সঞ্জয় লীলা ভন্সালীর নতুন ছবি ‘গঙ্গুবাঈ কাথিয়াওয়াড়ি’তে আলিয়া ভট্টের বিপরীতে দেখা যাবে অজয় দেবগণকে। গঙ্গুবাঈয়ের চরিত্রে আলিয়া ও করিম লালার ভূমিকায় অজয়। প্রায় ২০ বছর পরে ভন্সালীর ছবিতে অভিনয় করবেন অজয়। মুম্বইয়ের কামাথিপুরা অঞ্চলের এক যৌনপল্লির প্রভাবশালী কর্ত্রী ছিলেন গঙ্গুবাঈ। আর মুম্বইয়ের নামজাদা মাফিয়াদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন করিম লালা। তবে এই স্পেশ্যাল অ্যাপিয়ারেন্সে কাকে নেওয়া যায়, তা খুঁজতে কম ঝক্কি পোহাতে হয়নি ভন্সালীকে।

রণবীর সিংহ, রণবীর কপূরের কাছেও প্রস্তাব নিয়ে গিয়েছিলেন ভন্সালী। তবে আলিয়া বেশি গুরুত্ব পাবেন বলে অনেকেই সেই চরিত্র করতে রাজি হননি। তখন কার্তিক আরিয়ানের ডাক পড়ে ভন্সালীর অফিসে। কিন্তু তাঁকে নিয়েও দোটানায় ছিলেন পরিচালক। কারণ চিত্রনাট্য অনুযায়ী, পুরুষ চরিত্রটির বয়স ৩০ বছরের বেশি।

ইন্ডাস্ট্রির অন্দরের খবর, কার্তিকের কাছে স্ক্রিপ্ট পড়েও শোনাননি সঞ্জয়। কিন্তু তাঁকে এই ছবির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বলে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর ঘুরতে থাকে। তাতেই সঞ্জয়ের চক্ষুশূল হন কার্তিক। কেন কার্তিক এই বিষয়ে সংবাদমাধ্যমের কাছে মুখ খুলেছেন, তা নিয়ে অভিনেতার উপরে বেজায় চটেছেন পরিচালক। ভবিষ্যতে তাঁর সঙ্গে দ্বিতীয় বার দেখা করার আগেও সঞ্জয় ভাববেন বলে হুমকি দিয়েছেন। আসলে পরিচালকের মনে অনেক বিষয় নিয়েই চিন্তাভাবনা রয়েছে।

সলমন খানের সঙ্গে মতানৈক্যের কারণে ‘ইনশাল্লাহ’র কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এ দিকে প্রযোজক জয়ন্তীলাল গাডার কাছে ১৯০ কোটি টাকায় ছবিটি বিক্রি করেছিলেন পরিচালক। সেট নির্মাণ শুরু হয়ে গিয়েছিল। আলিয়ার ডেট চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছিল। শেষ মুহূর্তে ছবি ভেস্তে যাওয়ায় আতান্তরে পড়েছিলেন ভন্সালী। তার পরে ‘গঙ্গুবাঈ...’-এর জন্য পুরুষ চরিত্র খুঁজে না পাওয়ায় তা নিয়েও বেশ চিন্তায় ছিলেন তিনি।

নতুন ছবিটির কাজ ডিসেম্বরে শুরু হওয়ার কথা।