তিনি আর তাঁর বাইক।সুযোগ পেলেই একা একা বাইক নিয়ে লম্বা ভ্রমণে বেরিয়ে পড়েন সব্যসাচী চৌধুরী ওরফে‘মহাপীঠ তারাপীঠ’-এর বামাক্ষ্যাপা।এ বছর ঘুরে এলেন উত্তরবঙ্গ ও ভুটানের বেশ কিছু জায়গা।কেমন হল তাঁর বাইক ভ্রমণ?

উচ্ছ্বসিত সব্যসাচী:“একবার লাটাগুড়িতে একটা রিসর্টে ছিলাম। এ বছর আমি যাব শুনেই রিসর্টের মালিক তাঁর বাড়ি শিলিগুড়িতে থাকার অনুরোধ করেন।তাঁর আত্মীয়স্বজন, পরিচিত... কাউকেই চিনতাম না। কিন্তু এত ভাল সবাই। আমাকে ঘুরে ঘুরে সব দেখিয়েছেন।”

বেড়াতে গিয়েও কি বামাক্ষ্যাপা হয়েই থাকলেন? তিনি বললেন, “খানিকটা।ভুটান ইমিগ্রেশনে বা পারোর টাইগার নেস্টে যখন ট্রেক করছি তখনও প্রচুর বাঙালি চিনতে পারছে,রীতিমতো প্রণাম করছে।”

আরও পড়ুন- ফের একবার ‘চোলি কে পিছে’ নেচে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুললেন মাধুরী, দেখুন সেই নাচ

 

আরও পড়ুন-শুরু হল ২৫তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, নেতাজি ইন্ডোরে চাঁদের হাট

পাহাড়ের কোলে সব্যসাচী

তিনি যোগ করলেন, “মজার বিষয়, পেমা, আমার গাড়ির ড্রাইভার বলছে, ‘আপ যাঁহা পে ভি যা রাহে হ্যায় লোগ ফটো কিউ খিঁচ রাহা হ্যায়?’ হা হা হা... অনেক কষ্ট করে ওকে বোঝাতে হল, আমি বামাক্ষ্যাপা করি।”

আপনার বাইক? সব্যসাচী বললেন, “ভুটানে বাইকে ঘোরার পারমিশন পাইনি। গাড়িতে ঘুরতে হল।পেমা ওখানকার পপুলার লোকাল কুইজিন খাওয়ালো।রেড রাইস, চিকেন পা, সাদা রঙের একটা দইয়ের ড্রিঙ্ক টেস্ট করেছি। ওখানকার মানুষ অতিথিকে ভগবানের মতো ট্রিট করে। অ্যাকচুয়ালি আমি ভ্যাকেশনে যেতে পছন্দ করি না। আই লাইক এক্সপ্লোরিং।”