ফিল্ম রিলিজ হবে ২০ ডিসেম্বর। ট্রেলার লঞ্চ হয়েছে মাত্র চার দিন আগে। আর তাতেই বিতর্কে শাহরুখ খান-এর ‘জিরো’। শিখ সম্প্রদায়ের রোষের মুখে পড়েছেন পরিচালক আনন্দ এল রাই এবং কিং খান। ট্রেলার বন্ধ করার দাবি জানিয়ে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছেন দিল্লির শিরোমণি অকালি দলের বিধায়ক মনজিন্দর সিংহ সিরসা। পাশাপাশি প্রোমো এবং ফিল্ম থেকে ওই অংশ বাদ দেওয়ার দাবিও তুলেছেন বিধায়ক। একই অভিযোগ পাঠিয়েছেন সেন্সর বোর্ডেও। দাবি না মানলে সিনেমা হলে বিক্ষোভ দেখানো এবং ছবি দেখানো বন্ধ করে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন তিনি।

ট্রেলারের একটি দৃশ্যে শাহরুখের পোশাক নিয়ে আপত্তি তুলেছে শিখ সম্প্রদায়। এক সেকেন্ডেরও ভগ্নাংশ সময়ে একটি দৃশ্যে শাহরুখ শর্টস পরে দৌড়চ্ছেন। কিন্তু তাঁর গায়ে রয়েছে শিখদের ধর্মীয় আচরণের প্রতীক ‘গাত্র কৃপাণ’। এতেই আপত্তি শিখদের। বিধায়ক মনজিন্দর দিল্লির শিখ গুরুদ্বার ম্যানেজমেন্ট কমিটির সাধারণ সম্পাদকও। তাঁর বক্তব্য, ওই দৃশ্যটি শিখ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছে। তাই ওই দৃশ্য ট্রেলার এবং ছবি থেকে বাদ দেওয়া হোক।

অভিযোগপত্রে মনজিন্দর লিখেছেন, ‘‘এই দৃশ্যটি নিয়ে সারা বিশ্বের শিখ সম্প্রদায়ের মধ্যেই ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। বহু শিখ সংগঠনের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়েছি। সবারই অভিযোগ, তাঁদের ধর্মাচরণের রীতিতে আঘাত করেছে ওই দৃশ্য।’’ এর পরই পুলিশকে অভিযোগ লিপিবদ্ধ করার নির্দেশ দেন বিধায়ক।

আরও পড়ুন: নারীর পবিত্রতা কি যোনিতেই সীমাবদ্ধ ? শবরীমালা বিতর্কে বিস্ফোরক অভিনেত্রী

আরও পড়ুন: নতুন খবর দিলেন শুভশ্রী!

শিখ ধর্ম অনুসারে ‘অমৃতধারী’ বা একমাত্র ধর্মপ্রাণ শিখরাই এই ‘কৃপাণ’ বা ‘ছুরি’ পরতে পারেন। বিধায়কের অভিযোগ, সিনেমায় সেরকম কিছু দেখানো হয়নি।  সেই কারণেই এই পদক্ষেপ। শাহরুখকে পাঠানো চিঠিতে তাই তিনি লিখেছেন, ওই দৃশ্য ছবি থেকে বাদ না দিলে রিলিজের পর হলে হলে শিখ সম্প্রদায়ের মানুষজন বিক্ষোভ দেখাবেন। ছবির প্রদর্শন বন্ধ করার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন বিধায়ক।