Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

লগ্নি করুন অসমে, প্রবাসীদের আমন্ত্রণ সর্বার

কেন্দ্রের ‘অ্যাক্ট ইস্ট’ নীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এ বার রাজ্যেও স্বতন্ত্র ‘অ্যাক্ট ইস্ট’ দফতর গড়তে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল। বেঙ

নিজস্ব সংবাদদাতা
গুয়াহাটি ১০ জানুয়ারি ২০১৭ ০২:৩৯

কেন্দ্রের ‘অ্যাক্ট ইস্ট’ নীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে এ বার রাজ্যেও স্বতন্ত্র ‘অ্যাক্ট ইস্ট’ দফতর গড়তে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল। বেঙ্গালুরুতে ‘প্রবাসী ভারতীয় দিবস’-এর উদ্বোধনে এ কথা ঘোষণা করেন তিনি। জানান, অসমের সঙ্গে বিদেশি লগ্নিকারীদের ব্যবসা, যোগাযোগ, সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানে নিয়মিত করতে কাজ করবে ওই দফতর।

বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে থাকা অনাবাসী অসমীয়া ও উত্তর-পূর্বের মানুষদের অসম তথা উত্তর-পূর্বের স্বার্থে হাত মেলানোর অনুরোধ জানান মুখ্যমন্ত্রী। বিশেষ করে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সঙ্গে উত্তর-পূর্বের মেলবন্ধন সুদৃঢ করার উপরে জোর দেন তিনি। সোনোয়াল জানান, ‘‘অসম নতুন জমি অধিগ্রহণ নীতি নিয়েছে। প্রশাসনে এসেছে স্বচ্ছতা ও দ্রুততা। বেড়েছে যোগাযোগের সুবিধা ও নিরাপত্তা।’’ তিনি জানান, রাজ্যে নাশকতার ঘটনাও উল্লেখযোগ্য ভাবে হ্রাস পেয়েছে। সমাজ কল্যাণের বিভিন্ন প্রকল্পের কথাও তিনি জানান। রাজ্যের অবস্থান, চা-কাঠ-বাঁশ-রবার-তেলের মতো কাঁচামালের সম্ভার এবং পর্যটন সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘অসম ও উত্তর-পূর্বে লগ্নি অত্যন্ত লাভজনক হতে পারে।’’

সোনোয়াল প্রবাসী লগ্নিকারীদের সমাবেশে জানান, রাজ্যে বিমানবন্দরের ‘ঘনত্ব’ (আয়তন অনুসারে বিমানবন্দরের সংখ্যা) দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অসমেই। সড়কপথে ভারত ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সঙ্গেও যোগযোগ সম্ভব। পাশাপাশি, কলকাতা ও বাংলাদেশের বন্দরগুলির সঙ্গে যুক্ত দীর্ঘ ও নাব্য জলপথ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে। এ ছাড়াও, প্রস্তাবিত ট্রান্স এশিয়ান রেলপথ ও হাইওয়ে তৈরি শেষ হলে অসমের যোগাযোগ অন্য পর্যায়ে চলে যাবে সোনোয়াল বিনিয়োগকারীদের জানান।

Advertisement

তিনি বলেন, অসমই দেশের প্রথম রাজ্য যারা জিএসটি বিল পাশ করেছে। লাগু হয়েছে ‘ইজ অফ ডুয়িং বিজনেস’ আইন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে, ‘এক জানালা নীতি’ মেনে অনলাইনেই মিলবে ব্যবসা-বিনিয়োগের ছাড়পত্র। গুয়াহাটিতে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার গড়ার পরিকল্পনাও হাতে নেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। মুখ্যমন্ত্রীর মতে, রাজ্যে বর্তমানে হোটেল, রিসর্ট, নার্সিং হোম, বিদ্যুৎকেন্দ্র, জৈবপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে বিনিয়োগের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।

অন্য দিকে, বৈষ্ণব সন্ত শ্রীমন্ত শঙ্করদেবের মাহাত্ম্য গোটা দেশে প্রচারের উপরে জোর দেন সোনোয়াল। কর্ণাটকে শঙ্করদেবের আদর্শ প্রচারের জন্য বেঙ্গালুরুতে একটি নামঘর গড়তে শ্রীমন্ত শঙ্করদেব সাংস্কৃতিক সমাজের হাতে ৫০ লক্ষ টাকার সাহায্য তুলে দেন সোনোয়াল। জানান, উপযুক্ত জমি পেলেই দিল্লিতেও নামঘর তৈরির কাজ শুরু করা হবে।

আরও পড়ুন

Advertisement