×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ জানুয়ারি ২০২১ ই-পেপার

‘ব্যক্তিগত অ্যাজেন্ডাকে প্রশ্রয় নয়’, চমস্কি প্রশ্নে বললেন মুম্বই সাহিত্য উৎসবের কর্তা

সংবাদ সংস্থা
মুম্বই২২ নভেম্বর ২০২০ ১৯:০৪
—ফাইল চিত্র।

—ফাইল চিত্র।

বাক স্বাধীনতার প্রতি শ্রদ্ধা রয়েছে। কিন্তু কারও ব্যক্তিগত ‘অ্যাজেন্ডা’-কে প্রশ্রয় দেওয়া উচিত হবে না। মুম্বই সাহিত্য উৎসব থেকে নোম চমস্কি এবং বিজয় প্রসাদের আলোচনা বাদ দেওয়ার সপক্ষে এ বার এমনই যুক্তি দিলেন ওই সাহিত্য উৎসবের ডিরেক্টর অনিল ধরকর। তিনি বলেন, ‘‘জন পরিসরে কিছু সমাজকর্মীর সঙ্গে চমস্কি এবং প্রসাদের বেশ কিছু চিঠিপত্র হাতে এসেছে। তা থেকে জানতে পেরেছি, এই অনুষ্ঠানকে হাতিয়ার করে টাটার মতো সংস্থাকে নিশানা করার পরিকল্পনা ছিল ওঁদের। ওই সমাজকর্মীদের বার্তা জনসাধারণের কাছে পৌঁছে দেওয়াই লক্ষ্য ছিল। সাহিত্য উৎসব এ সবের জায়গা নয়। তাই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’’

ধরকর আরও বলেন, ‘‘নিষ্ঠাবান কর্মীদের নিয়ে এত বছর ধরে এই সাহিত্য উৎসব আয়োজন করে আসছি আমি। খোলামনে এখানে মানুষ তাঁদের ভাবনা-চিন্তা প্রকাশ করতে পারেন। তার জন্যই এই সাহিত্য উৎসব এত সফল। কিন্তু কোনও সংস্থা হোক বা কোনও ব্যক্তিবিশেষ, কারও সম্পর্কে অ্যাজেন্ডা প্রচারের জায়গা নয় এটা।’’ নোমস্কিকে তিনি অসম্ভব শ্রদ্ধা করেন কিন্তু সাহিত্য উৎসবের সংহতি বজায় রাখার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার রাতে মুম্বইয়ের টাটা লিট ফেস্ট-এর জন্য ভার্চুয়াল মাধ্যমে একটি আলোচনায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল চমস্কির। তাঁর সঙ্গে ওই আলোচনার প্যানেলে ছিলেন বিজয় প্রসাদ। চমস্কির নতুন বই ‘ইন্টারন্যাশনালিজম অর এক্সটিংশন’ নিয়েও তাতে আলোচনা হওয়ার কথা ছিল। ওই আলোচনাচক্র নিয়ে গতকাল সকাল ৯টাতেও দু’জনের সঙ্গে ই-মেল মারফত যোগাযোগ করেছিলেন উদ্যোক্তারা। তবে দুপুর ১টা নাগাদ আচমকাই তাঁদের ইমেল করে জানিয়ে দেওয়া হয়, ‘অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি’তে ওই আলোচনাচক্র বাতিল ঘোষণা করা হচ্ছে। কিন্তু সেই ‘অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি’ আসলে কী— তা নিয়ে বিশদে কিছু জানাননি মুম্বই সাহিত্য উৎসবের উদ্যোক্তারা। তাতেই বিতর্ক শুরু হয়।

Advertisement

আরও পড়ুন: নেতৃত্ব নিয়ে সঙ্কট নেই, কপিল কটাক্ষের উত্তরে বার্তা খুরশিদের​

আরও পড়ুন: মঙ্গলবার বাঁকুড়া থেকে মোদীর সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে যোগ দেবেন মমতা​

যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করে উদ্যোক্তাদের এই সিদ্ধান্তের তীব্র সমালোচনা করেন চমস্কি এবং প্রসাদ। প্রশ্ন তোলেন, ‘টাটা এবং ধরকর আমাদের অনুষ্ঠান কেন বাতিল করলেন জানি না। কেবল জল্পনাই কররে পারি আমরা। এটা কি আসলে সেন্সরশিপ’? সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের মাধ্যমে ভারতে নাগরিক অধিকার লঙ্ঘনের চেষ্টা চলছে, টাকা দিয়ে ভোটারদের মুখ বন্ধ করার প্রয়াস চলছে বলেও মন্তব্য করেন তাঁরা।

Advertisement