে সুরক্ষিত করে নিতে পারেন নিজেদের অর্থনৈতিক ভবিষ্যৎ, তা নিশ্চিত করার জন্যই এই সব প্রকল্পের প্রচলন হয়েছিল। কিন্তু সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি আজ বদলে গিয়েছে। এই সব প্রকল্পে গচ্ছিত অর্থের উপর সামান্য বেশি হারে সুদ দেওয়াকে সরকার আর সামাজিক সুরক্ষার প্রতি নিজের দায়বদ্ধতা হিসেবে দেখছে না। সরকার এখন একে ভর্তুকি হিসেবে দেখছে। দেশের অর্থনৈতিক সংস্কারে দায়বদ্ধ সরকার। অতএব ভর্তুকি বরদাস্ত করা চলে না। অতএব স্বল্প সঞ্চয়ে সুদের হার কমিয়ে দেওয়া হল।

নির্বাচনী প্রচারে অর্থনৈতিক সংস্কারের প্রতিশ্রুতি যেমন ছিল, তেমনই ‘অচ্ছে দিন’-এর প্রতি‌শ্রুতিও তো ছিল। সংস্কারের প্রতি দায়বদ্ধতা যদি থাকে নরেন্দ্র মোদীদের, তা হলে অচ্ছে দিনের প্রতিও রয়েছে। তবু হিসেবটা মেলে না, সুদ ক্রমশ কমে যায়। কোন প্রতিশ্রুতিটা আসল ছিল, আর কোনটা আসলের উপরে সুদ ছিল, সে হিসেব গুলিয়ে যায়।

নতুন অর্থবর্ষ সুসংবাদ নিয়ে শুরু হলে ভাল হত। হল না। অতএব অপেক্ষায় রইলাম এই অর্থবর্ষের শেষটা দেখার জন্য। শুরুটা ভাল না হলেও, শেষটা ভাল হবে, এই আশায় বুক বাঁধলাম। শেষটা ভাল হলেই সব ভাল ঠেকবে হয়তো।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE