×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৩ জুন ২০২১ ই-পেপার

দেশে ফিরল নীরব-মেহুলের হিরে-গয়না

সংবাদসংস্থা
মুম্বই ১০ জুন ২০২০ ২১:০৮
—ফাইল চিত্র।

—ফাইল চিত্র।

হিরে, মুক্তো আর সোনায় গয়না মিলিয়ে ওজন প্রায় ২,৩০০ কিলোগ্রাম। আনুমানিক মূল্য ১,৩০০ কোটি টাকা। পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক জালিয়াতি কাণ্ডের দুই পলাতক অভিযুক্ত, নীরব মোদীমেহুল চোক্সীর এই বিপুল সম্পদ হংকং থেকে দেশে ফেরাল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)।

ইডি সূত্রের খবর, ১০৮টি প্যাকেট ভরা মূল্যবান সামগ্রী মুম্বইয়ে নিয়ে আসা হয়েছে। এর মধ্যে ৩২টি প্যাকেটে নীরবের এবং ৭৬টিতে তাঁর মামা মেহুলের হিরে-জহরত রয়েছে। ২০১৮ সালের গোড়ায় ১৩ হাজার কোটি টাকার পিএনবি ঋণ প্রতারণার ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরেই হিরে ব্যবসায়ী মামা-ভাগ্নে তাঁদের এই সম্পদ দুবাইয়ের একটি সংস্থার জাহাজে করে দফায় হংকংয়ে পাচার করেছিলেন।

সেখান থেকে দুবাইয়ে পাঠানোর মতলবে ছিলেন তাঁরা। কিন্তু গোয়েন্দা সূত্রে খবর পেয়ে ইডি দ্রুত ওই হিরে-মুক্তো আর গয়না দেশে ফেরানোর জন্য আইনি প্রক্রিয়া শুরু করে। শেষ পর্যন্ত ভারতের আদালতের রায়, ইন্টারপোলের নোটিস-সহ তথ্যপ্রমাণ পেশ করা হয় হংকংয়ের বিচারবিভাগীয় কর্তৃপক্ষের কাছে। নীরব-মেহুলের তছরূপ করা অর্থের অঙ্ক, জাহাজের যাত্রাপথ, মূল্যবান সামগ্রীর চালান দেখে নিশ্চিত হওয়া যায়, সেগুলির ‘উৎস’ ভারত। এর পরেই হংকং কর্তৃপক্ষের সহায়তায় মামা-ভাগ্নের বেআইনি সম্পত্তির হেফাজতে নিয়েছিল ইডি।

Advertisement

আরও পড়ুন: হু হু করে ছড়াচ্ছে করোনা সংক্রমণ, মহা-শঙ্কায় দিল্লি​

আরও পড়ুন: গুগল নেভিগেশনে এ বার পথনির্দেশ দেবেন বিগ বি?​

ভুয়ো সংস্থা গড়ে পঞ্জাব ব্যাঙ্কের ঋণ প্রতারণায় যুক্ত নীরব গত বছর লন্ডনে গ্রেফতার হলেও তাঁকে এখনও দেশে ফেরানো সম্ভব হয়নি। মেহুল এখন ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে আত্মগোপন করে আছেন বলে তদন্তকারী সংস্থার অনুমান। এই পরিস্থিতিতে বেআইনি আর্থিক লেনদেন প্রতিরোধ আইনে ধারাবাহিক ভাবে তাঁদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছে ইডি।

Advertisement