Advertisement
০২ ডিসেম্বর ২০২২
Birth Chart

এই সব রাশির মানুষ সব কাজে দেরি করে ফেলেন

আমরা আমাদের চারপাশে দু’ধরনের মানুষ দেখি। এক দল যাঁরা একেবারেই কোনও কাজ ফেলে রাখতে চান না।

প্রতীকী চিত্র।

প্রতীকী চিত্র।

শ্রীমতী অপালা
শেষ আপডেট: ১৪ জুলাই ২০২২ ০৮:২১
Share: Save:

অফিস হোক বা বাড়ি, সময়ের কাজ যদি সময়ে না শেষ করা যায় তা হলে খুবই সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে। এর ফলে কাজ জমতে থাকে এবং সেই কাজ কখন শেষ হবে তা ভেবে ওঠা যায় না। আমরা আমাদের চারপাশে দু’ধরনের মানুষ দেখি। এক দল যাঁরা একেবারেই কোনও কাজ ফেলে রাখতে চান না। আর এক দল যাঁরা কাজ ফেলে রাখতে পারলেই বেশি খুশি হন। অর্থাৎ সব কাজে দেরি করেন। কয়েকটা রাশির মানুষ রয়েছেন যাঁরা দেরির তালিকায় একেবারে উপরের দিকে থাকে।

Advertisement

বৃষ– বৃষ রাশির মানুষরা যে কোনও কাজ দেরি না করে করতে পারে না। কাজ শেষ করা তো দূরের কথা, শুরু করতেই এঁদের দিন কেটে যায়। তবে এঁরা যদি কোনও কাজ করবেন বলে ভেবে ফেলেন, তা হলে তা করে তবে নিঃশ্বাস নেন।

কন্যা– এই রাশির জাতকরা সব কাজ করতে চান নিখুঁত ভাবে। কারও কাজ এঁদের পছন্দ হয় না। নিজের হোক বা অপরের, কাজে ভুল এঁরা একেবারেই মানতে পারেন না। তাই অতিরিক্ত নিখুঁত কাজ করতে গিয়ে সব কাজে দেরি করে ফেলেন।

তুলা– তুলা রাশির মানুষরা নিজের জন্য কাজ করেন। অন্যকে দেখানোর জন্য এঁরা কাজ করতে পছন্দ করেন না। তাই সময়ে কাজ শেষ করার ব্যাপারটা এঁদের মধ্যে খুব কম থাকে। তবে এঁরা অলস নন।

Advertisement

ধনু– কোনও বিষয়ে মনঃসংযোগ করা এঁদের পক্ষে খুব কষ্টকর। মন স্থির নয়, তাই কোনও কাজ মন স্থির করে করতেও পারেন না এঁরা। ফলে এঁদের সব কাজে দেরি হয়ে যায়।

কুম্ভ– কুম্ভ রাশির মানুষ স্বাধীন ভাবে থাকতে খুব পছন্দ করেন। তাই কোনও দায়িত্বের কাজ করতে এঁরা পছন্দ করেন না। যখন যে কাজ করার ইচ্ছা হয় সেটাই করেন। সেই কারণে সময়মতো কাজ শেষ করে উঠতে পারেন না।

মীন– মীন রাশির মানুষরা স্বপ্নের রাজ্যে ঘুরে বেড়াতে খুবই পছন্দ করেন। তাই বাস্তবে কাজ করাটা এঁদের খুব একটা পছন্দের নয়। স্বপ্নের রাজ্যে বিচরণ করতে গিয়ে সব কাজে দেরি করে ফেলেন। তবে মনের মতো কাজ পেলে খুব একটা দেরি করেন না।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.