×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৫ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

অর্থ তছরুপের ক্লাসিক কেস, বলল সিবিআই, প্রমাণ নেই-উদ্দেশ্য ভিন্ন, পাল্টা সিব্বলের

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি ২২ অগস্ট ২০১৯ ১১:০০
সদর দফতর থেকে পি চিদম্বরমকে নিয়ে আদালতের উদ্দেশে রওনা হয়েছে সিবিআই। ছবি: টুইটার।

সদর দফতর থেকে পি চিদম্বরমকে নিয়ে আদালতের উদ্দেশে রওনা হয়েছে সিবিআই। ছবি: টুইটার।

দীর্ঘ তিন ঘণ্টা জেরার পর দুপুর পৌনে ৩টে ১৫ মিনিট নাগাদ সিবিআই আদালতে পৌঁছন চিদম্বরম। সেখানে আগে থেকেই পৌঁছে গিয়েছেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরমের স্ত্রী নলিনী এবং পুত্র কার্তি চিদম্বরম। সূত্রের খবর, বিচারকের কাছে তদন্তের জন্য চিদম্বরমের ৫ দিনের জন্য হেফাজত চাইল সিবিআই।

রাতভর সিবিআই দফতরে কাটানোর পর বৃহস্পতিবার সকাল থেকে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকে জেরা শুরু করে সিবিআই। বেলা ১২টা পর্যন্ত সেই জেরা চলে। বুধবার রাতে গ্রেফতারের পর রাত ১০টা নাগাদ তাঁকে সিবিআইয়ের সদর দফতরে আনা হয়। রাতেই তাঁর যাবতীয় শারীরিক পরীক্ষাও করা হয়েছে। রাত থেকে সিবিআই গেস্ট হাউজের ৩ নম্বর ঘরে রয়েছেন তিনি। সূত্রের খবর, ২০১১ সালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালীন চিদম্বরমই নিজে হাতে এই ৩ নম্বর ঘরেরর উদ্বোধন করেছিলেন। সে সময় তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন এবং তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহের সঙ্গে সিবিআই দফতর এবং তার লক আপের যাবতীয় সুযোগসুবিধা ঘুরে দেখেছিলেন।

সিবিআই সূত্রের খবর, রাতে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি। আজ, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়। আইএনএক্স মিডিয়ার প্রাক্তন কর্ণধার ইন্দ্রানী মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর বৈঠকের যাবতীয় তথ্য তাঁর কাছে জানতে চায় সিবিআই। তারপর বেলা পৌনে ৩টে নাগাদ তাঁকে নিয়ে আদালতের উদ্দেশে রওনা দেয় সিবিআই।

Advertisement



সিবিআই আদালতের বাইরে কপিল সিব্বল। ছবি: টুইটার।

• সেই কারণেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে, শীর্ষ আদালতে জানাল সিবিআই

• জামিন অযোগ্য ধারায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছিল চিদম্বরমের বিরুদ্ধে

• সিবিআই-এর হয়ে সওয়াল করছেন সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা

এ দিন সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ দিল্লি পৌঁছেছেন চিদম্বরমের ছেলে কার্তিও। শোনা যাচ্ছে, তাঁকে বাবার মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করতে পারে সিবিআই। তবে সিবিআইয়ের ডাকেই তিনি দিল্লি এসেছেন কি না তা জানা যায়নি। দিল্লি বিমানবন্দরে নামার পর সাংবাদিকদের তিনি জানান, কংগ্রেসকে টার্গেট করেই এই গ্রেফতারি। যন্তরমন্তরের সামনে এর প্রতিবাদ করবেন তিনি।


বুধবার দিনভর নাটকের পর রাত সাড়ে ৯টা নাগাদ গ্রেফতার হন চিদম্বরম। আইএনএক্স মিডিয়া দুর্নীতির অভিযোগে তাঁর গ্রেফতারির আশঙ্কা আগেই তৈরি হয়েছিল। মঙ্গলবার দিল্লি হাইকোর্টে তাঁর জামিনের আর্জি খারিজ হয়ে যায়। তারপর থেকেই তাঁর আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। তাঁর বিরুদ্ধে লুকআউট নোটিস জারি করে ইডি। অবশেষে দীর্ঘ ২৭ ঘণ্টা বেপাত্তা থাকার পর বুধবার রাতে প্রকাশ্যে আসেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। বুধবার রাত ৮টা নাগাদ দিল্লিতে কংগ্রেসের সদর দফতরে পৌঁছন তিনি। অভিষেক মনু সিঙ্ঘভি, গুলাম নবি আজাদ এবং কপিল সিবলের সঙ্গে সাংবাদিক বৈঠক করেন। তারপর বাড়ি ফিরে যান। সেই খোঁজ পেয়েই চিদম্বরমের বাড়ির পাঁচিল টপকে ভিতরে ঢুকে চিদম্বরমকে গ্রেফতার করেন সিবিআই আধিকারিকেরা।

আরও পড়ুন: পাঁচিল টপকে পাকড়াও, রাতে সিবিআই জালে চিদম্বরম

আরও পড়ুন: পি চিদম্বরম সম্পর্কে এই তথ্যগুলি জানেন?

Advertisement