×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২০ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

শখ-এর প্রাণ গড়ের মাঠ

২৯ ডিসেম্বর ২০১৪ ০১:০০

বেশি দিন আগের কথা নয়। জমিদাররা লক্ষ টাকা খরচ করে পোষ্যদের বিয়ে দিতেন। দুর্গাপুজোয় লখনউ-এর কোঠা থেকে সেরা বাইজি এসে কোন ধনী মানুষের নাটমন্দিরে নাচবে, তা নিয়েও চলত প্রতিযোগিতা। সমঝদারদের শখের কোনও কালেই অভাব ছিল না।

প্রজেক্ট ম্যানেজার অরূপ বাগচী বলছিলেন তাঁর দেশ-বিদেশের স্ট্যাম্প কালেকশনের শখের কথা। আমেরিকার বড় পিসি প্রচুর স্ট্যাম্প পাঠাতেন তাঁকে। নিজে জোগাড় করতেন তার থেকেও বেশি। বললেন, “২০১৪-য় কে স্ট্যাম্প কালেকশন করছে খুঁজে দেখুন তো দেখি!” স্ট্যাম্প কালেকশনের জায়গা নিয়েছে গ্যাজেট কালেকশনের শখ। এ প্রজন্মের অত্যন্ত প্রিয় শখ এটা। ট্রেন্ডি আই-ওয়্যার থেকে স্মার্টফোন, হোম থিয়েটার থেকে লেটেস্ট মিউজিক সিস্টেম— কী নেই সে তালিকায়!

Advertisement



কর্পোরেটে কাজ করা অভিরূপের খুব পছন্দের শখ ভয়েস ওভার দেওয়া বা ডাব করা। জানালেন, “আমি বেশ কিছু স্টুডিয়োতে ভয়েস ওভারের কাজ করেছি। এটা আমার বেশ প্রিয় একটা হবি।”

বালিশে মুখ গুঁজে বই পড়ার দিন শেষ। ইন্টারনেটের কল্যাণে রেয়ারেস্ট অব দ্য রেয়ার ছবি টরেন্ট থেকে ডাউনলোড হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে পেন ড্রাইভ থেকে পেন ড্রাইভে। কাজেই কুরোসাওয়া বা রেঁনোয়া বা ইঙ্গমার বার্গম্যান কী স্ট্যানলি কুব্রিক— এ আর শুধুমাত্র আঁতেলদের আলোচনার বিষয় নয়। ওয়ার্ল্ড মুভি বিলাসও এ প্রজন্মের মস্ত এক শখ।

পছন্দের সেলিব্রিটির সঙ্গে হঠাত্‌ দেখা কোনও এক ফাংশনে। তার পর অধীর আগ্রহে অপেক্ষা শেষে সেই ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ সই সংগ্রহ করার হুজুগ এখন আর কোথায়! তার জায়গায় হাতের স্মার্টফোন বের করে ঝপাঝপ নিজেদের ছবি তুলে নিয়ে ফেসবুকে বা ট্যুইটারে পোস্ট করে দেওয়া আর লাইক পাওয়ার অপেক্ষাই এই প্রজন্মের নতুন শখ।

এই ২০১৪-র শেষে দাঁড়িয়েও পুরনো জিনিসের ভিড়ে খুঁজলে পেয়ে যেতে পারেন ‘অবসোলিট’ হয়ে যাওয়া কিছু ক্যাসেট প্লেয়ার আর গুচ্ছখানেক ক্যাসেট। স্কুলশিক্ষিকা সুদেষ্ণা বললেন, “আমার ক্যাসেটগুলো সব নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। উফ্, নতুন ক্যাসেট কেনার মজাই অন্য রকম ছিল। সিডি কিনে কিন্তু সেটা পাই না।” সেই শখের জায়গা নিয়েছে ফ্রিকোয়েন্ট ফ্লায়ার মাইলস কালেকশন। কাজে বা বেড়াতে প্রায়ই যাঁদের এই শহর, ওই দেশ দৌড় মারতে হয়, তাঁরা নিজেদের পছন্দের এয়ারলাইন্সে এই মাইলসগুলো কিনে রাখলে এয়ারফেয়ারের ওপর খুব ভাল ছাড় পেয়ে যান। এই শখটা যে তাই ষোলো আনা পকেট বাঁচায়, তা বলাই বাহুল্য!



