কঙ্গনা রানাউতের কেরিয়ার যত বারই টাল খেয়েছে ‘তনু ওয়েডস মনু’ সিরিজ তত বারই সামাল দিয়েছে। ‘কাইট্‌স’, ‘নক আউট, ‘নো প্রবলেম’... ইত্যাদি ছবির ব্যর্থতার ভারে কঙ্গনা যখন ক্লান্ত, তখন আনন্দ এল রাইয়ের ‘তনু ওয়েডস মনু’ তাঁকে হিটের মুখ দেখাল। তার পর ২০১২-’১৪ সাল পর্যন্ত কঙ্গনার আবার ব্যাডপ্যাচ। তার মধ্যে হৃতিক রোশনের সঙ্গে ব্যর্থ প্রেমের চাপ তাঁকে একেবারেই কোণঠাসা করে ফেলেছিল। সেই সময়েই ‘‘তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস’ নায়িকাকে কেরিয়ারের লড়াইয়েও রিটার্ন করে। এই মুহূর্তে কঙ্গনা ফের চাপে। গত তিন বছরে হিট নেই তাঁর। বিতর্কের জোরে খবরে টিকে রয়েছেন। এই রকম সঙ্কটজনক পরিস্থিতিতেই ফ্র্যাঞ্চাইজ়ির তৃতীয় ছবি হতে চলেছে। ইন্ডাস্ট্রি সূত্রে খবর,  আনন্দের পরিচালনাতেই ‘তনু ওয়েডস মনু এগেন’ নিয়ে ফিরতে চলেছেন কঙ্গনা।

তবে সবটাই প্রাথমিক স্তরে। ‘তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস’-এর সময় থেকেই তৃতীয় ছবির পরিকল্পনা ছিল আনন্দের। কিন্তু দ্বিতীয় ছবির শুটিংয়ে পরিচালককে এমন ঘোল খাওয়ান নায়িকা, যে তিনি তৃতীয় ছবিটি মুলতুবি করে দেন। শোনা যায়, ‘তনু ওয়েডস মনু রিটার্নস’-এর শুটিংয়ে কঙ্গনা চিত্রনাট্য থেকে পরিচালনা সবেতেই নাক গলিয়েছিলেন। সহ অভিনেতার চরিত্রে কাঁচি চালানোর ঘটনাও শোনা যায়। ওই ছবির আর এক অভিনেত্রী স্বরা ভাস্করের সঙ্গে কঙ্গনার ঝামেলার কথা ইন্ডাস্ট্রির সকলেই জানেন। স্বাভাবিক ভাবেই বীতশ্রদ্ধ আনন্দ তৃতীয় ছবি নিয়ে আর এগোননি।

সম্প্রতি নায়িকার ‘জাজমেন্টাল হ্যায় কেয়া’র প্রিমিয়ারে আনন্দকে দেখা যায়। তখনই মনে করা হয়েছিল পরিচালক-অভিনেত্রীর আভ্যন্তরীণ ঝামেলা বোধহয় মিটে গিয়েছে। আসলে এ দু’জনের ঝামেলা মেটানোর দায়িত্ব নিয়েছেন প্রযোজক শৈলেশ আর সিংহ। যিনি সিরিজ়ের প্রথম ছবির প্রযোজক ছিলেন এবং হালফিলে কঙ্গনার অনেকগুলি ছবি প্রযোজনা করেছেন। তার মধ্যে ‘সিমরন’, ‘জাজমেন্টাল...’ ব্যর্থ। এই পরিস্থিতিতে আনন্দকে তৃতীয় ছবিটি নিয়ে এগোনোর কথা বলেন শৈলেশ। প্রযোজকের সঙ্গে আনন্দেরও ভাল সম্পর্ক। তাঁর কথাতেই ‘জাজমেন্টাল...’-এর প্রিমিয়ারে গিয়েছিলেন পরিচালক। 

এই মুহূর্তে ‘থালাইভি’ নিয়ে ব্যস্ত কঙ্গনা। খবর বলছে, আগামী বছরের শুরুতে ছবির শুটিংয়ের পরিকল্পনা চলছে।