Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২২ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

Yogi Adityanath: যোগীর মুখে ফের গন্না-জিন্না মন্তব্য

নিজস্ব প্রতিবেদন
নয়ডা (উত্তরপ্রদেশ) ২৬ নভেম্বর ২০২১ ০৫:৪৬
উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।
ফাইল চিত্র।

রাজ্যে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধনে এসে মঞ্চ থেকেই ‘গন্না (আখ)-জিন্না’ শব্দবন্ধ তুলে ফের মেরুকরণের রাজনীতি করলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। তা-ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপস্থিতিতে। বৃহস্পতিবার নয়ডায় জেবর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উদ্বোধনে একই মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন মোদী ও যোগী। সেখানেই উত্তরপ্রদেশের আসন্ন বিধানসভা ভোটের কথা মাথায় রেখে যোগী বলেন, ‘‘কিছু মানুষ রাজ্যের আখ অধ্যুষিত অঞ্চলে (পশ্চিম উত্তরপ্রদেশ) দাঙ্গা বাধিয়ে তিক্ততা ছড়ানোর চেষ্টা করেছে। এ বার দেশের মানুষ ঠিক করবেন, তাঁরা আখের মিষ্টতা চান, না জিন্না অনুগামীদের দুর্বৃত্তায়ন?’’

দিন কয়েক আগে এমআইএম নেতা আসাদুদ্দিন ওয়েইসি উত্তরপ্রদেশে এসে সিএএ-এনআরসি বিরোধিতায় সরব হওয়া এবং শাহিন বাগের ধাঁচে আন্দোলনের হুমকি দেওয়ার পরেই নতুন উদ্যমে গন্না-জিন্না শব্দবন্ধ নিয়ে আসরে নেমেছেন যোগী আদিত্যনাথ-সহ বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব। তারও আগে এসপি নেতা অখিলেশ যাদব জিন্নার সঙ্গে বল্লভভাই পটেলকে একাসনে বসিয়ে মন্তব্য করায় তা নিয়েও প্রচারে নেমেছিল বিজেপি। ওয়েইসির মন্তব্যকে অস্ত্র করছে তারা।

একাধিক বিজেপি-বিরোধী দলের অভিযোগ, ওয়েইসি বিভিন্ন রাজ্যে বিজেপির বি-টিম হিসেবে কাজ করেন। গত বছর দিল্লির শাহিন বাগ আন্দোলনের সময় সেখানে ওয়েইসির কোনও রকম ভূমিকা না থাকলেও এ বছর উত্তরপ্রদেশে ভোটের আগে শাহিন বাগের প্রসঙ্গ তুলে আসলে তিনি বিজেপিকেই মেরুকরণের সুযোগ করে দিচ্ছেন। বিরোধীদের বক্তব্য, গত সাড়ে চার বছরের শাসনের পরে স্বাস্থ্য-শিক্ষা-আইনশৃঙ্খলা-নারী নির্যাতন-দলিত ও সংখ্যালঘু নির্যাতনের নিরিখে যোগী শাসিত উত্তরপ্রদেশের অবস্থা একেবারে নীচের সারিতে। এই অবস্থায় বিজেপি তাই উন্নয়নের বদলে মেরুকরণের তাস আঁকড়ে ধরছে। গন্না-জিন্না নিয়ে যোগীর লাগাতার প্রচার তার প্রমাণ।

Advertisement

বিজেপি নেতৃত্বের সামনে রয়েছে আরও একটি অঙ্ক। ২০১৭-র বিধানসভা এবং ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের সিংহ ভাগ আসনেই জিতেছিল বিজেপি। কিন্তু প্রায় এক বছর ধরে চলা কৃষক আন্দোলন পশ্চিম উত্তরপ্রদেশে তাদের চিন্তা বাড়িয়েছে। তার উপর অখিলেশের এসপি-র সঙ্গে আরএলডির জোট বিজেপির চিন্তা বাড়িয়েছে। সম্প্রতি আপ নেতৃত্বের সঙ্গেও কথা বলেছেন অখিলেশ। এই জোট সমীকরণ নিয়ে উদ্বিগ্ন বিজেপি বেশি ভরসা রাখছে মেরুকরণেই।

বিরোধীদের কটাক্ষ, উত্তরপ্রদেশের ভোটে উন্নয়ন নয়, জিন্নাই তাস বিজেপির!

আরও পড়ুন

Advertisement