বারাণসীর রাজা কুয়ো খুঁড়ে দিলেন ইংল্যান্ডে

উনিশ শতকের মাঝামাঝি দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের এক গ্রামে ছোট্ট এক ছেলে মায়ের কাছে মার খেয়েছিল খরার সময়ে ঘরে-থাকা শেষ জলটুকু খেয়ে নেওয়ায়। বহু দূরে, ভারতে বারাণসীর মহারাজা সে গল্প শুনেছিলেন সংযুক্ত প্রদেশের কার্যনির্বাহী গভর্নর জেনারেল এডওয়ার্ড রিড-এর মুখে। রিড ১৮৩১-এ আজ়িমগড়ে স্থানীয় মানুষের জন্য একটা কুয়ো খুঁড়ে দিয়েছিলেন, রাজা এ বার প্রতিদানে ইংল্যান্ডের অক্সফোর্ডশায়ারের স্টোক রো গ্রামে একটা কুয়ো বানিয়ে দিতে চাইলেন। ৩৫৩ পাউন্ড খরচে তৈরি ‘মহারাজার কুয়ো’ খুলে গেল ২৪ মে, ১৮৬৪। ২৩ ফুটের কাঠামো, উজ্জ্বল গম্বুজ, সোনালি এক হাতি তার প্রহরী। বারাণসীরাজের প্রেরণায় অন্য ভারতীয় রাজারাও ওই অঞ্চলে কুয়ো গড়তে অনুদান দিলেন। এ বছর মহারাজার কুয়োর ১৫৫তম বর্ষ। ৩৬৮ ফুট গভীর এই কুয়ো আদতে সেন্ট পল’স ক্যাথিড্রালের সমান উঁচু! মাত্র দু’জন শ্রমিক মাটি খুঁড়ে, ইট বসিয়েছিলেন এই কুয়োয়, শীতেও ছুটি ছিল না। রাজা নিজে কখনও এই কুয়ো দেখতে আসেননি। ১৯৬১ সালে রানি এলিজ়াবেথ বারাণসী এলে তখনকার রাজা এই কুয়োর শতবর্ষ এগিয়ে আসার কথা মনে করিয়ে দেন রানিকে। তিন বছর পর, ৮ এপ্রিল ১৯৬৪ শতবর্ষের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন ১৫০০ মানুষ। বারাণসী তথা ভারতের সঙ্গে সম্পর্ককে স্মরণ করা হয়েছিল কুয়োয় আনুষ্ঠানিক ভাবে গঙ্গাজল ঢেলে!

ঐতিহাসিক: স্টোক রো-তে ‘মহারাজার কুয়ো’। ডান দিকে, বারাণসীর মহারাজা

 

ছবিতে বিটলস 

বিটলস-হীন বিশ্বকে কল্পনা করা যায়? ‘লেট ইট বি’ বা ‘হে জুড’-এর মতো বিখ্যাত গানগুলো সারা পৃথিবীতে কেউ জানে না, এ কখনও সম্ভব? ‘স্লামডগ মিলিয়নেয়ার’-খ্যাত পরিচালক ড্যানি বয়েল-এর নতুন ছবি ‘ইয়েস্টারডে’-র বিষয় কিন্তু ঠিক এমনটাই। তরুণ ব্রিটিশ ভারতীয় গায়ক-গীতিকার জ্যাক মালিক থাকে উত্তর-পূর্ব ইংল্যান্ডের সাফোক-এ সমুদ্রতীরের এক গ্রামে। এক দিন কনসার্ট শেষে সাইকেলে বাড়ি ফেরার সময় ৩০ সেকেন্ডের একটা ব্ল্যাকআউট হয় সারা বিশ্বে। অন্ধকারে জ্যাককে ধাক্কা মারে একটা বাস। জ্ঞান ফিরতে সে দেখে, পৃথিবী জুড়ে সবাই বিটলসকে ভুলে গিয়েছে, ওঁদের সমস্ত গানগুলো মনে আছে শুধু ওর নিজের! বিটলস-বিস্মৃত বিশ্বে জ্যাক রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে ওঠে। এ সপ্তাহেই ব্রিটেনে মুক্তি পেয়েছে ‘ইয়েস্টারডে’, জ্যাকের চরিত্রে হিমেশ পটেল। ছবিতে বিটলস-এর সব গান লাইভ গেয়েছেন তিনি! ওঁর মা-বাবার চরিত্রে অভিনয় করেছেন মিরা সিয়াল ও সঞ্জীব ভাস্কর; জ্যাকের এজেন্ট ও প্রেমিকার চরিত্রে লিলি জেমস। ছবির চিত্রনাট্যকার রিচার্ড কার্টিস, এর আগে যিনি ‘নটিং হিল’ ও ‘ফোর ওয়েডিংস অ্যান্ড আ ফিউনারাল’-এর মতো বিখ্যাত ছবিগুলোর স্ক্রিপ্ট লিখেছেন। ‘ইয়েস্টারডে’ ছবিটা দেখতে সব বিটলস-ভক্তই  হল-এ ভিড় জমাবেন মনে হয়। 

 

 

চারুলতা ২০১৯

আদর: বিরাটের সঙ্গে চারুলতা পটেল

ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচে একটা ছবি নজর কেড়েছে সবার— এজবাস্টন মাঠে শাড়ি-পরা, ৮৭ বছর বয়সি চারুলতা পটেল স্নেহাশীর্বাদ জানাচ্ছেন বিরাট কোহালিকে। টিভি ক্যামেরায় গ্যালারিতে দেখা গিয়েছিল চারুলতাকে— তেরঙা স্কার্ফ জড়ানো, ভারতের নামে জয়ধ্বনি দিচ্ছেন। ম্যাচ জিতে নেওয়ার পর কোহালি ও সে দিনের ম্যান অব দ্য ম্যাচ রোহিত শর্মা সোজা যান চারুলতার কাছে। বিরাট পরে তাঁর ছবি টুইট করেন, চারুলতাকে ধন্যবাদ জানান তাঁর দেখা সবচেয়ে ‘আবেগী ও নিবেদিতপ্রাণ ক্রিকেটভক্ত’ বলে। 

 

 

হোটেল বাঁচাতে 

ব্রিটিশ সংরক্ষকেরা ওয়াটসন হোটেল বাঁচাতে প্রচারে নেমেছেন। ১৮৬৭ সালে ব্রিটিশরা এই হোটেল বানিয়েছিল তখনকার বোম্বেতে। এই বিলাসবহুল হোটেলে অতিথি ছিলেন মার্ক টোয়েন, জোসেফ কনরাড। ঐতিহ্যমণ্ডিত বাড়িটিকে (এখন নাম এসপ্লানেড ম্যানশন) ‘নিরাপদ নয়’ তকমা দিয়ে ভেঙে ফেলতে চায় মুম্বই পুর কর্তৃপক্ষ। কমনওয়েলথ হেরিটেজ ফোরাম, ইংলিশ হেরিটেজ, ওয়ার্ল্ড মনুমেন্টস ফান্ড ব্রিটেন-এর মতো সংস্থার বর্তমান ও প্রাক্তন প্রধানরা ভারত সরকারের কাছে আবেদন করেছেন এর সংরক্ষণের। এই হোটেল ছিল রট আয়রনে তৈরি বিশ্বের প্রথম বাসযোগ্য বহুতল। লোহা এসেছিল জাহাজে, ডার্বির ফিনিক্স ফাউন্ড্রি থেকে।