• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

শাহরুখের ভূতের গল্প তৈরির প্রতিযোগিতায় জয়ী মানিকতলার অভিজিৎ

SRK
শাহরুখ খা। ফাইল চিত্র।

লকডাউনে নতুন প্রজন্মকে উৎসাহ দিতে শাহরুখ খান শুরু করেছিলেন ‘স্পুক এসআর কে প্রতিযোগিতা’। ভূত নিয়ে এই প্রতিযোগিতায় শাহরুখ আর তাঁর বিচারকমণ্ডলীকে ভয় দেখাতে পারলেই আপনার ফোনে হোয়াটসাঅ্যাপ কলে হাজিরা দেবেন স্বয়ং শাহরুখ, গল্প করবেন এই প্রতিযোগিতায় জয়ীদের সঙ্গে। ‘রেড চিলিজ’-এর এই প্রতিযোগিতায় নিয়মও ছিল বেশ কড়া। লকডাউন মেনে বাড়ির বাইরে যাওয়া যাবে না। পরিচালককেও অভিনয় করতে হবে। শাহরুখ লিখেছিলেন, “ভাল ভূতের ছবি কে না পছন্দ করে?” লকডাউনের সময় এই ছোট ছবির মেকিং-এ ভৌতিক ভাবনা উস্কে দিয়েছিলেন শাহরুখ।

শাহরুখের এই চ্যালেঞ্জ লুফে নিলেন কলকাতার মানিকতলার যুবক অভিজিৎ অশোক পাল। বরোদায় আর্ট কলেজের ছাত্র অভিজিৎ চিত্রকলা নিয়ে পড়াশোনা করলেও ফিল্ম মেকিং, অ্যানিমেশনের প্রতি তাঁর প্যাশন তাঁকে চলচ্চিত্রমুখী করে তোলে। “বাড়িতেই আমার দাদার দুই ছেলে, ৫ বছরের জোয়ার আর সাড়ে ৩ বছরের ফাগুনকে দিয়ে অভিনয়ের কথা ভাবি। দাদাকে ক্যামেরা ধরতে অ্যাঙ্গেল শেখাই। তারপর কিছুটা মোবাইল আর কিছু ক্যামেরা দিয়ে শুট করি”,বললেন অভিজিৎ।

হাতে সাত দিন মাত্র সময় ছিল তাঁর। এক পেন্সিল নিয়ে লিখে ফেললেন গল্প। বাচ্চা আর তার আঁকা শেখার মাস্টারমশাইকে ঘিরে পেনসিল ভূত হল, নাকি বাচ্চার আঁকা ছবিই শিক্ষককে ভূত হয়ে ভয় দেখিয়ে বেড়াল? সেটা দেখার জন্য দেখতে হবে পনেরো মিনিটের ‘পেন্সিল।’ নিজেই এডিট করে কপিরাইট অনুসারে মিউজিক বসিয়ে রেড চিলিজ-এর কাছে শর্টফিল্ম পাঠিয়ে দেন অভিজিৎ।

অভিজিৎ অশোক পাল।

আরও পড়ুন: প্রথমবার বেসরকারি উদ্যোগে মহাকাশে দুই নভশ্চর, সঙ্গে গেল এক ডাইনোসর

কী ভেবেছিলেন?

“কিছু ভাবিনি। অনেক বার অনেক ভাবে চিত্রনাট্য নিয়ে বিভিন্ন জায়গায় পৌঁছেছি। ঘুরেছি। কিন্তু ফল কিছু হয়নি!” ক্ষোভের সঙ্গে বললেন অভিজিৎ। আচমকাই কাল রেড চিলিজ-এর পক্ষ থেকে মেল এসে পৌঁছয় অভিজিতের মানিকতলার বাড়িতে। আকাশের চাঁদ ছোয়ার মতো আনন্দ পরিবারে। মেলে জানানো হয়, ‘এস আর কে স্পুক’ প্রতিযোগিতায় কিছু সংখ্যক জয়ীর সঙ্গে অভিজিৎও জয়ী হয়েছেন।

পেন্সিসল-এর পোস্টার।

আরও পড়ুন: বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম করোনা আক্রান্ত দেশে গাড়িতেই বিয়ে সেরে নিল ১৫ যুগল

কী বলবেন শাহরুখ খানকে?

“জানি না, প্রথমে হয়তো কথা বলতে পারব না। শুনবো, তারপর যে স্বপ্নগুলো চিত্রনাট্যের পাতায় এতদিন বন্দি হয়ে আছে, আমার হতাশা যাদের গ্রাস করেছে তাদের কথা ওঁকে বলব”, আবেগ অভিজিতের গলায়। তাঁর মনে হয়েছে, বাবার কথা না শুনে সেই ছোটবেলায় ক্লাস ফাঁকি দিয়ে আঁকতে বসে যাওয়া, কলেজে না গিয়ে মিউজিয়ামে পালানোর দিনগুলো আজ যেন সার্থক হল! এ বার কিং খানের মুখোমুখি হওয়ার অপেক্ষায় মানিকতলার অভিজিৎ।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন