×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement
Powered By
Co-Powered by
Co-Sponsors

প্রার্থী নিয়ে ‘উৎকণ্ঠা’ বিজেপিতে

দয়াল সেনগুপ্ত 
সিউড়ি ০১ মার্চ ২০২১ ০৬:৪৮
প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

ভোটের দিনক্ষণ ঘোষিত হয়েছে। ২৯ এপ্রিল, বীরভূমে শেষ দফায় ভোট। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার জন্য এখনও পর্যপ্ত সময় রয়েছে। কিন্তু ভোটের ময়দানে থাকা দলগুলির প্রার্থী কে হচ্ছেন সেটা নিয়ে যেমন জল্পনা বেড়েছে, দলগুলির অন্দরে শুরু হয়েছে তৎপরতাও। তবে দল সূত্রে খবর, প্রার্থী নিয়ে বেশ ‘উৎকণ্ঠা’ রয়েছে গেরুয়া শিবিরে।

বিজেপি সূত্রে খবর, যাঁরা যাঁরা আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে প্রার্থী হতে চান, সম্পূর্ণ জীবনপঞ্জি-সহ তাঁদের আবেদনপত্র কলকাতায় রাজ্য বিজেপি দফতরের ড্রপ বক্সে দিয়ে আসতে পারেন। জেলা নেতৃত্ব জানাচ্ছে, জেলার ১১টি বিধানসভা আসনে প্রার্থী হতে চেয়ে শতাধিক আবেদন জমা পড়েছে। কেউ কেউ আবার বলছেন, সংখ্যাটা কয়েকশো।

বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, সেই তালিকায় যেমন দলের নেতা কর্মীরা রয়েছেন, তেমনই বিজেপির সঙ্গে সরাসরি সম্পর্কযুক্ত নন, তেমন শিক্ষক, আইনজীবী, ব্যবসায়ী থেকে গৃহকর্ত্রী মহিলা— সকলেই আছেন। সেই আবেদনকারীদের মধ্যে থেকেই কাউকে বাছা হবে, নাকি দলের নেতা কর্মীদের মধ্যে আস্থাভাজন বা পরিচিত মুখ প্রার্থী হবেন কেউ জানেন না। চর্চা চলছে সে সব নিয়েই। বিজেপির জেলা সভাপতি ধ্রুব সাহা বলছেন, ‘‘শুনেছি বহু আবেদন জমা পড়েছে। কিন্তু কাকে প্রার্থী করা হবে সেটা দলগত সিদ্ধান্ত।’’

Advertisement

বিজেপির রাজ্য কমিটির এক সদস্য বলছেন, এ ভাবে আবেদন চাওয়া জনসংযোগ স্থাপনের একটা পন্থা। তাঁর দাবি, অনেক ভেবেচিন্তেই আবেদন আহ্বান করা হয়েছিল এ ভাবে। তাঁর কথায়, ‘‘এর কারণ সকলের কাছে হয়তো দল পৌঁছতে পারেনি। কিন্তু দেখা যাবে কোনও এলাকায় কোনও এক জনপ্রিয় ব্যক্তি চেয়েছেন শাসক দলের অপশাসনের বিরুদ্ধে বিজেপির হয়ে প্রার্থী হতে। তাই আবেদনগুলি যেমন খতিয়ে দেখা হবে, তেমনই দীর্ঘদিন ধরে যাঁরা মাঠে নেবে যাঁরা লড়াই করছেন তাঁদেরকেও গুরুত্ব দেওয়া হবে।’’ দুইয়ের মধ্যে সামঞ্জস্য রাখার চেষ্টা হবে বলে বিজেপির ওই নেতার দাবি।

জেলার রাজনীতির কারবারিরা মনে করাচ্ছেন, গত বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি তেমন ভাবে প্রাসঙ্গিক ছিল না জেলার ১১টি বিধানসভার কোনওটাতেই। ফলও সে কথা বলছে। ১১টির মধ্যে ৯টি আসন শাসক দলের দখলে ছিল। বাকি ২টির একটি পেয়েছিল কংগ্রেস অন্যটি সিপিএম। কিন্তু গত লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে ধরলে ১১টি বিধানসভার মধ্যে ৫টিতে এগিয়ে গিয়েছে বিজেপি। বেড়েছে সংগঠনও। কিন্তু শুধু দল নয়, প্রার্থী কে হচ্ছেন সেটাও খুব গুরুত্বপূর্ণ হতে যাচ্ছে। সেদিকেই তাকিয়ে গেরুয়া শিবিরের কর্মী-সমর্থকেরা।

Advertisement