কারণে অকারণে মার্কেটিং করা এ প্রজন্মের অন্যতম সেরা শখ। শুধু নিউ মার্কেট, গড়িয়াহাট কেন? শহরের আনাচে কানাচে বিভিন্ন শপিং মলে বছরভর সেল। অ্যাকসেসরি-ঘর সাজানোর জিনিস-খাবারদাবার— কেনাকাটার লিস্টটা বড়ই দীর্ঘ। তার উপর বিভিন্ন সময় স্টক ক্লিয়ারেন্স সেল। ২০ শতাংশ-৫০ শতাংশ ছাড়! এই শখের শুরু আছে। কিন্তু শেষ কোথায়!

নিজের আস্তানাটাকে রুচিসম্মত ভাবে সাজানোটাও কিন্তু এখনকার একটা খুব প্রিয় শখ। কুশন কভারটা কেমন হবে, জানলার পর্দায় ববি প্রিন্ট না সাইকিডেলিক প্রিন্ট হবে, ওয়ার্ড্রোবটা কোথায় প্লেস করা যায়, — শখের যেন শেষ নেই। মোটর স্পার্টস ব্যবসায়ী অমিত দাস তাঁর ড্রইংরুমটা সাজিয়ে ফেলেছেন নিজের তোলা নানা ছবি দিয়ে। বললেন, “ছবি ছাড়াও ঢোল, ড্রাম, একতারা দিয়েও ঘর সাজাই আমি।”

পুরনো শখের ভিড়ে উঁকি মারে ডায়েরি লেখার সেই অভ্যেস। ডায়েরিতে জমা হত সুখদুঃখের অনেক গোপন কথা। আইপ্যাড, নোট-থ্রি, ডিজিটাল ডায়েরি এখন দখল করে নিয়েছে ডায়েরির নস্ট্যালজিক সেই জায়গা। রিসার্চ স্কলার রনিতা যেমন বললেন, “আমার একটা খুব প্রিয় ডায়েরি ছিল। সেই ডায়েরিতে জীবনের উল্লেখযোগ্য সব ঘটনা লিখে রাখতাম। ইদানীং ল্যাপটপে নোট সেভ করে হাতে লেখার সেই আরামটা আর পাই না।”

ইউনিভার্সিটির বনলতা সেন বা অবনীরা হয়তো এখনও আছে।

কিন্তু ঝোলা ব্যাগ কি আর সে ভাবে কলেজ ক্যাম্পাস বা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে এখনও সে ভাবে দেখা যায়? কবিতা, গান, এক নিখাদ বাঙালি মননের সঙ্গে ঝোলা ব্যাগের গভীর যোগাযোগ আজ কোথায় যেন হারিয়ে গিয়েছে!

বছরশেষে বাঙালির পিঠে এখন রকমারি ব্যাকপ্যাক। কাঁধে চাপ পড়ে না। আঁতেল সাজার দায়টাও থাকে না। তবে যা-তা জিনিস নয়। ব্র্যান্ডেড ব্যাকপ্যাক না হলে মন ভরবেই না এ প্রজন্মের।

বছর তো প্রায় শেষ। প্রতি বছরই নতুন নতুন শখের ভিড়ে পুরনো কিছু শখ হারিয়ে যায়। অপেক্ষা তাই আগামী বছরের। নতুন কোনও শখের।

আগের সেরা দশ

২০১৪-র সেরা দশ

• অটোগ্রাফ কালেকশন

• স্ট্যাম্প কালেকশন

• কয়েন কালেকশন

• এল.পি রেকর্ড কালেকশন

• খেলোয়াড়দের ছবি দেওয়া স্টিকার-পেপার কাটিং জমানো

• ক্যাসেট প্লেয়ারে গান শোনা

• দেশলাই বাক্সের উপরের স্টিকার জমানো

• গুলি/লাট্টু জমানো

• অ্যাসটেরিক্স, টিনটিন, আর্চিস, নন্টে-ফন্টে কমিকস্‌ জমানো

• স্টারদের সঙ্গে সেলফি তোলা

• আই ফোনের ব্যাক কভার জমানো

• নতুন ভাষা শেখা

• থ্রিডি পেন্টিং

• সালসা নাচ

• ব্লগিং/ হাইকিং

• অভিনয় শেখা/ ভয়েস ওভার দেওয়া বা ডাব করা

• বারটেন্ডিং, ককটেল-মিক্সিং (শখ যা পরে পেশা হয়ে যায়)

• বিভিন্ন কুইজিন নিজের হাতে রাঁধা

Advertisement