×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৯ মে ২০২১ ই-পেপার

৩৭০ পিছনে ফেলে কাশ্মীরে নিশানা পর্যটন

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি ২৬ মার্চ ২০২১ ০৭:৪৪
শ্রীনগরের টিউলিপ বাগানে দর্শনার্থীদের ভিড়। বৃহস্পতিবার। পিটিআই

শ্রীনগরের টিউলিপ বাগানে দর্শনার্থীদের ভিড়। বৃহস্পতিবার। পিটিআই

৩৭০ অনুচ্ছেদ রদের পরে প্রায় দেড় বছর পার। সেই সংক্রান্ত যাবতীয় বিতর্ক এবং জঙ্গি হামলার ছায়াকে পিছনে ঠেলে এ বার উপত্যকায় পর্যটকদের জন্য এত দিন কার্যত অনাবিষ্কৃত বহু জায়গা খুলে দিল জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন। লক্ষ্য, গুলমার্গ, পেহেলগাম বা শোনমার্গের মতো চেনা নামের পাশাপাশি ওই সব নতুন জায়গাতেও ভিড় জমান তাঁরা।

করোনা সংক্রমণের ছায়ার মধ্যেও এ বার শীতে উপত্যকায় ভিড় জমিয়েছিলেন রেকর্ড সংখ্যক মানুষ। গুলমার্গে দ্বিতীয় উইন্টার গেমসে এসেছিলেন বহু বিদেশি ক্রীড়াপ্রেমী পর্যটক। সেই সাফল্যকে সঙ্গী করে আসন্ন গ্রীষ্মে পর্যটক টানতে মাঠে নেমেছে জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার সেখানকার পর্যটন দফতর জানিয়েছে, চেনা জায়গার পাশাপাশি এ বার একাধিক নাম না-জানা পর্যটন স্থলকেও ভ্রমণ রসিকদের জন্য খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। পর্যটন দফতরের সচিব সামরাদ হাফিজের কথায়, ‘‘বদগাম জেলার দুধপাথরির কথাই ধরুন। বরফে ঢাকা পাহাড় ও পাইন গাছে ঘেরা সবুজ তৃণভূমি দেখার মতো। খুলে দেওয়া হচ্ছে গুরেজ় ভ্যালি।’’ শ্রীনগর থেকে প্রায় ১২৫ কিলোমিটার দূরে গিলগিট-বালটিস্তানের পথে ভারত-পাক সীমান্তবর্তী এলাকায় পর্যটন-পরিকাঠামো গড়ে তুলেছে প্রশাসন। জম্মু-পঞ্জাব সীমান্তে বাসোলি বাঁধও খুলে দেওয়া হচ্ছে পর্যটকদের জন্য। ভারত-পাকিস্তান সীমান্তকে কেন্দ্র করেও পর্যটন-পরিকল্পনা রয়েছে।

Advertisement

মাথায় রাখা হচ্ছে বাঙালি পর্যটকদের কথাও। হাফিজ জানান, ‘‘পর্যটকদের বড় অংশ বাঙালি। কলকাতায় আমরা রোড শো করেছি। এ মাসের শেষ থেকে কলকাতা থেকে শ্রীনগর সরাসরি বিমান পরিষেবা শুরু হবে। এতে আসতে সুবিধা হবে বাঙালি পর্যটকদের। তবে বিমানবন্দরে থাকবে করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা।’’

৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ ঘিরে বহু বতর্ক হয়েছে। দীর্ঘ সময় কার্ফুর চোঙরাঙানি দিয়ে স্থানীয় মানুষকে ঘরবন্দি করে রাখা নিয়ে সমালোচনা কম হয়নি। কিন্তু জীবিকার খাতিরে এখন সাধারণ মানুষ তা পিছনে ফেলে এগিয়ে যেতে চান বলেই দাবি পর্যটন কর্তাদের।

জঙ্গি সমস্যা? হাফিজের দাবি, ‘‘দু’একটি ব্যতিক্রম ছাড়া জঙ্গিরা সাধারণত পর্যটকদের উপরে হামলা চালায় না। শ্রীনগর দেশের অন্য বহু শহরের থেকে মহিলাদের জন্য অনেক বেশি নিরাপদ।’’

Advertisement