×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

আন্দোলন ভাঙতে এ বার এনআইএ অস্ত্র কেন্দ্রের

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ১৭ জানুয়ারি ২০২১ ০২:২৬
ছবি: পিটিআই।

ছবি: পিটিআই।

শুক্রবারই কৃষক নেতারা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের সঙ্গে আলোচনায় সরাসরি অভিযোগ তুলেছিলেন, আন্দোলনে যাঁরা নানা ভাবে সাহায্য করছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে এনআইএ-কে কাজে লাগানো হচ্ছে। এ বার আর আন্দোলনে সাহায্যকারী নন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা যে সংগঠনের প্রতিনিধির সঙ্গে আলোচনায় বসছেন, তার নেতাকেই তলব করল এনআইএ।

‘লোক ভালাই ইনসাফ ওয়েলফেয়ার সোসাইটি’ (এলবিআইডব্লিউএস)-র নেতা বলদেব সিংহ সিরসাকে রবিবার এনআইএ-র সদর দফতরে তলব করা হয়েছে। শুক্রবারই কৃষক সংগঠনগুলির সঙ্গে বিজ্ঞান ভবনে কেন্দ্রের নবম বৈঠকে সিরসার সংগঠনের প্রতিনিধি পূর্ণ সিংহ হাজির ছিলেন। সিরসার বিরুদ্ধে আন্দোলনের নামে দিল্লি সীমানায় বিশৃঙ্খলা তৈরির অভিযোগ উঠেছে। সিরসার অবশ্য বক্তব্য, কৃষক আন্দোলন থেকে নজর ঘোরানোর জন্যই নরেন্দ্র মোদীর সরকার এমন অভিযোগ এনেছে।

কৃষক নেতাদের জন্য বাসের বন্দোবস্ত বা অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করছেন, এমন চার জন পঞ্জাবের ব্যবসায়ীকে এনআইএ আগেই তলব করেছে। শুক্রবার কৃষক নেতারা কেন্দ্রের দিকে অভিযোগ তুললে মন্ত্রীরা কোনও জবাব দিতে চাননি। এনআইএ-র অভিযোগ, আমেরিকায় ‘সন্ত্রাসবাদী’ গুরপতওয়ান্ত সিংহ পান্নুর তৈরি ‘শিখস ফর জাস্টিস’ সংগঠনের সঙ্গে এই সব ব্যক্তিদের যোগাযোগ রয়েছে। সেই মামলায় নাম জড়িয়ে সিরসাকেও তলব করা হয়েছে। কৃষক নেতাদের অভিযোগ, এখনও পর্যন্ত অন্তত ১০ জনকে নোটিস পাঠিয়েছে এনআইএ। কিন্তু তাঁদের সঙ্গে ‘শিখস ফর জাস্টিস’-এর সম্পর্ক নেই। সিরসা সাফ বলছেন, “এর আগে সুপ্রিম কোর্টের মাধ্যমে আমাদের আন্দোলন বানচালের চেষ্টা করেছিল কেন্দ্র। এ বার এনআইএ-র সাহায্য নিচ্ছে তারা।”

Advertisement

আরও পড়ুন: জনতা কার্ফু এবং থালা-বাটি বাজানোর পক্ষে এত দিন পর যুক্তি দিলেন মোদী

আরও পড়ুন: কোভ্যাক্সিনে অসুস্থ হলে ক্ষতিপূরণ দেবে বায়োটেক

অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেণুগোপাল আগেই সুপ্রিম কোর্টে জানিয়েছেন, আন্দোলনকারী কৃষকদের মধ্যে খলিস্তানি অনুপ্রবেশ করেছে। সিরসার বক্তব্য, “কৃষক আন্দোলনকে সাহায্য করছেন এমন অনেককেই এনআইএ ডেকে পাঠাচ্ছে। ২৬ তারিখের কিসান প্যারেড ওরা আটকাতে চায়। ভয় দেখিয়ে আমাদের দমিয়ে রাখা যাবে না।”

এরই মধ্যে আজ সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে ভারতীয় কিসান ইউনিয়ন লোকশক্তি নামে একটি কৃষক সংগঠন। এরাও দিল্লি সীমানায় নয়ডায় নয়া কৃষি আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে। লোকশক্তির অনুরোধ, কৃষকদের ক্ষোভ শোনার জন্য আদালত যে চার সদস্যের প্যানেল গড়ে দিয়েছিল, সেটি যেন নতুন করে গড়া হয়। সম্প্রতি ওই প্যানেলের সদস্য ভূপেন্দ্র সিংহ মান নিজের নাম সরিয়ে নিয়েছেন। সংগঠনটির বক্তব্য, প্যানেলের বাকি তিন সদস্য ইতিমধ্যেই নয়া কৃষি আইনকে সমর্থন জানিয়েছেন। তাই কৃষকদের পক্ষে ন্যায়বিচার পাওয়া সম্ভব নয়। ২৬ তারিখ কৃষকদের ট্র্যাক্টর প্যারেড যাতে না-করতে দেওয়া হয়, সে জন্য ইতিমধ্যেই সুপ্রিম কোর্টের কাছে আবেদন জানিয়েছে কেন্দ্র। প্রধান বিচারপতি এস এ বোবডের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ আগামী ১৮ জানুয়ারি সেই মামলা শুনতে রাজি হয়েছে। তবে কেন্দ্রের সেই আর্জি খারিজ করার আবেদন জানিয়েছে লোকশক্তি।

এ দিন দিল্লির টিকরি সীমানায় বাহের সিংহ নামে ৩৫ বছরের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বাহের রাতে কৃষকদের ট্র্যাক্টর পাহারা দিতেন। শুক্রবার রাত তিনটে নাগাদ তিনি ঘুমোতে গিয়ে আর ওঠেননি। গাজিপুর সীমানায় তিরথ সিংহ নামে এক প্রবীণ কৃষকেরও মৃত্যু হয়েছে। গত ১৫ দিন ধরে তিনি বিক্ষোভে ছিলেন।

Advertisement