• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কেন এই সব স্টারকিডরা আমাদের মত বহিরাগতদের স্বপ্ন দেখিয়ে ছেড়ে চলে যায়: কঙ্গনা 

main
হৃতিক এবং কঙ্গনা।

আবারও কঙ্গনার মুখে হৃতিকের নাম। সুশান্ত মৃত্যু তদন্ত প্রসঙ্গে টেনে আনলেন তাঁর এবং হৃতিকের সেই বহুল চর্চিত প্রেমের প্রসঙ্গ। নাম জড়াল সারা আলি খানেরও। কঙ্গনার প্রশ্ন, “বহিরাগতদের রঙিন স্বপ্ন দেখিয়ে এই সব স্টারকিডরা হঠাৎ দূরে সরিয়ে দেন কেন?

বৃহস্পতিবার সকালেই সুশান্তের ঘনিষ্ঠ বন্ধু স্যামুয়েল সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন, ‘কেদারনাথ’ ছবির শুটিংয়ের সময়ে নাকি সারা এবং সুশান্ত দু’জন দু’জনের প্রেমে পাগল ছিলেন। তাঁদের ভালবাসা ছিল নিখাদ। কিন্তু সুশান্তের ছবি ‘সোনচিড়িয়া’ বক্সঅফিসে মুখ থুবড়ে পড়লেই নাকি তাঁদের সম্পর্ক ভেঙে যায়। বলিউড মাফিয়াদের জন্য? প্রশ্ন করেছেন স্যামুয়েল।

সেই প্রসঙ্গ টেনে এনেই কঙ্গনা বলছেন, “আউটডোর শুটে তো ওরা এক ঘরেও থাকত। ওদের প্রেমের খবর সে সময় শিরোনামে। কেন এই সব স্টারকিডরা আমাদের মত আউটসাইডারদের স্বপ্ন দেখিয়ে  ডাম্প করে দেয়?” এখানেই থামেননি কঙ্গনা। তিনি আরও বলেছেন, “আমি বিশ্বাস করি সারা সুশান্তকে সত্যিই ভালবেসেছিল। যদি তা না হত তবে সুশান্ত এতটা বোকা ছিল না যে সারার প্রেমে পড়ে যেত। কিন্তু কেন ব্রেকআপ করল সারা? কার চাপে?”

তাঁর আর হৃতিকের সেই বহু আলোচিত প্রেমের আখ্যান টেনে এনে কঙ্গনার খোঁচা, “আমার হৃতিকের প্রতি যা ছিল তা একেবারেই খাঁটি। সে বিষয়ে সন্দেহ নেই। ও যে কেন আমাকে হঠাৎ শত্রু ভেবে বসল আমার কাছে সেটাই আশ্চর্যের।

কঙ্গনা এবং হৃতিকে প্রেমের সেই মোস্ট হাইপড কিসসার সূত্রপাত হয় ২০১৬-তে। ‘আশিকি ৩’ থেকে বাদ দেওয়া হয় কঙ্গনাকে। এক সাক্ষাৎকারে তাঁকে সে ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে কঙ্গনা বলেন, তাঁর এক প্রাক্তন ইচ্ছে করে এ সব করছে। তাঁকে জনসমক্ষে ‘সিলিএক্স’ বলেও উল্লেখ করেন কঙ্গনা। এখানেই শেষ নয় অচিরেই তাঁর সেই ‘সিলি এক্স’-এর নাম প্রকাশ্যে আনেন কঙ্গনা। তিনি বলেন, সেই প্রাক্তন আর কেউ নন রোশন পরিবারের 'হ্যান্ডসাম হাঙ্ক' হৃতিক রোশন। এর পর দুই পক্ষের মধ্যে বিস্তর কাদা ছোড়াছুড়ি। আইনি নোটিস।

এক দিকে হৃতিক কঙ্গনার সঙ্গে কোনও সম্পর্কের কথা অস্বীকার করেন অন্য দিকে কঙ্গনা নাছোড়বান্দা। হৃতিকের আইনজীবী বলেন হৃতিককে নাকি নিজের নগ্ন ছবি পাঠিয়ে অশালীন ইঙ্গিত দিয়েছেন কঙ্গনা। কঙ্গনা বলেন, তাঁদের মধ্যে সম্পর্কের গভীরতা এতটা ছিল বলেই পাঠিয়েছিলেন। বলিউড রাতারাতি ভাগ হয়েছিল দু’ভাগে। সে অনেক দিনের ব্যাপার। হৃতিক আর কঙ্গনার এখন মুখ দেখাদেখি বন্ধ। সুশান্ত কাণ্ডে হৃতিককে টেনে এনে কী বার্তা দিতে চাইলেন কঙ্গনা? উঠছে প্রশ্ন।  

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন