• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মাদক কাণ্ডে গ্রেফতার কর্ণ ঘনিষ্ঠ ক্ষিতিজ প্রসাদ

Kshitij Prasad
বাঁ দিকে ক্ষিতিজ এবং ডান দিকে কর্ণ।

টানা ২৪ ঘণ্টা জেরার পর ইন্ডাস্ট্রিতে কর্ণ জোহরের ‘ঘনিষ্ঠ বন্ধু' বলে পরিচিত ক্ষিতিজ রবি প্রসাদকে মাদক যোগে গ্রেফতার করল নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো।  বৃহস্পতি রাতে তাঁর ভারসোভার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে গাঁজা উদ্ধার করে এনসিবি।  শুক্রবার এনসিবির দফতরে তাঁকে জিজ্ঞাসবাদ করা হয়। শনিবার গ্রেফতার হন তিনি। আগামীকাল তাঁকে আদালতে তোলা হবে। 

শুক্রবার জিজ্ঞাসবাদের সময় এনসিবি’র তরফে কর্ণ জোহরের বাড়িতে হওয়া সেই বিতর্কিত পার্টি নিয়েও প্রশ্ন করা হয় তাঁকে।  বিশেষ সূত্রে জানা জানা যাচ্ছে,  বেশ কয়েকজন বলিউডের ‘এ-লিস্টার’-এর নাম ফাঁস করেছেন ক্ষিতিজ। ক্ষিতিজ জানিয়েছেন মাঝেমধ্যে গাঁজা খেলেও তিনি মাদক পাচারের সঙ্গে যুক্ত নন। তবে এনসিবি সূত্রে খবর, গাঁজা ছাড়াও এমডিএমএ (এক ধরণের মাদক) নিতেন তিনি। 

এনসিবি ক্ষিতিজের খোঁজ পায় অঙ্কুশ আরনেজা বলে এক ব্যক্তির কাছ থেকে। অঙ্কুশকে মাদক মামলায় ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করেছে এনসিবি। এনসিবি সূত্রে জানা যাচ্ছে ক্ষিতিজকে মাদকের জোগান দিতেন এই অঙ্কুশই। 

আরও পড়ুন- বিকৃতমনস্করাই গাওস্করের মন্তব্যে যৌনতা খুঁজে পাবে: কঙ্গনা

এ দিকে মাদককাণ্ডে ক্ষিতিজকে জিজ্ঞাসাবাদ এবং পরে গ্রেফতারির ফলে বিপাকে কর্ণও। এমনিতেই স্বজনপোষণ বিতর্কে অনেক দিন তিনি ব্যাকফুটে। এরই মধ্যেই তাঁর সহযোগীর এই মাদকযোগ। এখানেই শেষ নয়, মাদকযোগে গতকাল এনসিবি কর্ণর এক সহকারী পরিচালক অনুভব চোপড়াকেও জেরা করেছে। এ সবের মধ্যেই শুক্রবারই মুখ খোলেন কর্ণ। কড়া ভাষায় জানিয়ে দেন, তিনি মাদক ব্যবহার করেন না এবং মাদক ব্যবহার করতে কাউকে উৎসাহিত  করেননি কখনও। ক্ষিতিজ এবং অনুভবকে ‘কাছের লোক’ বলতেও অস্বীকার তাঁর।

আজ এনসিবি দফতরে ক্ষিতিজ

একটি বিবৃতি জারি করে  কর্ণ বলেন, “বেশ কিছু সংবাদমাধ্যম ক্ষিতিজ এবং অনুভবকে আমার ঘনিষ্ঠ সহকারী হিসেবে প্রচার করছে। আমি জানাতে চাই, তাঁদের মধ্যে কেউই আমার ঘনিষ্ঠ নন। ব্যক্তিগত জীবনে তাঁরা কেমন, আমি তা জানি না।” পরিচালক জানান, অনুভব চোপড়া কোনও দিন ধর্ম প্রডাকশনসের কর্মচারী ছিলেন না।  ২০১১ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে দু'টি প্রজেক্টে তিনি এই সংস্থার সঙ্গে স্বকীয় ভাবে কাজ করেছিলেন।

আরও পড়ুন: মাদক সংক্রান্ত হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের অ্যাডমিন ছিলেন দীপিকাই!​


অন্যদিকে ক্ষিতিজ রবি প্রসাদ ২০১৯ সালে ধর্মটিক এন্টারটেইনমেন্ট-এ যোগ দেন। এই সংস্থাটির সঙ্গে ধর্ম প্রডাকশনস যুক্ত থাকলেও তা মূল সংস্থার অধীনে নয়। পরিচালক জানান, একটি চুক্তির ভিত্তিতে ক্ষিতিজ সেই কোম্পানিতে এগজিকিউটভ প্রোডিউসার হিসাবে কাজ শুরু করেন। ক্ষুব্ধ কর্ণের বক্তব্য, “কোনও ব্যক্তি তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে কী করছেন, তার দায়ভার আমি বা আমার সংস্থা কোনও ভাবেই নিতে পারি না।”
গত বছর জুলাই মাসে তাঁর বাড়িতে হওয়া একটি পার্টির ভিডিয়ো ক্লিপ ছড়িয়ে পড়ার পরেই বলিউডে মাদকযোগ নিয়ে উঠতে থাকে বিভিন্ন প্রশ্ন। সেই ভিডিয়োতে দেখা যায় দীপিকা পাড়ুকোন, বরুণ ধওয়ন, রনবীর কপূর, ভিকি কৌশলের মতো ‘এ-লিস্টার’দের। সুশান্তের মৃত্যুর তদন্ত মাদকাসক্তির অভিমুখ নেওয়ার পর, আরও একবার সেই পুরনো ভিডিয়ো ঘুরপাক খেতে শুরু করে সোশ্যাল মিডিয়ায়।  উঠতে থাকে নানা প্রশ্ন। পরিবারকে নিয়ে ছুটি কাটাতে গোয়ায় গিয়েছিলেন কর্ণ। এনসিবি কি সমন পাঠাবে তাঁকেও? চুপ বলিউড।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন