Advertisement
Back to
Azimullah Khan

এক মুসলিমই প্রথম ‘ভারত মাতা কি জয়’ স্লোগান দিয়েছিলেন! দাবি বিজয়নের, পাল্টা খোঁচা বিজেপির

কেরলের মুখ্যমন্ত্রী তথা সিপিএম নেতা পিনারাই বিজয়নের দাবি, ১৮৫৭ সালের সিপাহি বিদ্রোহের নায়ক আজিমুল্লা কান প্রথম ‘ভারত মাতা কি জয়’ স্লোগান দিয়েছিলেন।

গ্রাফিক: সনৎ সিংহ।

আনন্দবাজার অনলাইন ডেস্ক
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৬ মার্চ ২০২৪ ২০:৫৮
Share: Save:

সঙ্ঘ পরিবারের প্রিয় ‘ভারত মাতা কি জয়’ স্লোগান প্রথম দিয়েছিলেন আজিমুল্লা খান নামে এক মুসলিম ব্যক্তি! মঙ্গলবার এমনটাই দাবি করলেন, কেরলের মুখ্যমন্ত্রী তথা সিপিএম নেতা পিনারাই বিজয়ন।

মলপ্পুরমে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) বিরোধী এক সভায় সোমবার ১৮৫৭ সালের সিপাহি বিদ্রোহের নায়ক আজিমুল্লার প্রসঙ্গ টেনে বিজয়ন বলেন, ‘‘সঙ্ঘ পরিবারের নেতা-কর্মীরা জানেন না, প্রথম ‘ভারত মাতা কি জয়’ স্লোগান শোনা গিয়েছিল এক মুসলিমের মুখে। এ কথা জানার পরে কি তাঁরা ওই স্লোগান ত্যাগ করবেন?’’

জনশ্রুতি, সিপাহি বিদ্রোহের সময় আজিমুল্লা স্লোগান তুলেছিলেন, ‘মদর-ই-ওয়াতন, ভারত কি জয়’। যার অর্থ, ‘মাতৃভাষায় তোমার মাতৃভূমির প্রশংসা কর, ভারতের জয়। তবে ১৮৭৩ সালে কিরণচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়ের লেখা ‘ভারত মাতা’ নাটকে সর্বপ্রথম ‘ভারত মাতা কি জয়’ শব্দবন্ধ লিখিত ভাবে ব্যবহার করা হয়েছিল।

যদিও মঙ্গলবার বিজেপির তরফে বিজয়নকে নিশানা করে দাবি করা হয়েছে, মাতৃভূমিকে ‘মা’ হিসাবে কল্পনা করার কথা রয়েছে ঋকবেদে। মলপ্পুরমের ওই সভায় বিজয়ন আরও দাবি করেন, ‘জয় হিন্দ’ স্লোগান প্রথম দিয়েছিলেন, আজাদ হিন্দ বাহিনীতে নেতাজির আস্থাভাজন সহকারী আবিদ হাসান।

ব্রিটেনে শিক্ষিত আজিমুল্লাকে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির শাসনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছিল ক্রাইমিয়ার যুদ্ধে রাশিয়ার সাফল্য। দেশে ফিরে নির্বাসিত পেশোয়া নানাসাহেবের উপদেষ্টা থাকাকালীন তিনি কোম্পানির ভারতীয় সিপাহিদের বিদ্রোহ সংগঠিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিলেন। কানপুরে-বিঠুর এলাকায় ব্রিটিশ বিরোধী লড়াইয়ে নেতৃত্বও দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সিপাহি বিদ্রোহ ব্যর্থ হওয়ার পরে নেপালে পালিয়ে যেতে বাধ্য হন তিনি।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE