Advertisement
১৬ জুন ২০২৪
Tipu Sultan

টিপু সুলতানকে হত্যা করেছিলেন কে? ভোটের আগে বিজেপির নয়া দাবি ঘিরে বিতর্ক কর্নাটকে

আগামী মে মাসে কর্নাটকে বিধানসভা ভোট হওয়ার কথা। ভোট পণ্ডিতদের একাংশের মত এ বার দক্ষিণ ভারতের ওই রাজ্যে ক্ষমতাসীন বিজেপিকে কড়া টক্কর দিতে পারে কংগ্রেস।

Karnataka Assembly Election 2023: Who killed Tipu Sultan? fresh controversy after claims of BJP leaders

শিল্পীর তুলিতে টিপু সুলতানের শেষ যুদ্ধ। ছবি: সংগৃহীত।

সংবাদ সংস্থা
বেঙ্গালুরু শেষ আপডেট: ২৩ মার্চ ২০২৩ ২২:২৭
Share: Save:

শ্রীরঙ্গপত্তমের যুদ্ধে ইংরেজ সেনাপতি কর্নওয়ালিশের বাহিনী? না কি উরি গৌড়া এবং নাঞ্জে গৌড়া নামে দুই ‘কাল্পনিক’ চরিত্র। অষ্টাদশ শতকে মহীশূরের শাসক টিপু সুলতানের ‘প্রকৃত হত্যাকারী’ নিয়ে এ বার নতুন বিতর্ক কর্নাটক রাজনীতিতে।

সম্প্রতি, ‘টিপু নিজকানাসুগালু’ নামে একটি উপকথা-নির্ভর নাটকের প্রসঙ্গ তুলে বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক সিটি রবি এবং রাজ্যের দুই মন্ত্রী অশ্বথ নারায়ণ ও গোপালাইয়া দাবি করেন, টিপুকে খুন করেছিলেন উরি এবং নাঞ্জে নামে দুই ভোক্কালিগা জনগোষ্ঠীর বিদ্রোহী। ঘটনাচক্রে, বিজেপির ওই তিন নেতাও ভোক্কালিগা জনগোষ্ঠীর। এর পর শোভা করন্ডলাজের মতো কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও একই দাবি করেন। আর তা নিয়েও শুরু হয় বিতর্ক।

ইতিহাস বলছে, ১৭৯২ সালে তৃতীয় ইঙ্গ-মহীশূর যুদ্ধে ব্রিটিশ বাহিনীর হামলায় নিহত হয়েছিলেন টিপু। ‘টিপু নিজকানাসুগালু’ নাটকের কোনও ঐতিহাসিক ভিত্তি নেই বলে ইতিহাসবিদদের বড় অংশের দাবি। কিন্তু কর্নাটকের আসন্ন বিধানসভা ভোটের আগে মেরুকরণের অঙ্ক ‘পাখির চোখ’ করেই বিজেপির এই পদক্ষেপ বলে অভিযোগ বিরোধী কংগ্রেস এবং জেডি(এস)-এর।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে কর্নাটকের বিজেপি সভাপতি তথা সাংসদ নলিনকুমার কাতিল বলেছিলেন, ‘‘কর্নাটকের পবিত্র মাটিতে টিপু সুলতানের অনুগামীদের বেঁচে থাকাই উচিত নয়!’’ পাশাপাশি বিজেপির এক সভায় তিনি বলেন, ‘‘আমরা ভগবান রাম, ভগবান হনুমানের ভক্ত। আমরা ভগবান হনুমানের সামনে প্রার্থনা করি, প্রণাম জানাই। আমরা টিপু সুলতানের বংশধর নই। আসুন টিপুর বংশধরদের তাঁদের দেশে ফেরত পাঠাই!’’ তাঁর সেই মন্তব্যের জেরেও উত্তেজনা ছড়িয়েছিল কন্নড় রাজনীতিতে।

বস্তুত, কর্নাটকের রাজনীতিতে টিপু সুলতান নামটি বরাবরই বিজেপির মেরুকরণের রাজনীতির হাতিয়ার। বিজেপির চোখে, ব্রিটিশের বিরুদ্ধে যুদ্ধের শহিদ টিপু ‘হিন্দু-হত্যাকারী’। শ্রীরঙ্গপত্তনমে টিপুর মসজিদ আদতে মন্দির ভেঙে গড়া বলেও হিন্দুত্ববাদীদের অভিযোগ। ২০১৭ সালে মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়ার কংগ্রেস সরকার টিপুর জন্মজয়ন্তী পালন শুরু করার পরে সেই মেরুকরণ আরও চরমে পৌঁছয়। অমিত শাহ সরাসরি ওই ঘটনাকে ‘মুসলিম তোষণ’ বলেছিলেন।

২০১৮ সালে বিধানসভা ভোটের আগে টিপুর ২১৯তম মৃত্যুবার্ষিকীতে ‘মহীশূর’-এর প্রাক্তন শাসককে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য কুর্নিশ জানায় পাকিস্তান সরকার। বিজেপি প্রচারে নামে, ‘কংগ্রেসের নায়ককে’ শ্রদ্ধা জানাচ্ছে পাকিস্তান। ঘটনাচক্রে, চলতি বছরে সে রাজ্যে বিধানসভা ভোট হওয়ার কথা। কর্নাটকের জনসংখ্যার ১৩ শতাংশ মুসলমান। ২২৪টির মধ্যে ১৯টি আসনের নির্ণায়ক মুসলিম ভোট। সেই আসনগুলি বাদ দিয়েই বিজেপি জয়ের অঙ্ক কষছে বলে ভোট পণ্ডিতদের একাংশের ধারণা।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE