শিশুদের উপরে যাজকদের যৌন নিগ্রহের অভিযোগ নিয়ে তোলপাড় ভ্যাটিকান। রোমে চার দিনের সম্মেলন ‘প্রোটেকশন অব মাইনরস ইন দ্য চার্চ’-এ পোপ ফ্রান্সিস জানিয়েছেন, শুধু ঘৃণা বা সমালোচনা নয়, শিশুদের উপরে যৌন নিগ্রহ নিয়ে ‘জুতসই পদক্ষেপ’ দেখতে চাইছে গোটা বিশ্ব। রোমান ক্যাথলিক চার্চে একের পর এক কেলেঙ্কারি শিরোনামে এসেছে। পোপ মনে করেন, চার্চের যে সব ত্রুটি রয়েছে, সেগুলোর অবশ্যই নিন্দা করতে হবে যাতে তা শুধরে নেওয়া যায়। কিন্তু যারা ভালবাসা ছাড়া শুধু সমালোচনা করছে, তারা ‘শয়তানের বন্ধু’। 

ভ্যাটিকানে সম্মেলনের শুরুতে আজ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিশপ এবং শীর্ষ ধর্মগুরুদের উদ্দেশে পোপ বলেন, ‘‘চার্চের লোকজনের বিরুদ্ধে নাবালকদের উপরে যৌন নিগ্রহের অভিযোগ উঠেছে। তাই কথা বলতে চাই।’’ তার পরেই পোপ বলেন, ‘‘ছোট ছোট শিশু, যারা বিচার চাইছে, তাদের কথা এ বার শুনুন। ওরা উপযুক্ত পদক্ষেপ চায়। সমালোচনা করে থেমে গেলে চলবে না।’’

বিশ্ব জুড়ে এই ধরনের অভিযোগ বারবার উঠলেও চার্চ তা সব সময় চেপে দেওয়ার চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ অনেকেরই। শৈশবে যাঁরা ওই ধরনের অভিজ্ঞতার শিকার, তাঁরা এখন বলছেন, কিছু নিয়মাবলি তৈরি করা হোক, যাতে সেটাই শিশুদের জন্য রক্ষাকবচ হিসেবে কাজ করে।

১৩০টিরও বেশি দেশের প্রতিনিধি এসেছেন সম্মেলনে। গোটা বিশ্ব চাইছে, আধুনিক চার্চকে যথাযথ নেতৃত্ব দিয়ে কাজের ঠিকঠাক পরিবেশ গড়ে তুলুন পোপ ফ্রান্সিস। যাজক, বিশপ নিয়োগের সময়ে খেয়াল রাখা হোক তাঁদের অতীত রেকর্ড। ’৮০-র দশক থেকে শিশুদের উপরে যৌন নিগ্রহের অভিযোগ নিয়ে চার্চের পরিবেশ দূষিত হতে শুরু করেছে বলে মনে করেন ধর্মগুরুদের একাংশ। নির্যাতিত অনেকের দাবি, কালিমালিপ্ত ১৩০ কোটি সদস্যের চার্চ নিজেদের ভাবমূর্তি রক্ষায় এই সম্মেলন ডেকেছে।