×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৪ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

‘সব কিছু সামলানোরই আইনি পথ রয়েছে’

সায়নী ঘটক
কলকাতা ২১ ডিসেম্বর ২০২০ ০৫:১৪
রিচা।

রিচা।

নব্বইয়ের দশকের শেষ দিকের অ্যাডাল্ট স্টার শাকিলা এখন মধ্য চল্লিশ। তিনি খুশি, জীবদ্দশাতেই তাঁর বায়োপিক হচ্ছে বলিউডে, অভিনয়ে রিচা চড্ডা। সিল্ক স্মিতা-পরবর্তী তারকা শাকিলাকে মানুষ যতটা ভালবেসেছেন, তিনি ঘৃণাও কুড়িয়েছেন ততটাই। এমন এক বর্ণময় চরিত্রকে পর্দায় ফুটিয়ে তোলাটা বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিল রিচার কাছে। তাঁর কথায়, ‘‘বাস্তবের মানুষটিই আমার সবচেয়ে বড় রেফারেন্স পয়েন্ট ছিল। ছবিটা ওঁর আত্মজীবনী-নির্ভরই। যদি এই ছবিটা দর্শকের কাছে পৌঁছনোর ফলে ওঁর কোনও উপকার হয়, তা হলে সত্যিই খুশি হব।’’

ক্রিসমাসে বড় পর্দায় মুক্তি পাচ্ছে ‘শাকিলা’। ‘‘ছবিটা যে মুক্তি পাচ্ছে, এতেই আমি খুশি। দর্শক কী ভাবে ছবিটা নেবেন, সেটা পরের কথা,’’ মত রিচার। ছবিতে রয়েছেন পঙ্কজ ত্রিপাঠীও। ‘‘যতবারই ওঁর সঙ্গে কাজ করি, মনে হয় প্রথম বার কাজ করছি। সেই ‘গ্যাংস অব ওয়াসেপুর’ থেকে শুরু,’’ বললেন রিচা।

‘গ্যাংস অব ওয়াসেপুর’ প্রসঙ্গ আসতেই উঠে এল অনুরাগ কাশ্যপ সম্পর্কিত সাম্প্রতিক বিতর্কের কথাও। পরিচালকের বিরুদ্ধে #মিটু-র অভিযোগ প্রসঙ্গে রিচার নাম টেনে আনেন অভিনেত্রী পায়েল ঘোষ। অনুরাগের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার কারণেই নাকি রিচা তাঁর ছবিতে সুযোগ পেয়েছেন— এমনই অভিযোগ ছিল পায়েলের। এ প্রসঙ্গে রিচা বললেন, ‘‘এ সব ক্ষেত্রে আমি একটাই উপায় অবলম্বন করি। সেটা হল আইনি রাস্তা। এই বিষয়ে কেস জিতেও গিয়েছি। কেউ এসে বাজে কথা বলে যাবে, আর সেটার কোনও প্রতিক্রিয়া হবে না, তা তো হতে পারে না,’’ ক্ষোভ রিচার কণ্ঠে। ট্রোলিংও একই ভাবে কড়া হাতে সামলান তিনি। ‘‘দেশে বেকারত্ব বেড়ে গিয়েছে, লোকের হাতে কাজ কম। তাই অনেকেই বসে বসে কমেন্ট করেন। সোশ্যাল মিডিয়া আরও বাড়িয়ে দিয়েছে এ সব। এর ফলে শুধু আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতেই নয়, সব ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। তবে সব কিছু সামলানোরই আইনি পথ রয়েছে,’’ স্পষ্ট জবাব তাঁর।

Advertisement

তবে ব্যক্তিগত পরিসরে রিচা একজন ‘হ্যাপি পার্সন’। পার্টনার আলি ফজ়লের সঙ্গে সদ্য নতুন ফ্ল্যাটে শিফট করেছেন নায়িকা। অতিমারির কারণে তাঁদের বিয়ে পিছিয়ে গিয়েছে। ‘‘যত দিন না ভ্যাকসিন আসছে, এ নিয়ে কিচ্ছু ভাবতে পারছি না,’’ বললেন রিচা। দু’জনে মিশরে ঘুরে এসেছেন সম্প্রতি, এক চলচ্চিত্র উৎসবে যোগ দেওয়ার ফাঁকে। ‘‘অনেক দিন পরে বেরিয়ে ভাল লাগল। তবে নিতান্ত দরকার না থাকলে এই সময়ে বেড়ানোও উচিত নয়। ফেস্টিভ্যাল কমিটিকে কথা দিয়ে ফেলেছিলাম বলে যেতে হয়েছিল। এক সপ্তাহে তিন-চার বার কোভিড টেস্ট করাতে হয়েছিল আমাদের।’’

‘মির্জ়াপুর’-এর গুড্ডু ভাইয়াকে (আলি ফজ়ল) নিয়ে ইনস্টাগ্রামে মিম শেয়ার করলেও নিজের পছন্দের ওয়েব সিরিজ় হিসেবে ‘স্ক্যাম ১৯৯২’, ‘পাতাললোক’-এর নাম করলেন রিচা। আগামী সপ্তাহ থেকে নতুন সিরিজ়ের কাজ শুরু করছেন তিনি। তাঁর আগামী রিলিজ়ও আর একটি জীবনীমূলক ছবি, ‘ম্যাডাম চিফ মিনিস্টার’, মায়াবতীকে নিয়ে।

Advertisement