×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৪ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

বিনোদন

ইন্ডাস্ট্রিতে এত দিন একসঙ্গে থাকা সত্ত্বেও ভট্ট পরিবারের সঙ্গে কোনও কাজ করেননি সলমন, কেন জানেন?

নিজস্ব প্রতিবেদন
২৪ নভেম্বর ২০২০ ২১:৪৬
সলমন খান এবং মহেশ ভট্ট-- দু'জনের পরিবার বলি ইন্ডাস্ট্রিতে বহু দিন ধরেই নিজেদের আধিপত্য বিস্তার করে রয়েছে। অথচ এটা ভেবে অবাক হতে হয়, এখনও ভট্ট পরিবারের কারওর সঙ্গে সলমন কোনও কাজ করেননি।

সলমনের এখনও পর্যন্ত তাঁর কোনও ছবিতে আলিয়া ভট্টকে নেননি। আবার এখনও পর্যন্ত তিনি কোনও ছবিতে দিদি পূজা ভট্টের সঙ্গেও অভিনয় করেননি। এমনকি, মহেশ ভট্টের পরিচালনায়ও কোনও ফিল্ম করেননি।
Advertisement
বলি ইন্ডাস্ট্রিতে সলমনের সম্পর্কে বলা হয় যে, তিনি যাঁদের পছন্দ করেন না তাঁরা সলমনের সামনে টেবিল, চেয়ার, সোফার মতো। অর্থাৎ অপছন্দের লোকেদের সলমন কোনও গুরুত্ব দেন না।

তবে ভট্ট পরিবারের ক্ষেত্রে বিষয়টি একেবারেই তা নয়। ভট্ট পরিবারের সঙ্গে কাজ না করার পিছনে আসলে লুকিয়ে রয়েছে অন্য কারণ।
Advertisement
সলমনের বাবা সেলিম খান কিন্তু মহেশ ভট্টের সঙ্গে অনেক কাজ করেছেন। সলমন যখন বলিউডে আসেন, সে সময় মহেশের বড় মেয়ে পূজাও বলিউডে পা রাখেন।

সলমন এবং পূজা দু'জনকেই দর্শক পছন্দ করেছিলেন। দর্শকদের কাছে পূজা ছিলেন হট এবং বোল্ড নায়িকা। এই বিষয়টা পছন্দ ছিল না খান পরিবারের।

তার উপর বলিউডে পা রাখার পর থেকেই একটার পর একটা বিতর্কে জড়িয়ে যাচ্ছিল পূজার নাম।

কখনও বাবা মহেশের সঙ্গে লিপ লক করে ফোটোশ্যুট, কখনও তাঁর ন্যুড ফটো। এবং তার উপর ড্রাগের নেশায় আসক্ত হয়ে পড়েছিলেন পূজা।

এই সমস্ত বিতর্ক ছাড়া আরও একটি সমস্যা ছিল। সব সময়েই সহ অভিনেতাদের সঙ্গে পূজার নাম জড়িয়ে বিবিধ গসিপ বাজারে চলত।

সেলিম খান চাইতেন না, তাঁর ছেলে পূজার সঙ্গে ফিল্ম করুক এবং কোনও ভাবে ছেলের নামও বিতর্কে জড়িয়ে যাক।

তবে একটা সময় সলমন এবং পূজার একসঙ্গে ফিল্ম করার কথাও চলছিল। সেই ফিল্মে পরিচালনায় হাতেখড়ির কথা ছিল সলমনের ভাই সোহেলের।

পূজাকে এই ফিল্মে নেওয়ার কথা যখন চলছিল, তখনও সেলিম খান তাঁকে বাদ দেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। কারণ ওই ফিল্মে তাঁর দুই ছেলে যুক্ত ছিলেন তাই সেলিম খান একেবারেই চাইছিলেন না তাঁর কোনও এক ছেলের সঙ্গে পূজার নাম জড়িয়ে যাক।

তা সত্ত্বেও ওই ফিল্ম ‘রামা’-র শ্যুটিং শুরু হয়। কিন্তু প্রায় অর্ধেক কাজ হয়ে যাওয়ার পর হঠাৎই ফিল্মের শ্যুটিং বন্ধ করে দেওয়া হয়। শোনা যায়, সোহেল নাকি পূজার সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। সেই জন্যই ফিল্মটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

এর পর আর পূজার সঙ্গে কোনও ফিল্মের প্রস্তাব পাননি সলমন। কারণ সলমন যখন একদিকে সুপার স্টার হয়ে উঠলেন, সেখানে পূজা ক্রমে পরিচালনা এবং প্রযোজনার দিকে সরে গিয়েছিলেন।

আর রইল মহেশ ভট্টের সঙ্গে ফিল্ম না করার বিষয়। মহেশ যে ধরনের ফিল্ম বানিয়ে থাকেন, সলমনের সঙ্গে তা খাপ খায় না। মহেশের ফিল্মের বিষয়বস্তু সলমনের জন্য ঠিক লাগসই নয়।

এ ছাড়াও মহেশ সাধারণত কম বাজেটের ফিল্ম বানান এবং সচরাচর তিনি বড় তারকাদের নেন না।

একই ভাবে আলিয়ার সঙ্গেও সলমন কোনও ফিল্ম এখনও করেননি। পূজার মতো আলিয়ার সঙ্গেও একটি ফিল্ম করার কথা ছিল সলমনের। সেটা ছিল সঞ্জয় লীলা ভন্সালীর  ‘ইনশাল্লাহ’। কিন্তু সঞ্জয় লীলার সঙ্গে মতের অমিলের জন্য এই ছবি থেকে সরে যান সলমন।

আর এই সমস্ত কারণেই কোনও দ্বন্দ্ব না থাকা সত্ত্বেও সলমন কোনও দিন ভট্ট পরিবারের সঙ্গে কাজ করেননি।